Shutdown in Bangladesh due to the Impact of Coronavirus

Shutdown in Bangladesh: যেখানে প্রয়োজন, সেখানে শাটডাউন

বাংলাদেশ

করোনাভাইরাসের কারণে বাংলাদেশের যেখানে যেখানে শাটডাউন (Shutdown in Bangladesh) করা প্রয়োজন তা করা হবে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন …

করোনা ভাইরাসের প্রকোপ চীন থেকে ইউরোপে বেশি ছড়িয়েছে। এশিয়াতে এর সংক্রমণ তুলনায় কম থাকলেও, বাংলাদেশ সজাগ আছে। করোনাভাইরাসের কারণে বাংলাদেশের যেখানে যেখানে শাটডাউন (Shutdown in Bangladesh) করা প্রয়োজন তা করা হবে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। আজ বুধবার বেলা ১১টায় সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে সমসাময়িক ইস্যুতে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। তিনি স্পষ্ট ভাব জানান, ‘শাটডাউন প্রয়োজন হলে করা হবে, যেখানে যেখানে প্রয়োজন। কারণ, এখানে সবার আগে মানুষকে বাঁচাতে হবে।’

Shutdown in Bangladesh due to the Impact of Coronavirus
Shutdown in Bangladesh due to the Impact of Coronavirus

বাংলাদেশে যদি শাটডাউন করতে হয়, সেক্ষেত্রে বাংলাদেশের প্রস্তুতি আছে কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন, “প্রয়োজন হলে শাটডাউন করা হবে। যেখানে প্রয়োজন, সেখানে করা হবে। সবার আগে মানুষকে বাঁচাতে হবে। সেজন্য যা যা করণীয় করা হবে। ওয়ার্ল্ড হেলথ অরগানাইজেশনের ডিরেক্টর জেনারেল গতকাল যে বক্তব্য দিয়েছেন, সেখানে কথা একটাই ছিল টেস্ট, টেস্ট অ্যান্ড টেস্ট, তিনবার এটি উচ্চারণ করেছেন। তিনি বলেছেন টেস্টের ওপর গুরুত্ব দেয়া উচিত, আমরাও সেটি অনুসরণ করে এগিয়ে যাব। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় করোনা মোকাবিলায় প্রয়োজনীয় মাস্ক, ওষুধ, কীটসসহ প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করা হবে। সবার অভিন্ন শত্রু হিসেবে সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় করোনা মোকাবিলা করব।”

বাংলাদেশে মোট আটজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত – – আরও জানতে ক্লিক করুন …

আজ তিনি আরও জানান , করোনা প্রতিরোধে সরকারিভাবে কঠোর নজর দেব। সাংবাদিকরাও সঠিক রিপোর্ট করবেন। এখানে প্রাণ বাঁচানোর বিষয়। প্রাণঘাতি ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করছি। এখানে রাজনীতি না করে সকল রাজনৈতিক দলের কাছে অনুরোধ, করোনা অভিন্ন শত্রু, কোনো পলিটিক্স না করে ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবেলা করতে হবে। তিনি বলেন, আমরা সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছি যে সভা সমাবেশে যাব না। সেজন্য বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সীমিত করেছি। টুঙ্গীপাড়ায় মানুষের ঢল নামার কথা, সেখানে আমরা অনেক সীমিত করেছি। অনুষ্ঠানমালা পুনর্বিন্যাস করে বিশ্বব্যাপী করোরোনার যে আতঙ্ক, তা যেন সামনে না বাড়তে পারে সে জন্য যথেষ্ট সতর্কতার সঙ্গে মোকাবেলা করব।

রাষ্ট্রীয় সব অনুষ্ঠানে ‘জয় বাংলা’ স্লোগান বাধ্যতামূলক হচ্ছে – আরও জানতে ক্লিক করুন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *