History of Akshaya Tritiya in Bengali

History of Akshaya Tritiya: অক্ষয় তৃতীয়া

জ্যোতিষ শাস্ত্র রাশিফল

বৈদিক বিশ্বাসানুসারে এই পবিত্র তিথিতে (History of Akshaya Tritiya) কোন শুভকার্য সম্পন্ন হলে তা অনন্তকাল অক্ষয় হয়ে থাকে। তাই এদিন খুব সাবধানে প্রতিটি কাজ করা উচিত।

সংস্কৃত ভাষায়, “অক্ষয়” শব্দটি “সমৃদ্ধি, প্রত্যাশা, আনন্দ, সাফল্য”, “ত্রিত্য” অর্থ “তৃতীয়”,”অর্থে অবিস্মরণীয়, চিরস্থায়ী, সর্বদা নিকৃষ্টতম”। অক্ষয় তৃতীয়া হল চান্দ্র বৈশাখ মাসের শুক্লপক্ষের তৃতীয়া তিথি। অক্ষয় তৃতীয়া (History of Akshaya Tritiya) বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ তিথি। অক্ষয় শব্দের অর্থ হল যা ক্ষয়প্রাপ্ত হয় না। বৈদিক বিশ্বাসানুসারে এই পবিত্র তিথিতে কোন শুভকার্য সম্পন্ন হলে তা অনন্তকাল অক্ষয় হয়ে থাকে। তাই এদিন খুব সাবধানে প্রতিটি কাজ করা উচিত। খেয়াল রাখতে হয় ভুলেও যেন কোনো খারাপ কাজ না হয়ে যায়| কোনো কারণে যেন কারো ক্ষতি না করে ফেলি বা কারো মনে আঘাত দিয়ে না ফেলি। তাই এদিন যথাসম্ভব মৌন থাকা জরুরী। আর এদিন পূজা, জপ, ধ্যান, দান, অপরের মনে আনন্দ দেয়ার মত কাজ করা উচিত।

শনির সাড়ে সাতি এবছর কোন রাশি উপরে ? – আরও জানতে ক্লিক করুন ….

হিন্দু পুরান মতে বিভিন্ন কারণে বিখ্যাত এই দিনটি — এদিনই বিষ্ণুর ষষ্ঠ অবতার পরশুরাম জন্ম নেন পৃথিবীতে। এদিনই রাজা ভগীরথ গঙ্গা দেবীকে মর্ত্যে নিয়ে এসেছিলেন। গণপতি গনেশ বেদব্যাসের মুখনিঃসৃত বাণী শুনে মহাভারত রচনা শুরু করেন এই দিনে। আবার দেবী অন্নপূর্ণার আবির্ভাব ঘটে। এদিনই সত্যযুগ শেষ হয়ে ত্রেতাযুগের সূচনা হয়। এই দিন থেকেই পুরীধামে জগন্নাথদেবের রথযাত্রা উপলক্ষ্যে রথ নির্মাণ শুরু হয়। কেদার বদরী গঙ্গোত্রী যমুনত্রীর যে মন্দির ছয়মাস বন্ধ থাকে এইদিনেই তার দ্বার উদঘাটন হয়। দ্বার খুললেই দেখা যায় সেই অক্ষয়দীপ যা ছয়মাস আগে জ্বালিয়ে আসা হয়েছিল।

১৫১ বছর পর কাল সর্পদোষ কাটছে কার কার ? – আরও জানতে ক্লিক করুন…

যে ব্যবসায়ীরা পয়লা বৈশাখ হালখাতা করেন না, তাঁরাই অক্ষয়তৃতীয়া পালন করেন। আসলে বেশির ভাগ মানুষের মধ্যেই এমন ধারণা যে, বাঙালির জীবনে অক্ষয় তৃতীয়ার মানে হালখাতা। দোকানে দোকানে আম্রপল্লব, ঘট, নতুন লক্ষ্মী-গণেশ, খরিদ্দারকে মিষ্টির প্যাকেট ধরানো। সদ্য শুরু হওয়া নতুন বাংলা বছরের ক্যালেন্ডার। তবে সনাতন সংস্কৃতি মানে রয়েছে আরও অনেক গুরুত্ব। জৈন ও হিন্দু ক্যালেন্ডারে চান্দ্র বৎসরের হিসেব রাখতে গিয়ে কোনও কোনও মাস থেকে দিন বাদ যায়। কিন্তু অক্ষয় তৃতীয়া দিনটিকে কখনই বাদ দেওয়া হয় না। অক্ষয় তৃতীয়া দিনটিকে যে কোনও নতুন কাজ আরম্ভের জন্য শুভ ধরা হয়। কেবল ব্যবসা-বাণিজ্য নয়, নতুন বৃক্ষরোপণ, পুষ্করিণী খনন, কূপ খননও এই দিনে শুভ বলে ধরে ভারতীয় সংস্কৃতি। এই দিন গয়না কেনাও শুভ বলে মনে করা হয়।

একাদশীর সাতসতেরো – চন্দ্র তিথি – আরও জানতে ক্লিক করুন ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *