Hemanga Biswas was a Bengali singer, composer, author and political activist, known for his advocacy of peoples music

Hemanga Biswas: সঙ্গীতশিল্পী হেমাঙ্গ বিশ্বাসের জন্মদিন

কলকাতা

হেমাঙ্গ বিশ্বাস (Hemanga Biswas) একজন বাঙালি অসমীয়া সঙ্গীতশিল্পী এবং সুরকার। মূলত লোকসঙ্গীতকে কেন্দ্র করে গণসঙ্গীত সৃষ্টির কাজ …

হেমাঙ্গ বিশ্বাস (Hemanga Biswas) একজন বাঙালি অসমীয়া সঙ্গীতশিল্পী এবং সুরকার। মূলত লোকসঙ্গীতকে কেন্দ্র করে গণসঙ্গীত সৃষ্টির কাজ করে গেছেন। গণসংগীত সৃষ্টির অনন্য কারিগর হিসেবে খ্যাতি অর্জনকারী হেমাঙ্গ বিশ্বাস ১৯১২ সালের ১৪ই ডিসেম্বর সিলেট অঞ্চলের হবিগঞ্জ জেলার চুনারুঘাট উপজেলার মিরাশি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। হবিগঞ্জ হাইস্কুল থেকে পাশ করার পর তিনি শ্রীহট্ট মুরারিচাঁদ কলেজে ভর্তি হন। সেখানে তিনি স্বাধীনতা আন্দোলনে জড়িয়ে পড়েন । তিনি ১৯৩২ খ্রিষ্টাব্দে কমিউনিস্ট পার্টির সংস্পর্শে আসেন। বিপ্লবী যুগের উত্তাল সময়ে তাঁর লেখা গান গানমানুষের চেতনাকে তরঙ্গায়িত করতে সক্ষম হয়েছিলো। নিজ মেধা ও সৃষ্টির কারণেই তিনি গণসঙ্গিতের প্রাণ পুরুষে পরিনত হন।

হবিগঞ্জের মিডল ইংলিশ স্কুলে প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণ করেন। হবিগঞ্জ সরকারী স্কুল থেকে ১৯৩০ সালে মেট্রিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। গণিত বিষয়ে দুটি লেটারসহ সুখ্যাতি লাভ করেন তিনি। উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষাগ্রহনের জন্য সিলেটের মুরারিচাঁদ কলেজে আইএসসি প্রথম বর্ষে বিজ্ঞান শাখায় ভর্তি হন। ১৯৩৫ খ্রিষ্টাব্দে কারাবন্দী থাকাকালে তিনি যক্ষারোগে আক্রান্ত হন। তারপর যাদবপুর হাসপাতালে কিছুকাল চিকিৎসাধীন থাকেন এবং সেই কারণে তিনি মুক্তি পান। ১৯৪৮ খ্রিষ্টাব্দে তেলেঙ্গানা আন্দোলনের সময়ে তিনি গ্রেফতার হন এবং তিন বছর বন্দী থাকেন। ১৯৫৩ সালের এপ্রিল মাসে বোম্বাই তে অনুষ্ঠিত আই পি টি এর সপ্তম সর্বভারতীয় সন্মেলনে হেমা‌ংগ বিশ্বাসের নেতৃত্বে অসমের ৪০ জন প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করেন ।

১৯৪৮ সালে তেলেঙ্গানা আন্দোলনে তাঁর লেখা ‘তোমার কাস্তেটারে দিও জোরে শান..’, ‘কিষাণ ভাই তোর সোনার ধানে বর্গী নামে..’ প্রভৃতি গান আসাম ও বাংলায় ব্যাপক সাড়া ফেলে। ১৯৬১ সাল থেকে ৬৮ সাল পর্যন্ত সময়ে অসংখ্য নাটক, চলচ্চিত্র ও যাত্রায় সংগীত পরিচালনা করেছেন হেমাঙ্গ বিশ্বাস। তন্মধ্যে ‘কল্লে¬াল’, ‘তীর’, ‘তেলেঙ্গানা’, ‘লাল লণ্ঠন’, ‘লেনিন’, ‘পদ্মানদীর মাঝি’, ‘বিদুন’, ‘রাইফেল’, ‘রাহুমুক্ত রাশিয়া’, ‘মানুষের অধিকারে’, ‘কাঙ্গাল হরিশ’, নাটক ও যাত্রায় ‘চাঁদমনসার নৃত্যনাট্য’ ও ‘লালন ফকির’ চলচ্চিত্র উল্লেখযোগ্য। লালন চলচ্চিত্রে হেমাঙ্গ বিশ্বাসের সুরে গান গেয়ে হেমন্ত মুখার্জী রাষ্ট্রীয় পুরস্কারে সম্মানিত হন। ১৯৭১ সালে তিনি গঠন করেন ‘মাস-সিঙ্গার্স’। ১৯৬১ সাল থেকে কলকাতায় স্থায়ীভাবে বসবাস করেন। সেখানেই ১৯৮৭ সালের ২২শে নভেম্বর মৃত্যুবরণ করেন তিনি। তাঁকে প্রণাম জানাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *