Importance of Ganesh Chaturthi and Mantras to Utter on This Day

গণেশ চতুর্থী – বুদ্ধি, সমৃদ্ধি ও সৌভাগ্য লাভের পুজো

জ্যোতিষ শাস্ত্র রাশিফল

গণেশ চতুর্থী (Ganesh Chaturthi) বা গণেশোৎসব হিন্দু দেবতা গণেশের বাৎসরিক পূজা-উৎসব। পুরান মতে, শিব ও পার্বতী পুত্র গজানন গণেশ হিন্দুদের …

নিজস্ব সংবাদদাতা: “একদন্তং মহাকায়ং লম্বোদর গজাননম। / বিঘ্নবিনাশকং দেবং হেরম্বং পনমাম্যহম।। “ – হিন্দু ধর্মের এক আরাধ্য দেবতা গণেশ। গণেশ চতুর্থী (Ganesh Chaturthi) বা গণেশোৎসব হিন্দু দেবতা গণেশের বাৎসরিক পূজা-উৎসব। পুরান মতে, শিব ও পার্বতী পুত্র গজানন গণেশ হিন্দুদের বুদ্ধি, সমৃদ্ধি ও সৌভাগ্যের সর্বোচ্চ দেবতা। সকল ধর্ম বিশ্বাসী হিন্দুরা বিশ্বাস করেন, এই দিন গণেশ তার ভক্তদের মনোবাঞ্ছা পূর্ণ করতে আমাদের মর্ত্যে অবতীর্ণ হন। মানুষের কল্যানে তিনি আশীর্বাদ দেন করেন। এই উৎসব বিনায়ক চতুর্থী বা বিনায়ক চবিথি নামেও পরিচিত।

             " ওঁ খর্বং স্থূলতনুং গজেন্দ্রবদনং লম্বোদরং সুন্দরং
                 প্রস্যন্দম্মদগন্ধলুব্ধ মধুপব্যালোলগণ্ডস্থলম্।
              দন্তাঘাত বিদারিতারিরুধিরৈঃ সিন্দুরশোভাকরং,
              বন্দেশৈল সুতাসুতং গণপতিং সিদ্ধিপ্রদং কামদম্।। "

আসলে দেশের বিভিন্ন জায়গাতে মহা সমারোহে ও ভক্ত ভরে এই পূজা করা হয়। সিদ্ধিদাতা গণেশের জন্মোৎসব রূপে পালিত হয় এই উৎসব। হিন্দু পঞ্জিকা অনুযায়ী ভাদ্র মাসের শুক্লা চতুর্থী তিথিতে ভগবান গণেশের পূজা হয়। দশদিনব্যাপী গণেশোৎসবের সমাপ্তি হয় অনন্ত চতুর্দশীর দিন। ভাদ্রপদ শুক্লপক্ষ চতুর্থী মধ্যাহ্নব্যাপিনী পূর্বাবিদ্ধ – এই পূজার প্রশস্ত সময়। এই বছর ২২শে অগাস্ট গণেশ চতুর্থীর উদযাপিত হবে। সকলেই এই দিনটার জন্য অপেক্ষা করে বসে থাকে।

১৫১ বছর পর কাল সর্পদোষ কাটছে কার কার ? – আরও জানতে ক্লিক করুন…

Importance of Ganesh Chaturthi and Mantras to Utter on This Day
Importance of Ganesh Chaturthi and Mantras to Utter on This Day

“ওঁ খর্বং স্থূলতনুং গজেন্দ্রবদনং লম্বোদরং সুন্দরং প্রস্যন্দম্মদগন্ধলুব্ধ মধুপব্যালোলগণ্ডস্থলম্। দন্তাঘাত বিদারিতারিরুধিরৈঃ সিন্দুরশোভাকরং , বন্দেশৈল সুতাসুতং গণপতিং সিদ্ধিপ্রদং কামদম্।।”

২২শে অগাস্ট, শনিবার সন্ধে ৭.৫৭ মিনিট অবধি এবং হস্ত নক্ষত্রও সন্ধে ৭.১০ মিনিট পর্যন্ত আছে। শাস্ত্র মতে, এই দিনে একটি বিশেষ (চৌঘরিয়া) মুহূর্ত পড়েছে যে সময় যে গণেশের পুজো করলে মনস্কামনা পূর্ণ হয়। পাঁজি অনুসারে, ২২শ আগস্ট দুপুর ১২.২২ মিনিট থেকে বিকেল ৪টে ৪, লাভ ও অমৃত চৌঘরিয়া রয়েছে। ভাদ্র মাসে শুক্লপক্ষের চাঁদ দেখা খুবই অশুভ বলে মনে করা হয়। কোনও ভাবে ভুল করে এই দিনে চাঁদ দেখা গেলেও উদ্ধারের উপায় আছে। শুদ্ধ মনে পরের দিন সকালে উঠে কোনও দরিদ্রকে সাদা কাপড় দান করতে হয

                " ওঁ ধ্যায়েন্নিত্যং গনপতিং বিদ্যুদ্বর্ণং গজাননং ।
                  শ্বেতাম্বরং সিতাব্জস্থং স্বর্ণমুকুট শোভিতম্ ।।
                   শ্বেতমূষিক পৃষ্ঠন্যস্তবামচরনং সিদ্ধিদং ।
                    বামজান্বারোপিতদক্ষিনপদং চতুর্ভুজম্ ।।

গণেশের অপর নাম বিঘ্নহর্তা। কারণ তিনি সমস্ত ধরনের বিঘ্ন-বাধা সহজে দূর করেন। লগ্নে অবস্থিত মঙ্গলে শনি এবং বৃহস্পতির দৃষ্টির কারণে তিনি এই জোরালো ক্ষমতা পান। হিন্দু চন্দ্র-সৌর ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ভাদ্রমাসে গণেশ পুজোর আয়োজন করা হয়। গণেশ পুজো বাদ দিয়ে কোনও পুজোই সম্পূর্ণ হয় না। মহেশ্বর ও দেবী পার্বতীর দ্বিতীয় পুত্র ছিলেন গণেশ। কথিত আছে, সমস্ত শুভ কাজের শুরু শ্রী গণেশের নাম নিয়ে করলে তা সফল হয়। গণেশের কুষ্ঠিতে লগ্ন এবং লগ্নেশে বৃহস্পতির পূর্ণ দৃষ্টি আছে।

শনির সাড়ে সাতি এবছর কোন রাশি উপরে ? – আরও জানতে ক্লিক করুন ….

                    " একদন্তং মহাকায়ং লম্বোদর গজাননম।
                      বিঘ্নবিনাশকং দেবং হেরম্বং পনমাম্যহম।।
                       ওঁ সর্ববিঘ্ন বিনাশয় সর্বকল্যাণ হেতবে।
                      পার্বতী প্রিয় পুত্রায় গণেশায় নমো নমঃ।। "

এই বৃহস্পতি দ্বিতীয় ও পঞ্চম গৃহের স্বামী। অন্য দিকে বুধও স্বরাশির। সেই কারণে গণেশ বুদ্ধি, জ্ঞানের দাতা ও প্রথম পূজ্য। গণেশের কুষ্ঠিতে পঞ্চমহাপুরুষ যোগের মধ্যে শশ ও রুচক নামের যোগ তৈরি হয়। গণেশের কুষ্ঠিতে লগ্নে বৃশ্চিক রাশি রয়েছে ও মঙ্গল বিরাজ করছে। চতুর্থীর দিন গোটা দেশে খুব ঘটা করে পালন করা হয়। গনেশ পুজো গুজরাট ও মহারাষ্ট্রে সবথেকে ভালো ভাবে সম্পন্ন হয়। সেখানে তিথি মেনে টানা দশ দিনের জাঁক জমক পূর্ণ পুজো পালিত হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *