CBI Summons Mathew Samuel Again For Spy Cam in Narada Sing

Spy Cam in Narada Sting: আবার তলব ম্যাথু স্যামুয়েলকে

কলকাতা

এই তদন্তে জানা গেছে, প্রখ্যাত নারদা কাণ্ডে একটি লুকানো ক্যামেরা (Spy Cam in Narada Sting) ব্যবহার করা হয়।

কিছুদিনের মধ্যে আবার নারদাকাণ্ডের তদন্তে ব্যস্ততা শুরু হলো। খুব তাড়াতাড়ি বিষয়টি শেষ করতে চাইছে কেন্দ্রীয় দপ্তর। ফলে নারদাকাণ্ডে এবার আড়ালে থাকা লুকানো এক বা একাধিক ক্যামেরার ব্যবহারকে ঘিরে রহস্য তৈরী হয়েছে। এই ব্যাপারে বিস্তারিত জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আবার ডাকা হয়েছে ম্যাথু স্যামুয়েলকে। অনেকদিন ধরে চলতে থাকা এই তদন্তে জানা গেছে, প্রখ্যাত নারদা কাণ্ডে একটি লুকানো ক্যামেরা (Spy Cam in Narada Sting) ব্যবহার করা হয়। সেটাতে অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ও ছবি তোলা হয়। আর ওই ক্যামেরার হাতিয়ারই ম্যাথ্যুকে নায়ক বানিয়ে দেয়। ম্যাথু স্যমুয়েলের আই-ফোনের সঙ্গে যুক্ত ছিল সেই লুকনো ক্যামেরাটি। আবার ইয়ারফোনের ইনপুট পয়েন্টে ওই লুকনো ক্যামেরাটি যুক্ত ছিল।

গণমাধ্যমে ঝড় তোলা নারদা স্টিং অপারেশনের সমস্ত ফুটেজই, ওই লুকনো ক্যামেরার মাধ্যমেই তোলা হয়। জানা যাচ্ছে, ইয়ারফোনের ইনপুট পয়েন্টে ওই লুকনো ক্যামেরাটি রাজধানী দিল্লির এক ব্যবসায়ী ইনস্টল করেছিলেন। অবশ্য পরে সেই ব্যবসায়ী এই ধরনের কোনও লুকনো ক্যামেরা ইনস্টলেশনের কথা স্বীকার করেন নি। এই ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদের জন্যই আবার তলব করা হয়েছে ম্যাথু স্যামুয়েলকে। আগামী ২৮শে অগাস্ট দিল্লিতে সিবিআই দফতরে তলব করা হয়েছে ম্যাথু স্যামুয়েলকে। সেদিন দিল্লির সেই ব্যবসায়ীর সঙ্গে ম্যাথু স্যামুয়েলকে মুখোমুখি বসিয়ে জেরা করা হবে বলে জানা যাচ্ছে।

লোকসভা ভোট মেটার পর থেকে নারদ স্টিং অপারেশনের তদন্তে গতি বাড়িয়েছে সিবিআই। যদিও এই ঘটনায় অন্যতম অভিযুক্ত মুকুল রায় বর্তমানে বিজেপিতে নাম লিখিয়েছেন। এর আগেও বেশ কয়েক বার ম্যাথুকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন গোয়েন্দারা। এদিকে, সম্প্রতি নারদকাণ্ডে রাজ্য পুলিশের সাসপেন্ড আইপিএস অফিসার সৈয়দ মহম্মদ হোসেন মির্জাকে দ্বিতীয় দফায় দু’দিন জিজ্ঞাসাবাদ করেন তদন্তকারীরা। সিবিআই সূত্রের খবর, মির্জাকে দু’দিন জিজ্ঞাসাবাদ করে যে তথ্য উঠে এসেছে, তার সঙ্গে ম্যাথুর আগের দেওয়া বয়ানে কিছুটা ফারাক রয়েছে বলে গোয়েন্দারা মনে করছেন। দু’জনের বয়ান ফের মিলিয়ে দেখতে ম্যাথুকে ডেকে পাঠানো হয়েছে বল মনে করা হচ্ছে।

আসলে এখন নারদা কাণ্ডে সিবিআই-এর নজরে রাজ্যের পঞ্চায়েত ও পরিবহন দফতর আছে। রাজ্যের পঞ্চায়েত ও পরিবহন দফতরকে সম্প্রতি নোটিস পাঠিয়েছে সিবিআই। নারদা কাণ্ডে পঞ্চায়েত ও পরিবহন দফতরের কিছু আধিকারিককে জিজ্ঞাসাবাদ করতেই নোটিস পাঠায় কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা।পাশাপাশি পুরসভার মেয়রকেও চিঠি দিয়েছে সিবিআই। সেই চিঠিতে ২০১৪ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত পুরসভার ভিআইপি করিডরে কারা দায়িত্বে ছিলেন, তা জানতে চাওয়া হয় পুরসভার কাছ থেকে। পুরসভার ভিআইপি করিডরের দায়িত্বে থাকা ৪ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হাজিরা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *