Gulshan Kitchen Market Fire

বাংলাদেশের বনানীর আতংকের মাঝেই ফের অগ্নিকাণ্ড ঢাকার গুলশনে – Gulshan Kitchen Market Fire Completely Razed 291 Shops in Dhaka

বাংলাদেশ

ভোরের প্রায় আড়াই ঘণ্টার এই অগ্নিকাণ্ডে ওই কাঁচাবাজারের দেড়শ’র মতো দোকান পুড়ে ছাই হয়ে গিয়েছে।

আবার বিধ্বংসী অগ্নিকাণ্ড বাংলাদেশে। এবারেও ঘটনাস্থল সেই রাজধানী ঢাকা।আজ শনিবার, ভোর রাতে গুলশন এলাকার বাজারে আগুন লাগে! দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছায় দমকলের ২৪টি ইঞ্জিন। কয়েক ঘণ্টার চেষ্টায় সেই আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে দমকল কর্মীরা! তবে বাজারের ব্যবসায়ীরা বলেছেন, বাজার বন্ধ থাকায় ভেতরে কোনও মানুষ ছিল না! এই ঘটনায় কারও মৃত্যু না হলেও , পুড়ে ছাই হয়ে গিয়েছে কয়েক লক্ষ টাকার সম্পত্তি। আজ ভর পাঁচটা নাগাদ গুলশন ১–এর ডিএনসিসি মার্কেটের পাশে কাঁচাবাজার থেকে হঠাৎ কালো ধোঁয়া উড়তে দেখা যায়। তারপরই দাউ দাউ করে জ্বলে উঠে একটি সুগন্ধীর দোকান। সতর্ক স্থানীয়রা সঙ্গে সঙ্গে খবর পাঠায় দমকলে। দমকল বাহিনী দ্রুত নিভিয়ে ফেলে সেই আগুন।

তবে ভোরের প্রায় আড়াই ঘণ্টার এই অগ্নিকাণ্ডে ওই কাঁচাবাজারের দেড়শ’র মতো দোকান পুড়ে ছাই হয়ে গিয়েছে। আগুনে কাঁচাবাজারের সামনের পাঁচতলা গুলশন শপিং সেন্টারের কয়েকটি দোকানও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তবে কাঁচাবাজার লাগোয়া গুলশন ১ নম্বর ডিএনসিসি মার্কেট তেমন ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি। সেই ২০১৭ সালের ২রা জানুয়ারি ভয়াবহ এক অগ্নিকাণ্ডে পুড়েছিল গুলশন ১ নম্বর ডিএনসিসি মার্কেট। তখন দোতলা মূল বিপণি বিতানের পাশের কাঁচাবাজারও সম্পূর্ণ পুড়ে গিয়েছিল। তারপর ওই বাজারটি আবার নতুন করে গড়ে তোলা হলেও দু’ বছরের মধ্যে আবার তা পুড়ে গেল।

মেয়র আতিকুল ইসলাম জানান, বাজারের একটি সুগন্ধির দোকান থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে। তবে আবার কেন এই মার্কেটে আগুন লাগল, বিষয়টি তদন্ত করে দেখবে সরকার। ফায়ার জানা যাচ্ছে, ২০১৭ সালে ডিএনসিসি মার্কেটে আগুন লাগার পর বাজার কর্তৃপক্ষকে অগ্নিনির্বাপণ যন্ত্র রাখার জন্য বেশ কয়েকবার নোটিস দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তারপরও বাজার কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় কোনও ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। এই নিয়ে রাজধানী ঢাকার বুকে পরপর তিনটি অগ্নিকাণ্ড গঠলো।বারবার এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় প্রশ্নের মুখে এসে দাঁড়িয়েছে সরকারি নিরাপত্তা ব্যবস্থা। তবে, সবার আগে প্রয়োজন, মানুষের সার্বিক সচেতনতা|

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *