PM Sheikh Hasina Urges US Companies to Come in Bangladesh

Sheikh Hasina: মার্কিন বিনিয়োগকারীদের আহ্বান

বাংলাদেশ

শেখ হাসিনা (Sheikh Hasina) আজ লোট নিউইয়র্ক প্যালেস হোটেলে ইউএস চেম্বারস অব কমার্স আয়োজিত ‘মধ্যাহ্নভোজ গোলটেবিল বৈঠকে’ বক্তৃতা করছিলেন।

বাংলাদেশের কল্যাণের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খুব চেষ্টা করে যাচ্ছে। বাংলাদেশের আরও উন্নয়নের জন্য অধিকতর মার্কিন বিনিয়োগ চেয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা (Sheikh Hasina) জানান, ‘মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে আমাদের দ্বিতীয় বৃহত্তম বাণিজ্য অংশীদার ও বৃহত্তম বিনিয়োগ অংশীদার হিসেবে দেখতে পেয়ে আমি আনন্দিত। আরও উন্নয়নের জন্য আপনাদের বিনিয়োগ ও সম্পৃক্ততা জরুরি। এটি আমাদের উভয়ের জন্য একটি “উইন-উইন অপশন”। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ লোট নিউইয়র্ক প্যালেস হোটেলে ইউএস চেম্বারস অব কমার্স আয়োজিত ‘মধ্যাহ্নভোজ গোলটেবিল বৈঠকে’ বক্তৃতা করছিলেন। সেখানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যখন চতুর্থ শিল্প বিপ্লব আমাদের দরজায় কড়া নাড়ছে, তখন অভিন্ন সুবিধা ও সমৃদ্ধির জন্য আমাদের অভিযাত্রায় আপনাদের আমাদের সঙ্গে থাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।’

দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশের বিনিয়োগনীতি সবচেয়ে উদার। বাংলাদেশের বহুবিধ সুবিধার মধ্যে কয়েকটি হলো আইনের মাধ্যমে বিদেশি বিনিয়োগের সুরক্ষা, উদার ট্যাক্স হলিডে, যন্ত্রপাতি আমদানির ক্ষেত্রে রেয়াতি শুল্ক, অবাধ ও এক্সিট নীতি এবং এক্সিটের ক্ষেত্রে লভ্যাংশ ও মূলধনের পূর্ণ প্রত্যর্পণ। বাংলাদেশে সংসদের প্রাসঙ্গিক আইন ও দ্বিপক্ষীয় বিনিয়োগ চুক্তি দ্বারা বিদেশি বিনিয়োগ সংরক্ষিত। বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্র একটি ‘দ্বিপক্ষীয় বিনিয়োগ চুক্তি’ ও ‘দ্বৈত করারোপ সমঝোতা’ স্বাক্ষর করেছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। শেখ হাসিনা সেখানে জানান , বাংলাদেশ দেশের বিভিন্ন স্থানে ওয়ান–স্টপ সুবিধাসংবলিত ১০০টি বিশেষায়িত অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করছে। এগুলোর মধ্যে এক ডজন প্রস্তুত রয়েছে এবং চারটি বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে তিনটি দেশকে। এ ছাড়া প্রযুক্তি ও উদ্ভাবনী উদ্যোগের জন্য বেশ কিছু হাইটেক পার্কও প্রস্তুত হয়েছে।

বাংলাদেশে মার্কিন বিনিয়োগ গত পাঁচ বছরে এক বিলিয়ন মার্কিন ডলার ছাড়িয়েছে। যদিও অর্থনৈতিক ও কারিগরি সক্ষমতার বিচারে এটি মার্কিন বিনিয়োগ সম্ভাবনার অনেক কম। শেখ হাসিনা বলেন, কৌশলগত অবস্থার কারণে বাংলাদেশ আঞ্চলিক ইকোনমিক হাব হওয়ার বিপুল সম্ভাবনাময়। পশ্চিমে ভারত, উত্তরে চীন, পূর্বে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া এবং নিজেদের সাড়ে ১৬ কোটি জনসংখ্যা নিয়ে বাংলাদেশ ৪০০ কোটি লোকের একটি সম্মিলিত বাজারের মাঝখানে অবস্থিত।’ যেহেতু বাণিজ্যের জন্য আঞ্চলিক সংযোগ খুবই গুরুত্বপূর্ণ, সেহেতু প্রতিবেশী ও পুরো অঞ্চলের সঙ্গে ভৌতভাবে সংযুক্ত হওয়ার জন্য সার্ক, বিমসটেক, বিবিআইএন ও বিসিআইএন-ইসির আওতায় বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। বাংলাদেশ সবজি উৎপাদনে তৃতীয় বৃহত্তম, চাল উৎপাদনে চতুর্থ বৃহত্তম, অভ্যন্তরীণ মৎস্য উৎপাদনে পঞ্চম বৃহত্তম এবং তৈরি পোশাক রফতানিতে বিশ্বে দ্বিতীয় শীর্ষ স্থান দখল করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *