Boroma Binapani Devi Admitted To SSKM For Chest Pain

এসএসকেএমে ভর্তি অসুস্থ বড়মা বীণাপাণি দেবীকে সাম্মানিক ডিলিট – Boroma Binapani Devi Admitted To SSKM For Chest Pain

কলকাতা

মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক ছাড়াও বড়মার সঙ্গে ছিলেন পুত্রবধূ সাংসদ মমতাবালা ঠাকুর ও তৃণমূল নেতা মদন মিত্র

মানবসেবা ও ধর্মীয় আবর্তে আছেন এই অশীতিপর মানুষটি| অসংখ্য ভক্ত শ্রদ্ধার সাথে তাঁকে স্মরণ করে, আশীর্বাদ কামনা করে| সেই মানুষটি হলেন, মতুয়া মহাসংঘের বড়মা শ্রদ্ধেয়া বীণাপাণি দেবী, যিনি গুরুতর অসুস্থ। তাঁর শারীরিক অবস্থা অতি সংকটজনক বলেই কলকাতার এসএসকেএম হাসপাতালের আইটিইউতে ভর্তি করতে হয়েছে। সেখানকার ক্রিটিকাল কেয়ার ইউনিট বিশেষজ্ঞ ডাঃ রজত রায়চৌধুরীর পরিচালনায় গঠন করা হয়েছে একটি মেডিক্যাল বোর্ডও।

Binapani Devi at SSKM
Binapani Devi at SSKM

আসলে গতকাল, বৃহস্পতিবার রাতে নিজের ঠাকুরনগরের বাড়িতেই অসুস্থ হয়ে পড়েন শতায়ু বড়মা। পরিস্থিতি বিপদের বুঝেই কল্যাণী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয় কিন্তু জানা যায় বার্ধক্যজনিত সমস্যা ছাড়াও শ্বাসকষ্টের সমস্যা রয়েছে তাঁর। কিন্তু বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে তাঁর তীব্র শ্বাসকষ্ট শুরু হলে একবার জ্ঞানও হারান| তারপরই কল্যাণীর জেএনএম হাসপাতালে ভর্তি করা হয় বীণাপাণিদেবীকে।

শনিবার শারীরিক সংকট না কাটায়, রবিবার কলকাতার এসএসকেএম হাসপাতালে নিয়ে আসা হয় বড়মাকে। মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক ছাড়াও বড়মার সঙ্গে ছিলেন পুত্রবধূ সাংসদ মমতাবালা ঠাকুর ও তৃণমূল নেতা মদন মিত্র। মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে এই চিকিৎসার সম্পূর্ণ দায়ভার বহন করছে রাজ্য সরকার। জানা গেছে, সংকট এখনও না কাটলেও তাঁর অবস্থা স্থিতিশীল। ২৪ ঘন্টার বিশেষ মেডিক্যাল বোর্ড তাঁর সুস্থতার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন| আসলে বড়মার দ্রুত সার্বিক আরোগ্য কামনায় প্রার্থনা করছেন প্রত্যেকেই। অন্যদিকে পুত্রবধূ মাননীয়া সংসদ, মমতাবালা ঠাকুর জানিয়েছেন, উন্নত চিকিৎসার স্বার্থেই কলকাতায় নিয়ে আসা হয়েছে বড়মাকে। আশা করা যাচ্ছে, পরিস্থিতি উন্নতির দিকেই যাবে|

Boroma with her followers
Boroma with her followers.

এদিকে এই মতুয়া সম্প্রদায়ের বড়মা বীণাপাণিদেবীকে সাম্মানিক ডিলিট দেবে বলে ঠিক করেছেন কোচবিহারের পঞ্চানন বর্মা বিশ্ববিদ্যালয়। আজ, সোমবার ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের থেকে ওই ঘোষণা করার কথা। বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি সূত্রে জানা গেছে, পঞ্চানন বর্মা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যকরী কমিটির বৈঠকেই শ্রদ্ধেয়া বড়মা-কে এই সম্মান দেওয়ার প্রস্তাব আনা হয়। তারপর ওই বৈঠকে সংখ্যাগরিষ্ঠের সহমত দেখে, সিদ্ধান্ত পাকা করে রাজ্যপালের অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়। মাননীয় রাজ্যপালও সেই অনুমোদন দিয়ে দিয়েছেন।

আসলে আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের আগে সুবিশাল ভোট -ব্যাঙ্ক মতুয়াদের মন পেতে তৎপর হয়েছে বিজেপি। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী উত্তর ২৪ পরগনার ঠাকুরনগরে গিয়ে বড়মা’র সঙ্গে দেখা করেছেন। তৃণমূল এবং রাজ্য সরকারও যে মতুয়াদের কাছে রাখতেই, পঞ্চানন বর্মা বিশ্ববিদ্যালয়ের এই সিদ্ধান্ত বলে মনে করছেন রাজনৈতিক মহল।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গিয়েছে, দেশের বৃহত্তর নমঃশূদ্র সমাজের জন্য দীর্ঘ দিন ধরে কাজ করছেন বীণাপাণিদেবী। তিনি একজন প্রকৃত সমাজ সংস্কারক। দুই বাংলার মানুষের জন্য কাজ করেছেন বলেই, তাঁকে ডিলিট দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। উপাচার্য দেবকুমার মুখোপাধ্যায় জানান, আগামী ৬ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে মাননীয়া বীণাপাণিদেবীকে ডিলিট সম্মান দেওয়া হবে। খুশি হাওয়া ঠাকুরনগরে|

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *