Isaac Asimov was an American science fiction writer and professor of Biochemistry at Boston University

Isaac Asimov: কল্পবিজ্ঞান লেখক আইজাক অ্যাসিমভ

কলকাতা

“ফাউন্ডেশন” সিরিজের নাম শুনেছেন কি? কিংবা “রোবট” সিরিজ? সাড়া জাগানো এসব গল্প যার হাত ধরে এসেছে,তার নাম আইজাক অ্যাসিমভ (Isaac Asimov)।

বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীতে যাদের আগ্রহ আছে তারা কেউ “ফাউন্ডেশন” সিরিজের নাম শুনেছেন কি? কিংবা “রোবট” সিরিজ? সাড়া জাগানো এসব গল্প যার হাত ধরে এসেছে,তার নাম আইজাক অ্যাসিমভ (Isaac Asimov)। তিনি ১৯১৯ সালের ২রা জানুয়ারী আরএসএফএসআর-এর স্মলেন্‌স্ক ওব্লাস্ট অঞ্চলের অন্তর্ভুক্ত পেত্রোভিচি রাজ্যে জন্মগ্রহণ করেন। আসিমভের বাবা জুডাহ আসিমভ এবং মা আন্না রাচেল বের্মান আসিমভ। ইহুদি এই পরিবার তৎকালীন রাশিয়ার ক্ষুদ্র কারখানা মালিক শ্রেণীর অন্তর্গত ছিল। তিনি ইদিশ এবং ইংরেজি উভয় ভাষাতেই সমান পারদর্শী ছিলেন এবং মাত্র ৫ বছর বয়সে অনেকটা নিজে নিজেই পড়তে শিখে যান।

Isaac Asimov was an American science fiction writer and professor of Biochemistry at Boston University
Isaac Asimov was an American science fiction writer and professor of Biochemistry at Boston University

ব্রুকলিনে তার পরিবার একটি ক্যান্ডি স্টোরের মালিকানা লাভ করেছিল যেখানে পরিবারের সবাইকে কাজ করতে হত। সেখানেই আসিমভ প্রথম সস্তা এবং জনপ্রিয় সব পত্রপত্রিকার সাথে পরিচিত হন এবং সেগুলো পড়তে শুরু করেন। মাত্র ১১ বছর বয়সে নিজে থেকে গল্প লিখতে শুরু করেছিলেন এবং ১৯ বছর বয়সে সেগুলো বিজ্ঞান কল্পকাহিনী পত্রিকার কাছে বিক্রি করতে শুরু করেন। অনেকে তাকে সাইন্স ফিকশন গল্পের জনকও বলে থাকেন। মূলত, সাইন্স ফিকশন গল্পকে তিনি একটি বিশেষ ধারায় নিয়ে গিয়েছেন। “বিগ থ্রি” এর মধ্যে তিনি একজন অন্যতম সাইন্স ফিকশন লেখক। বাকী দুজন হচ্ছেন আর্থার সি ক্লার্ক ও রবার্ট হেইনলেইন। বিজ্ঞানের ভাষাকে কি করে গল্পের মাঝে জনপ্রিয় করে তোলা যায় তার অন্যতম একটি নিদর্শন হল তার “গ্যালাকটিক এম্পায়ার” সিরিজ।

তিনি মূলত বিজ্ঞান কল্পকাহিনী এবং জনপ্রিয় বিজ্ঞান বিষয়ক রচনায় সিদ্ধহস্ত ছিলেন এবং এক্ষেত্রে তার সাফল্য গগনচুম্বী। যোগ্যতা বিবেচনায় তাকে বিজ্ঞান কল্পকাহিনীর গ্র্যান্ড মাস্টার আখ্যায় ভূষিত করা হয়েছে। তিনি জীবনে ৫০০’র-ও অধিক গ্রন্থ রচনা ও সম্পাদনা করেছেন, লিখেছেন প্রায় ৯,০০০ চিঠি ও পোস্টকার্ড। ডিউই দশমিক পদ্ধতি দ্বারা চিহ্নিত ১০টি প্রধান বিষয়ের ৯টির উপরেই তিনি লিখেছেন। আর দর্শনের চিহ্নিত ১০০টি বিষয়ের মাত্র একটির উল্লেখ তার রচনায় পাওয়া যায়না। ১৯৮৭ সালে সাইন্স ফিকশন রাইটার্স এসোসিয়েশন অব আমেরিকা তাকে গ্রান্ড মাস্টার অব সাইন্স ফিকশন এর সম্মানে ভূষিত করে। আসিমভ ১৯৯২ সালের ৬ই এপ্রিল প্রয়াত হন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *