Loan Defaulters in Bangladesh Gets 3 Months More

Loan Defaulters in Bangladesh: তিন মাস সুবিধা

বাংলাদেশ

তফসিল নীতিমালার আওতায় ঋণখেলাপিদের গণসুবিধার সময়সীমা তিন মাস বাড়িয়েছে বাংলাদেশ (Loan Defaulters in Bangladesh) ব্যাংক।

পরিস্থিতি বুঝে সময় বাড়ানো হলো। তফসিল নীতিমালার আওতায় ঋণখেলাপিদের গণসুবিধার সময়সীমা তিন মাস বাড়িয়েছে বাংলাদেশ (Loan Defaulters in Bangladesh) ব্যাংক। ফলে বাংলাদেশে ঋণ পুনঃ তফসিলীকরণে আরো তিন মাস আবেদন করা যাবে। এই সুবিধাপ্রাপ্তদের নতুন ঋণ দেওয়ারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। নতুন ঋণ পেতে খেলাপিদের অতিরিক্ত হিসেবে তাঁদের মোট ঋণ বকেয়ার ১৫ শতাংশ ডাউন পেমেন্ট দিতে হবে। তবে রপ্তানিকারকদের ক্ষেত্রে তা হবে মোট ঋণ বকেয়ার ৭.৫ শতাংশ।

বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, টাকা আদায় করতেই জেলে না পাঠিয়ে খেলাপিদের জন্য ঋণ পুনঃতফসিলের বিশেষ সুযোগ দেওয়া হয়েছে। এতে অনেকেই ধারণা করছেন যে, ভালো-মন্দ এক হয়ে যাচ্ছে। অর্থমন্ত্রী বলেন, যারা ঋণের ২ শতাংশ দেবে, তারা আবার ব্যবসা করতে পারবে। কারণ, তাদের ব্যবসা করতে হলে আবার ঋণের প্রয়োজন হবে। আর যারা ভালো তাদের তো কোনো এক্সট্রা ডিপোজিট বা ঋণ লাগবে না। তবে সবাই যদি আন্তরিকভাবে চেষ্টা করে তাহলে সবাই দিতে পারবে। ব্যাংক ঋণে সুদের হার ১০ এর ওপরে যাবে না। এটা ৯ দশমিক ৭৫ হবে। অর্থাৎ সিঙ্গেল ডিজিট হবে। প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচনী ইশতেহারে ও বাজেটে সেটা উল্লেখ আছে।

বিভিন্ন পক্ষের আপত্তি ও সমালোচনার মধ্যেই গত ১৬ মে বাংলাদেশ ব্যাংক ঋণ পুনঃ তফসিল ও এককালীল এক্সিট সংক্রান্ত ওই বিশেষ নীতিমালা জারি করে। তাতে বলা হয়, ঋণখেলাপিরা মাত্র ২ শতাংশ ডাউন পেমেন্ট দিয়েই ঋণ পুনঃ তফসিল করতে পারবেন। পুনঃ তফসিল হওয়া ঋণ পরিশোধে তাঁরা সময় পাবেন টানা ১০ বছর। তফসিলের বিশেষ নীতিমালার আওতায় নতুন করে আর কোনো আবেদন নিতে পারবে না ব্যাংকগুলো। নীতিমালায় বেঁধে দেওয়া ৯০ দিনের সময়সীমা শেষ হয়ে যাওয়ায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। নতুন আবেদন গ্রহণ বন্ধ থাকলেও এই সময়সীমায় জমা হওয়া আবেদনগুলো নিষ্পত্তির বিষয়ে তা গ্রহণ করা যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *