Face off Between Troops at India China Border in Ladakh

India China Border: লাদাখে ভারত-চিন সীমান্তে উত্তেজনা

কলকাতা

উত্তরে সীমান্তের পরিস্থিতি আবার বেসুরো হয়ে উঠলো। লাদাখে ভারত–চীন সীমান্তে (India China Border) উত্তেজনা চরমে পৌঁছলো।

উত্তরে সীমান্তের পরিস্থিতি আবার বেসুরো হয়ে উঠলো। লাদাখে ভারত–চীন সীমান্তে (India China Border) উত্তেজনা চরমে পৌঁছলো। লাদাখের প্যাংগং লেকের কাছে সেনা টহলদারির সময়ে চীন সেনার সঙ্গে কথাকাটাকাটিতে জড়িয়ে পড়ে ভারতীয় সেনার জওয়ানরা। উত্তেজনা চূড়ান্ত সীমায় পৌঁছে গেলে হাতাহাতিতেও জড়িয়ে পড়েন দুই পক্ষের সেনারা। এই অবাক করা ঘটনাটি ঘটে পূর্ব লাদাখের প্যাংগং লেকের উত্তরে। ওই এলাকার দুই তৃতীয়াংশই আছে ওই চীনের দখলে। জানা যাচ্ছে, প্যাংগং লেকের ‘‌লাইন অফ অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল’‌ সীমান্ত বরাবর টহলদারি চালায় ভারতীয় সেনা। আর সেই সময় বাধা দেয় চীনের ‘‌পিপলস লিবারেশন আর্মি’‌–র সেনা। ফলে সেখানকার চীন সেনাদের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন ভারতীয় সেনারা। উত্তেজনা চরমে পৌঁছলে দু’‌দেশই ওই অঞ্চলে আরো সেনা পাঠায়।

সারাদিনের দীর্ঘ অচলাবস্থার পর শেষমেশ পরিস্থিতি বাগে আনতে দু’দেশের সেনাবাহিনীর উচ্চপদস্থ কর্তারা বৈঠকে বসেন। এই বৈঠকেই মেলে সমাধানসূত্র। তার পরই পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয় ভারত-চিন সীমান্তে। প্যাঙ্গং হ্রদের উত্তরাংশে টহলদারি চালাচ্ছিল ভারতীয় সেনাবাহিনী। সে সময় ‘রেড আর্মি’র মুখোমুখি হয় ভারতীয় সেনা। এর পর থেকেই দু’দেশের সেনাবাহিনী বিবাদে জড়িয়ে পড়ে। বিবাদে দু’পক্ষেরই দাবি, তাঁদের ভূখণ্ডে অন্যায় ভাবে ঢুকে পড়েছে প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সেনাবাহিনী। ভারতীয় সেনা সূত্রে জানানো হয়েছে, ‘লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল’-এ কোনও সমস্যা দেখা দিলে তা সমাধানের জন্য প্রোটোকল মানে দু’দেশের সেনাবাহিনী।

লাদাখের প্যাঙ্গং লেক ভুবন বিখ্যাত। তার উত্তরের ১৩৪ কিলোমিটার দীর্ঘ তীরবর্তী এলাকার দুই তৃতীয়াংশই চীনের দখলে রয়েছে। ভারতের দখলে রয়েছে এক তৃতীয়াংশ। মাঝে লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল তথা ভারত-চীনের মূল সীমারেখা।গত বছর ডোকালামে ভারত জওয়ান ও চীন সেনাদের মধ্যে একই কারণে উত্তেজনা ছড়িয়েছিল। আগামী দিনে অরুণাচল প্রদেশ ভারতীয় সেনার প্রশিক্ষণ শুরু হলে এরকম ঘটনা আরও ঘটতে পারে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং চীনের প্রেসিডেন্ট সি চিন পিং এর মধ্যে এ মাসেই বৈঠক হওয়ার কথা। তার আগে সীমান্ত বিতর্ক নিয়ে বৈঠক হওয়ার কথা ছিল দু’দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ে। কিন্তু হঠাৎই সে তারিখ পিছিয়ে দিয়েছে বেজিং।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *