মুম্বইয়ে বহুতল ধসে মৃত ১৪জন

ধ্বংসস্তূপে এখনো আটকে অনেক – মুম্বইয়ে বহুতল ধসে মৃত ১৪জন

কলকাতা

প্রায় ১০০ বছরের ওই আবাসনটি ভেঙে পড়ার দায় কার সে নিয়ে শুরু হয়েছে চাপান-উতোর।আজ বুধবার সকালে আরও তিনটি দেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

মুম্বইয়ের ডোংরিতে কেশরভাই বিল্ডিং ভেঙে পড়ার ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ১৪। তবে আরও বাড়তে পারে বলে আশংকা করা হচ্ছে। এখনও জোর কদমে চলছে উদ্ধারকাজ। প্রায় ১০০ বছরের ওই আবাসনটি ভেঙে পড়ার দায় কার সে নিয়ে শুরু হয়েছে চাপান-উতোর।আজ বুধবার সকালে আরও তিনটি দেহ উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবীশের সঙ্গে দেখা করবেন স্থানীয় বিধায়ক আমিন প্যাটেল।

ওই আবাসনে ১০-১৫টি পরিবার বাস করত। ঘটনার সময় বেশির ভাগ পরিবারের সদস্যরা বাড়িতেই ছিলেন। গতকাল ঠিক সকাল ১১টা ৪০ মিনিট নাগাদ কেশরবাঈ নামের চারতলা বাড়িটির একাংশ আচমকা ভেঙে পড়ে। চার দিকে তখন কংক্রিটের চাঙড়, ধুলো-কাদার আস্তরণ আর তালগোল পাকিয়ে যাওয়া কাঠামোর স্তূপ। যত সময় গড়াচ্ছে ততই বাড়ছে উৎকণ্ঠা আর উদ্বেগ।ধ্বংসস্তূপে কেউ আটকে আছে কি না, তা খতিয়ে দেখতে স্নিফার ডগ নিয়ে তল্লাশি চালাচ্ছে NDRF।

মুম্বইয়ের দমকল বিভাগের প্রধান পিএস রাহাংদালে বলেন, ৬ ও ৪ বছরের দুটি শিশুকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলেও চিকিত্‍‌সকরা তাদের মৃত বলে ঘোষণা করেন। এখনও ওই ঘটনাস্থলে উদ্ধারকাজ চালাচ্ছে শতাধিক কর্মী। দমকলের ৬টি ইঞ্জিন ও দুটি উদ্ধারকারী গাড়ি মজুত আছে।রাস্তা এতটাই সরু যে, ধ্বংসস্তূপ সরাতে যন্ত্র পর্যন্ত আনা যায়নি। অ্যাম্বুল্যান্সকেও ঘটনাস্থল থেকে অন্তত ৫০ মিটার দূরে দাঁড় করাতে হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *