Firecrackers Banned During Diwali 2020 in West Bengal

বাজির জন্য জনস্বার্থ মামলা – বাজি কারখানায় বিস্ফোরণ

কলকাতা পশ্চিমবঙ্গ

মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী আগেই কালীপুজোয় বাজি পোড়ানোর বন্ধ (Firecrackers Banned During Diwali) রাখার আবেদন জানিয়েছেন। মানুষের …

নিজস্ব সংবাদদাতা: সামনেই দীপাবলি উৎসব। আলোর সাথে ব্যবহার করা হয় নানাধরণের বাজি। মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী আগেই কালীপুজোয় বাজি পোড়ানোর বন্ধ (Firecrackers Banned During Diwali) রাখার আবেদন জানিয়েছেন। মানুষের সার্বিক সচেতনতাই পারে পরিবেশকে দূষণমুক্ত রাখতে ও সংক্রমণকে থামাতে। নবান্নে সাংবাদিক বৈঠক করে সংযতভাবে কালীপুজো পালন করার আবেদন জানিয়েছেন রাজ্য়ের মুখ্যসচিব আলাপন বন্দোপাধ্যায়। করোনা আবহে এবার বাজি পোড়ানোয় নিষেধাজ্ঞা জারির আর্জি জানিয়ে জনস্বার্থ মামলা দায়ের করা হল কলকাতা হাইকোর্টে।

Firecrackers Banned During Diwali 2020 in West Bengal
Firecrackers Banned During Diwali 2020 in West Bengal

আগামীকাল মামলাটির শুনানি হতে পারে প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ। মুখ্যমন্ত্রী মুখ্য সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, রাজ্য পুলিশের ডিজি, কলকাতার পুলিশ কমিশনার-সহ নবান্নের শীর্ষ কর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। দুর্গাপুজোয় নিয়ে যিনি জনস্বার্থ মামলা করেছিলেন, তিনি হাইকোর্টে বাজি পোড়ানো নিয়ে নিষেধাজ্ঞা জারির আবেদন জানালেন। তিনি কালিপুজোর সাথে ছটপুজো-সহ নানা উৎসবে রাজ্যের সর্বত্রই বাজি বিক্রি বন্ধ রাখার আর্জি জানিয়েছেন।

[ আরো পড়ুন ] রাজ্যের ভোটার তালিকা সংশোধন শুরু ১৮ই নভেম্বর

এদিকে চম্পাহাটির বাজি কারখানায় মজুত থাকা বাজিতে আগুন লাগলো। মস্ত বিস্ফোরণে কেঁপে উঠেছে এলাকা। দাউ দাউ করে জ্বলছে তীব্র আগুন। কুণ্ডলী পাকিয়ে উঠছে কালো ধোঁয়া। আতংকে মানুষ সেখান থেকে পালাচ্ছে। দীপাবলির কারখানায় আগুন ক্ষতি হয়েছে বেশ কয়েক লক্ষ্য টাকা। আসলে দক্ষিণের এই চম্পাহাটির বাজি কারখানা থেকে রাজ্য ও দেশের বিভিন্ন জায়গায় বাজি সরবরাহ করা হয়। প্রশাসনের বাহিনী এখনো সেখানে পৌঁছাতে পারছে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *