7 Militant Gets Death Verdict from Court in Holey Artisan Case

Holey Artisan Case: আর্টিজান মামলাতে ৭ জনের মৃত্যুদণ্ড

বাংলাদেশ

আজ থেকে তিন বছর আগে ঢাকার কূটনীতিকপাড়া গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে নজিরবিহীন জঙ্গি হামলা (Holey Artisan Case) ঘটে।

আজ থেকে তিন বছর আগে ঢাকার কূটনীতিকপাড়া গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে নজিরবিহীন জঙ্গি হামলা (Holey Artisan Case) ঘটে। এই ঘটনায় ২২ জনকে হত্যার দায়ে নব্য জেএমবির সাত সদস্যের ফাঁসির রায় দিয়েছে বাংলাদেশের আদালত। রায়ে ৮ আসামির মধ্যে ৭ জনের মৃত্যুদণ্ড ও ১ জনকে খালাস দিয়েছেন আদালত। বিচার শুরু হওয়ার এক বছরের মাথায় আজ বুধবার বহুল আলোচিত এই মামলার রায় ঘোষণা করলেন ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনাল। এছাড়াও প্রত্যেক আসামিকে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানাও করা হয়।

7 Militant Gets Death Verdict from Court in Holey Artisan Case
7 Militant Gets Death Verdict from Court in Holey Artisan Case

২০১৬ সালের ১ জুলাই রাতে একদল তরুণের ওই আত্মঘাতী হামলা বাংলাদেশকে বদলে দেয় অনেকখানি। সর্বোচ্চ সাজার আদেশ পাওয়া জাহাঙ্গীর হোসেন ওরফে রাজীব গান্ধী, আসলাম হোসেন ওরফে র‌্যাশ, আব্দুস সবুর খান, রাকিবুল হাসান রিগ্যান, হাদিসুর রহমান, শরিফুল ইসলাম ওরফে খালেদ ও মামুনুর রশিদ রিপন এ সময় কাঠগড়াতেই উপস্থিত ছিলেন। রোজার ঈদের মাত্র এক সপ্তাহ আগে যেদিন ওই হামলা হয়, সেদিন ছিল শুক্রবার। পিস্তল, সাব মেশিনগান আর ধারালো অস্ত্র হাতে পাঁচ তরুণ রাত পৌনে ৯টার দিকে ওই ক্যাফেতে ঢুকে শুরু করে নৃশংসতা।

মিজানুর রহমান ওরফে বড় মিজান খালাস পেয়েছেন। তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল নিষিদ্ধ সত্তার সদস্য পদ গ্রহণ, বিস্ফোরক পদার্থ (জেল জাতীয় পদার্থ), যা বোমা তৈরির উপাদান সরবরাহ করে হত্যাকাণ্ডে সমর্থন দেওয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে মিজান বলেছিলেন, তিনি মাছ ব্যবসায়ী। ২০১৬ সালের মার্চ মাসের শেষের দিকে জামাল নামের এক ব্যক্তি তাঁর জিম্মায় বড় ব্যাগ রেখে যায়। ওই ব্যাগে জেল বোমা ছিল বলে জানা গেছে। সেদিন গুলি করে ১৭ বিদেশি নাগরিকসহ ২০ জনকে হত্যা করে তারা। হামলা ঠেকাতে গিয়ে নিহত হন দুই পুলিশ কর্মকর্তা। অভিযানের সময় ও পরে হাসপাতালে মারা যায় হলি আর্টিজান বেকারির দুই কর্মচারী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *