karnataka-bjp-wins-big-in-by-polls-election-2019

Karnataka BJP: নির্বাচনে বিজেপি এগিয়ে ১২ আসনে

কলকাতা

এখনও পর্যন্ত ১২টি আসনে এগিয়ে রয়েছে বিজেপি (Karnataka BJP) , কংগ্রেস ও জেডিএস এগিয়ে রয়েছে মাত্র ২টি আসনে। ১টিতে এগিয়ে নির্দল প্রার্থী।

কর্নাটকে বিপরীত ঘূর্ণাবর্ত বইলো না। পদ্মফুল ভালোভাবেই ফুটলো কর্নাটকে। কর্নাটকে ১৫ বিধানসভা আসনে উপনির্বাচনের ভোট গণনার শুরু হয়েছে সকালেই। এখনও পর্যন্ত ১২টি আসনে এগিয়ে রয়েছে বিজেপি (Karnataka BJP) , কংগ্রেস ও জেডিএস এগিয়ে রয়েছে মাত্র ২টি আসনে। ১টিতে এগিয়ে নির্দল প্রার্থী। উপনির্বাচনে অন্তত সাতটি আসনে জিততে পারলে তবেই এককভাবে সরকার ধরে রাখা সম্ভব হত বিজেপি’‌র। হার মানলো কংগ্রেস। দুরন্ত ফলের জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও বিজেপি সভাপতি অমিত শাহকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রী বিএস ইয়েদুরাপ্পা। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘যাঁরা জনাদেশের বিরুদ্ধে গিয়েছিলেন, মানুষ তাঁদের শাস্তি দিয়েছে।’

দিনের শুরুতেই ভোটগণনার ট্রেন্ড দেখেই রণে ভঙ্গ দিল কংগ্রেস। হার নিশ্চিত বুঝতে পেরে কংগ্রেস নেতা ডি কে শিবকুমার জানান, “এই ১৫ আসনে ভোটদাতাদের রায় মাথা পেতে নিতে হবে। ওদের মেনে নিয়েছে মানুষ। এই পরাজয় স্বীকার করে নিতে হবে আমাদের। তবে এতে আমাদের হতাশার কিছু রয়েছে বলে মনে করি না।” গত ৫ই ডিসেম্বর কর্নাটকের ১৫ বিধানসভা আসনে উপনির্বাচনের ভোট নেওয়া হয়। বিজেপি’‌র হাতে রয়েছে ১০৫ জন বিধায়ক। ২২৫ আসনের বিধানসভায় ক্ষমতা ধরে রাখতে তাদের চাই আরও ৬ আসন। কংগ্রেস শিবিরে রয়েছে ৬০ বিধায়ক, জেডিএসের ৩৪ এবং অন্যান্য ২।

ইয়েদুরাপ্পা বলছেন, “এই জয়ে আমি খুব খুশি। এবার কোনও বাধা বিপত্তি ছাড়াই আমরা জনমুখী সরকার চালাতে পারব।” যে ১৫টি আসনে নির্বাচন হয় তার মধ্যে ১২টি ছিল কংগ্রেসের দখলে। বাকি তিনটি আসন ছিল জনতা দল সেকুলারের দখলে। এই উপনির্বাচনে কংগ্রেস ও জেডিএস আলাদা করে লড়াই করে। জোট সরকার ভেঙে যাওয়ার পরে দুই দলের মধ্যে সম্পর্কের অবনতি হয়। এটাকেই কাজে লাগাতে সক্ষম হয়েছে গেরুয়া শিবির। এই উপনির্বাচনের পর ২২৪ আসনের কর্ণাটক বিধানসভায় বিজেপির হাতেই রইল ১১৮টি আসন। যা ম্যাজিক ফিগার ১১৩-র চেয়ে অনেকটাই বেশি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *