Lt Governor of Jammu and Kashmir Girish Chandra Murmu Threatened By ISI

Girish Chandra Murmu: রাজ্যপালকে মারতে জঙ্গি

কলকাতা

ISI জম্মু-কাশ্মীরের রাজ্যপাল গিরীশচন্দ্র মুর্মূকে (Girish Chandra Murmu) হত্যা করার জন্য সন্ত্রাসবাদী সংস্থা লস্কর-ই-তৈবার সঙ্গে একাধিক বৈঠক করেছে।

আবার নতুন করে কঠিন হতে শুরু করেছে কাশ্মীরের পরিস্থিতি? সেই ২০১৬ সালে ২৯ বছরের ওই তরুণের মৃত্যুর পরে জঙ্গি দলে নাম লেখানোতে মেতে ওঠে গোটা কাশ্মীর। জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা লোপ ও তিন মাসের টানা নিষেধাজ্ঞা আবার সেই পরিস্থিতিকে ফিরিয়ে আনছে বলে মনে করছেন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দারা। এরইমাঝে জম্মু-কাশ্মীরের সদ্য নিয়োজিত রাজ্যপালকে (Girish Chandra Murmu) প্রাণে মারার ছক কষছে পাকিস্তান। পাক গুপ্তচর সংস্থা আইএসআই জম্মু-কাশ্মীরের রাজ্যপাল গিরীশচন্দ্র মুর্মূকে হত্যা করার জন্য পাকিস্তানের সন্ত্রাসবাদী সংস্থা লস্কর-ই-তৈবার সঙ্গে একাধিক বৈঠক করেছে।

গত তিন মাসে নিরাপত্তাবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে যে ক’জন জঙ্গি নিহত হয়েছে তার আশি শতাংশই হল স্থানীয় যুবক। ভারত-বিরোধিতাই হল যাদের একমাত্র লক্ষ্য ছিল। মূলত দক্ষিণ কাশ্মীরে ফের উধাও হয়ে যেতে শুরু করেছে যুবকেরা। বিশেষ মর্যাদা লোপের পরে উপত্যকা জুড়ে প্রচার শুরু হয়েছে, কাশ্মীরিয়ত ও ইসলাম বিপন্ন। গোয়েন্দারা মনে করছেন , এমন ভাবে প্রচার চালানো হচ্ছে যেন কাশ্মীরিদের অস্তিত্বের সঙ্কট দেখা দিয়েছে। তাই লাগাতার প্রচারে প্রভাবিত হতে শুরু করেছেন স্থানীয়রা। জানা যাচ্ছে, গত ২৯শে অক্টোবর পাক-অধিকৃত কাশ্মীরের কোটলিতে একটি মাদ্রাসায় লস্কর-ই-তৈবা এবং হিজবুল মুজাহিদিনের সঙ্গে বসেন আইএসআই। সেই বৈঠকের মূল বিষয় ছিল রাজ্যপাল মুর্মূকে হত্যা।

তবে কাশ্মীরে সম্প্রতি সংঘটিত ব্লক ডেভেলপমেন্ট কাউন্সিলের নির্বাচনে জয়ী প্রার্থীদেরও হিট লিস্টে রাখা হয়েছে। লস্কর জঙ্গি জিয়া-উল-রেহমান মীরকে এই কাজের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে গোয়েন্দা বিভাগ।ভারতে বেশি সন্ত্রাসবাদী হামলা চালাতে লস্কর-ই-তৈবা এবং হিজবুল মুজাহিদিনকে নির্দেশ দিয়েছে আইএসআই। তাদের কে২ ফর্মুলা, অর্থাত্‍ কাশ্মীর ও খলিস্তান ইস্যুতে জম্মু-কাশ্মীর ও পঞ্জাবে সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপ বাড়াতে চাইছে। বেশ কয়েকটি খলিস্থানপন্থী সংগঠনের সঙ্গে হাত মিলিয়ে কাশ্মীর খলিস্তান রেফারেনডাম ফ্রন্ট। এদিকে এই মুহূর্তে গোটা উপত্যকার জনসংখ্যার ৬০ শতাংশের বয়স ৩০-এর কম। তাদের কোনও স্থায়ী রোজগার নেই। জঙ্গি দলে নাম লেখালে এক দিকে আয়ের পথ তৈরি হয়। বুরহান ওয়ানির মতো জঙ্গিরা এখন কাশ্মীরি যুবকদের খুব আপনার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *