Emergency number 999 a boost in security in Bangladesh

বাংলাদেশের বিপদে সত্যিকারের বন্ধু হয়ে উঠেছে ৯৯৯

বাংলাদেশ

দ্রুত প্রতিকার পাবেন বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ। ফলে ভরসার কেন্দ্র হয়ে উঠছে ৯৯৯ (Emergency number 999)। কলের সংখ্যা বাড়ার …

নিজস্ব সংবাদদাতা: বাংলাদেশে একটা যুগান্তকারী পরিষেবা চালু হলো। দেশবাসীর যেকোনো বিপদে ও সমস্যায় বন্ধুর ভূমিকা পালন করছে। জাতীয় জরুরি সেবার আনা হয়েছে একটি হেল্পলাইন নম্বর। এটি বিপদের সময় ফোন করে দ্রুত প্রতিকার পাবেন বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ। ফলে ভরসার কেন্দ্র হয়ে উঠছে ৯৯৯ (Emergency number 999)। কলের সংখ্যা বাড়ার সাথে বাড়ছে সেবা প্রত্যাশার ধরন। ২০১৭ সালে চালু হওয়ার পর এখন পর্যন্ত আড়াই কোটি কল এসেছে জাতীয় জরুরি সেবা কেন্দ্রে। গত সাত মাসে চার লাখ ৯৯ হাজার ৮৫৮টি কল এসেছে সংক্রমণ সংক্রান্ত তথ্য ও সহায়তা চেয়ে।

Emergency number 999 a boost in security in Bangladesh
Emergency number 999 a boost in security in Bangladesh

বাংলাদেশের ত্রাণ সহায়তা চেয়ে, ত্রাণসামগ্রী আত্মসাতের অভিযোগ , ভাইরাস সংক্রমণের পরীক্ষা ও চিকিৎসার তথ্য, শারীরিক হয়রানি, পারিবারিক সহিংসতা, চুরি-ছিনতাইসহ বিভিন্ন অপরাধের ব্যাপারে কল পাচ্ছে ৯৯৯। এই অতি প্রয়োজনীয় ৯৯৯ জরুরি সেবা, বাংলাদেশ পুলিশের অধীনে পরিচালিত একটি জরুরি কল সেন্টার। এখান থেকে জরুরি পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও অ্যাম্বুল্যান্স সেবা দেওয়া হচ্ছে। দেশের সকল প্রান্ত থেকে যেকোনো ব্যক্তি ৯৯৯ নম্বরে কল করার মাধ্যমে জরুরি সেবা নিতে সক্ষম।

[ আরও পড়ুন ] বাংলাদেশে পাতাল রেল মোট দশ রুটে হচ্ছে

বাংলাদেশে গত ৩১শে অক্টোবর পর্যন্ত ৯৯৯ নম্বরে দুই কোটি ৫২ লাখ ৮৮ হাজার ২৬টি কল এসেছে। এর মধ্যে এক কোটি ৯৯ লাখ ২৯ হাজার ৪২৯ কল ভুল ছিল। সেবা দেওয়ার কল ছিল ৫৩ লাখ ৫৮ হাজার ৫৯৭টি। এর মধ্যে পুলিশের সেবা দেওয়া হয়েছে তিন লাখ তিন হাজার ৪৮৬ কলে। আর ফায়ার সার্ভিসের মাধ্যমে আগুন নেভানোর সেবা দেওয়া হয় ৪৩ হাজার ৫৯৮ কলে। এদিকে অ্যাম্বুল্যান্স সেবা দেওয়া হয় ৬৫ হাজার ৯৯৩ কলে। গত সাত মাসে, চার লাখ ৯৯ হাজার ৮৫৮ জন কল করে সংক্রমণ সংক্রান্ত তথ্য ও সহায়তা চেয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *