yaba in a dead body dhaka

বাংলাদেশের সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ মর্গে লাশের পেটে মিলল ১৫০০ ইয়াবা – 1500 Pieces of Yaba Found Inside of a Dead Body in Bangladesh

বাংলাদেশ

ময়না তদন্তকারী চিকিৎসক লাশের পেটে ৫৭টি প্যাকেট ইয়াবা পান| যদিও তার মধ্যে দুটি প্যাকেটে থাকা ইয়াবা গলে গিয়েছিল। বাকি ৫৫টি প্যাকেটে ১৫০০ ট্যাবলেট পাওয়া যায়।

মাদক ইয়াবা এখন বাংলাদেশের আতংকের বিষয়| কম পয়সায়, বেশ সহজেই মিলছে এই মোদক দ্রব্য| বাংলাদেশের গোটা যুব সমাজকে অন্ধকারের দিকে ঠেলে দিচ্ছে| সতর্ক প্রশাসন. সব সময় কড়া নজর রাখছে দেশের সকল প্রান্তে| মাদক পাচারকারীরাও তাদের কুকাজের পদ্ধতিকে পাল্টে ফেলেছে| দেশের মহিলারা এখন অভাবের জন্যই মাদক পাচারে নেমেছে| মৃত মহিলার পেট থেকে মিললো মাদক ইয়াবার প্যাকেট| যদিও আনুমানিক ৪০ বছর বয়সী ওই মহলের আসল পরিচয় জানা যায়নি। অসুস্থ্য অবস্থায় তাকে, যারা নিয়ে এসেছিলেন,তারা খারাপ অবস্থা বুঝেই পালায় । তবে মাদক ইয়াবা পেটের ভেতরে নিয়ে পাচারের কয়েকটি ঘটনা আগে ধরা পড়লেও মৃতের পেটে ইয়াবার ঘটনা আগে শোনা যায়নি।

জানা গেছে, বুধবার দুপুরে সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ মর্গে ওই মহিলার ময়নাতদন্ত করা হয়। তখনই তার পেটে ইয়াবা পাওয়া যায় বলে জানিয়েছেন কলেজের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান এ এম সেলিম রেজা। এই সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ মর্গে বুধবার এই মহিলার মৃতদেহ এসেছিল পাশের জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট থেকে।শেরেবাংলা নগর থানার পরিদর্শক আবুল কালাম আজাদ জানান, দুজন লোক এই নারীকে হৃদরোগ ইস্টিটিউটের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসেন। কর্তব্যরত চিকিৎসক দেখে মহিলাকে মৃত বলে ঘোষণা করলে ওই দুজন এ্যাম্বুলেন্স নিয়ে যায়| তারা আর ফেরেনি। এরপর বুধবার ময়নাতদন্তের জন্য নিয়ে যায় সোহরাওয়ার্দীর মর্গে।

পুলিশ কর্মকর্তা আজাদ জানান, ময়না তদন্তকারী চিকিৎসক লাশের পেটে ৫৭টি প্যাকেট ইয়াবা পান| যদিও তার মধ্যে দুটি প্যাকেটে থাকা ইয়াবা গলে গিয়েছিল। বাকি ৫৫টি প্যাকেটে ১৫০০ ট্যাবলেট পাওয়া যায়। তবে এই মহিলার পরিচয় বের করতে তার আঙ্গুলের ছাপ নিয়ে জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে পুলিশ। পাশাপাশি তাকে নিয়ে আসা দুই ব্যক্তিকে চিহ্নিত করতে হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ নেওয়া হয়েছে।

ইয়াবা পাচারের ব্যাপকতা অনেক বেড়েছে| ইয়াবা কারবারিরা এবার দলে দলে রোহিঙ্গাদের ভাড়া করছে পাচারে। প্রায় প্রতিদিনই মায়ানমার থেকে রোহিঙ্গার দল পাচার করে আনছে ইয়াবা। কিছুদিন আগেই ইয়াবা পাচারকালে কমপক্ষে ১০ জন রোহিঙ্গা বন্দুকযুদ্ধের শিকারে নিহত হয়েছে। তবুও কিছুতেই থামছে না ইয়াবা পাচার। কিছুদিন আগেই, টেকনাফ সীমান্তে ১৩ জন রোহিঙ্গার পেট থেকে বের করা হয়েছে ৩০ হাজার ইয়াবা। এসব ইয়াবা বহনকারী রোহিঙ্গারা এক ট্রিপে ২০ হাজার টাকার বিনিময়ে ইয়াবা পেটে করে পাচার করছিল। প্রশাসনিক সতর্কতা আর দেশবাসীর সচেতনতাই এই মাদক পাচার থেকে, দেশকে বাঁচাতে সক্ষম হবে|

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *