Central Trade Unions Announce Bharat Bandh on January 8 2020

Bharat Bandh: কাল ধর্মঘট, ছুটি পাবেন না সরকারি কর্মীরা

কলকাতা

গোটা দেশ জুড়ে এই ধর্মঘটের (Bharat Bandh) ডাক দেওয়া হয়েছে। দেশের বেহাল অর্থনীতি, নাগাড়ে ছাঁটাই, দ্রুত বাড়তে থাকা বেকারত্ব আর বছরের …

অনেকদিন বাদে পুরানো সংস্কৃতি(!) ফিরতে চলেছে হাত-হাতুড়ির সৌজন্যে। গোটা দেশ জুড়ে এই ধর্মঘটের (Bharat Bandh) ডাক দেওয়া হয়েছে। দেশের বেহাল অর্থনীতি, নাগাড়ে ছাঁটাই, দ্রুত বাড়তে থাকা বেকারত্ব আর বছরের পর বছর থমকে থাকা বেতনে এমনিতেই নাভিশ্বাস সাধারণ শ্রমিক-কর্মচারীদের। তার উপর মাথার উপরে খাঁড়া এনআরসি-র। আর এই সমস্ত কিছুর জন্য মোদী সরকারকে দায়ী করে তাদের একতরফা ‘শ্রমিক-বিরোধী’ নীতির প্রতিবাদে ৮ই জানুয়ারি সারা দেশে সাধারণ ধর্মঘটের ডাক দিল কেন্দ্রীয় ট্রেড ইউনিয়নগুলি।

কিন্তু বনধকে কোনও ভাবেই সমর্থন করছেন না মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী। ফলে আগামীকাল ৮ই জানুয়ারি, বনধের দিন রাজ্য সরকারের সব কর্মচারীকে অফিসে আসতে হবে। নবান্ন থেকে জারি করা হয়েছে এই বিজ্ঞপ্তি। আর ওই বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে সিএএ-এনআরসির বিরুদ্ধে বাম ও বিরোধীদের ডাকা বনধের দিন ছুটি পাবেন না সরকারি কর্মীরা। শুধু তাই নয় বনধের আগের দিন আজ, ৭ই জানুয়ারি ও বনধের পরের দিন ৯ই জানুয়ারিও আসতে হবে অফিসে।

খুবই সাহসী ও কড়া সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। তিন দিন অফিসে না এলে করা হবে শো-কজ। কাটা হবে বেতন ও ছুটি। এমনটাই জানানো হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে। তবে অফিস আসার বাধ্যবাধকতা থেকে বাইরে রাখা হয়েছে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি, কোনও নিকটাত্মীয়ের মৃত্যুজনিত কারণকে। আবার মাতৃত্বকালীন ছুটির ক্ষেত্রেও এই বিজ্ঞপ্তি কার্যকর হবে না। সূর্যকান্ত মিশ্র বলেন, ‘‘কেন্দ্রের সরকার ৩৬৫ দিন যা সব বন্ধ করে দিচ্ছে, তা খোলার দাবিতে এক দিন বন্‌ধ করছেন শ্রমিকেরা। প্রধানমন্ত্রী নিজের স্কুল-কলেজের পড়াশোনার কাগজ দেখাতে পারবেন না অথচ আমাদের কাগজ দেখাতে বলছেন! এ সবের প্রতিবাদেই ধর্মঘট।’’ বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু, ফ্রন্ট ও সহযোগী ১৭টি দলের পক্ষে ধর্মঘট সফল করার ডাক দিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *