after-effect-of-cyclone-amphan

আম্ফান সাইক্লোন -এর রেশ কাটতে আরও ৯০ দিন লাগবে

কলকাতা পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের খবর

আয়লার (Cyclone) সময় রাজ্যকে অর্থ বরাদ্দ করার পাশাপাশি পূনর্বাসনের জন্য বাজেটে ১০০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছিল তৎকালীন মনমোহন সরকার …

পূর্বের সব পরিসংখ্যান হেরে যাচ্ছে। আসতে চলেছে বিশেষ কেন্দ্রীয় দল। আম্ফান -এর তীব্র তান্ডবের সামনে খুব অসহায় গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গ। শহর কলকাতা এই তান্ডপ খুব বেশি দেখেনি। কোনো পরিবারই রেহাই পায়নি ক্ষতির হাত থেকে। আমফানে রাজ্যে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত দুই জেলা উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা। বিধ্বংসী সাইক্লোনের (Cyclone Amphan) প্রকোপে তছনছ বসিরহাট, হাবড়া, বজবজ থেকে ক্যানিং, মিনাখা-সহ দুই জেলার বিভিন্ন এলাকা।

বিরোধীরা বলছে, পুরসভা ব্যার্থ:

কয়েক লক্ষ গাছ ভাঙার সাথে, প্লাবিত হয়েছে দুই ২৪ পরগনা, হাওড়া, হুগলি এবং পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুরের বহু নিচু জনপদ। ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে দমদম বিমানবন্দরের ফাইবার গেট। বিদ্যুৎহীন মহানগরের বেশ কিছু এলাকা। বিরোধীরা বলছে, পুরসভা ব্যার্থ সঠিক পরিষেবা দিতে । সরকারপক্ষ অবশ্য সে দাবি মানতে রাজি নয়। কাঁচাবাড়ি, বিদ্যুতের খুঁটি ও গাছ ভেঙে গিয়েছে। অনেকের মৃত্যুর খবরও পাওয়া গিয়েছে।

Amphan Cyclone Damage
Amphan Cyclone Damage

এখনো বিপর্যস্ত গ্রামীণ বাংলা:

কাকদ্বীপ, কৈখালি, কুলতলি, পাথরপ্রতিমায় একের পর এক বাঁধ ভেঙে পড়েছে। বানভাসী হতে চলেছে অগণিত গ্রাম। ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হাজার-হাজার কাঁচা বাড়ি। ক্যানিং মহাকুমার গোসোবা, বাসন্তী, কুলতলী, জয়নগরের বিস্তীর্ণ এলাকায় ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। রাস্তার উপর উপড়ে পড়েছে বিদ্যুতের খুঁটি, টেলিফোন পোস্ট। এখনও পর্যন্ত বিভিন্ন এলাকা বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন, মোবাইল ও ইন্টারনেট পরিষেবা সম্পূর্ণভাবে বিপর্যস্ত।

এই তীব্র গরম থেকে বাঁচার উপায়আরও জানতে ক্লিক করুন …

মুখ্যমন্ত্রীর আর্জি:

রাজ্যের একাধিক জেলা থেকে বিপর্যয়ের খবর শুনে মুখ্যমন্ত্রী অসহায় হয়ে বলেন , ‘‘রাজনৈতিক ভাবে এই সাইক্লোনকে না দেখে একটু মানবিকতার দিক দিয়ে দেখুন। এখন বরং রাজনীতি দূরে থাক। বাংলাকে ধ্বংস থেকে উন্নয়নের পথে আবার একসাথে দাঁড় করাতে হবে। সবার সহযোগিতা চাইছি।’’ এদিকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফোনে খবর নিলেন মমতার কাছে। দুই চব্বিশ পরগনা-সহ অন্তত ৬-৭ টা জেলার সর্বনাশ করে দিয়েছে ঘূর্ণিঝড়। কত লক্ষ কোটি টাকার ক্ষতি করে দিয়েছে তা হিসাব করা কঠিন।

মাছি তাড়ানোর সহজ প্রাকৃতিক উপায় – আরও জানতে ক্লিক করুন …

আরও ৯০ দিন!

কলকাতা, হাওড়া ও দুই ২৪ পরগনায় গাছ ভেঙেছে, লাইটপোস্ট উপড়ে পড়ছে, গৃহস্থের জলের ট্যাঙ্ক পড়েছে এবং বিদ্যুৎ কাঠামো বিকল হয়েছে। জনজীবন ও পরিষেবা স্বাভাবিক হতে আরও ৯০ দিন লাগবে। ইতিমধ্যে রাজ্যকে প্রায় ১০০০ কোটি টাকা দিয়েছে কেন্দ্র সরকার। আয়লার সময় রাজ্যকে অর্থ বরাদ্দ করার পাশাপাশি পূনর্বাসনের জন্য বাজেটে ১০০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছিল তৎকালীন মনমোহন সরকার। এবার অমিত শাহের দিকে তাকিয়ে থাকবে নবান্ন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *