All educational institutions will be closed till 6th of August in Bangladesh

বাংলাদেশে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি ৬ই আগস্ট পর্যন্ত

বাংলাদেশ

দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি (Bangladesh educational institutions holiday) আগামী ৬ই আগস্ট পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। আজ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক …

নিজস্ব প্রতিবেদন: বাংলাদেশে মহামারি করোনা ভাইরাসের কারণে দিশাহারা। শিক্ষার্থীদের সার্বিক নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করা হয়েছে। দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি (Bangladesh educational institutions holiday) আগামী ৬ই আগস্ট পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। আজ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

বাংলাদেশ করোনা আক্রান্তের সংখ্যায় চীনকে ছাড়াল – আরও জানতে ক্লিক করুন …

গত ১৭ই মার্চ থেকে বাংলাদেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। কয়েক দফা ছুটি বাড়ানোর পর আজ তা শেষ হচ্ছে। ছুটি শেষ হওয়ার আগেই শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে আবারো ৬ই আগস্ট পর্যন্ত ছুটি বাড়ানো হলো। এই মুহূর্তে বাংলাদেশে করোনা পরিস্থিতির ঊর্ধ্বগতি চলছে। এই অবস্থায় স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় খুলছে না বলে জানা যায়।

All Bangladesh educational institutions holiday extends till 6th of August
All Bangladesh educational institutions holiday extends till 6th of August

সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী এক অনুষ্ঠানে বলেছিলেন, করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হলে আগামী সেপ্টেম্বর পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকতে পারে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় সংসদ টেলিভিশনে প্রাথমিক ও মাধ্যমিকের ক্লাস সম্প্রচার করা হচ্ছে। শহরাঞ্চলের শিক্ষার্থীরা এসব ক্লাস দেখতে পেলেও গ্রাম ও মফস্বলের বেশিরভাগ শিক্ষার্থীর সমস্যা থাকছে।

বাংলাদেশে আগামী শিক্ষাবর্ষের জন্য ৩৫ কোটি বই – আরও জানতে ক্লিক করুন …

তাই গ্রামের অগণিত শিক্ষার্থীরা অনেকটাই পিছিয়ে পড়ছে। গত ১লা জুন শিক্ষা মন্ত্রণালয় বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অফিস শুধুমাত্র প্রশাসনিক রক্ষণাবেক্ষণের প্রয়োজনে খোলা রাখা যাবে। তবে অসুস্থ শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারী, সন্তান সম্ভবারা এবং ঝুঁকিপূর্ণ ব্যক্তি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উপস্থিত হবেন না।

বাংলাদেশে ত্রাণ সহায়তা পেয়েছে দেড় কোটি পরিবার  – আরও জানতে ক্লিক করুন …

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের কারণে চলতি বছরের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা স্থগিত রয়েছে। এসএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ হলেও একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি কার্যক্রমও শুরু করা যায়নি। সব মিলে শিক্ষা ব্যবস্থাতেও স্থবিরতা নেমে এসেছে। অনিশ্চিত ভবিষতের দিকে তাকিয়ে ছাত্রছাত্রীরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *