PM Modi Calls for Self Imposed Janata Curfew Across India on 22nd March for 14 Hours

Janata Curfew: ২২-শে মার্চ ঘরে কাটান ১৪ ঘন্টা

কলকাতা

এই মারণ সংক্রমণ মোকাবিলায় আগামী ২২শে মার্চ, রবিবার, সকাল ৭টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত দেশজুড়ে ‘জনতা কার্ফু’ (Janata Curfew) পালনের জন্য দেশবাসীর …

ইউরোপের একাধিক দেশে চলছে লক ডাউন। ফ্রান্স, ইটালি, জার্মানির রাস্তা একেবারে জনহীন। চীনকে ছাপিয়ে গেলো ইটালি। সে দেশে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৩৪০৫। অন্যদিকে চীনে মৃত্যু হয়েছে ৩,২৪৫ জনের। আজ শুক্রবার সকালে পাঁচজনের দেহে মিলল করোনার জীবাণু। সব মিলিয়ে দেশে করোনাতে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ২০০জন। এখনো পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা ৪। এই মারণ সংক্রমণ মোকাবিলায় আগামী ২২শে মার্চ, রবিবার, সকাল ৭টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত দেশজুড়ে ‘জনতা কার্ফু’ (Janata Curfew) পালনের জন্য দেশবাসীর কাছে আবেদন করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

PM Modi Calls for Self Imposed Janata Curfew Across India on 22nd March for 14 Hours
PM Modi Calls for Self Imposed Janata Curfew Across India on 22nd March for 14 Hours

দেশের স্বাস্থ্য মন্ত্রকের কর্তারা জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে। অযথা উদ্বিগ্ন হওয়ার কারণ নেই। কিন্তু মোদী স্পষ্ট বলেছেন, পরিস্থিতি স্বাভাবিক বলে যে-প্রচার চালানো হচ্ছে, বলা হচ্ছে করোনা থেকে কিছু হবে না— এমন ভাবা আদৌ ঠিক নয়। বরং ভীষণ ভাবে সতর্ক থাকা প্রয়োজন। তিনি বলেন, ‘‘করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে দেশের লোকের কাছে আমি কিছু সপ্তাহ চাই। কিছু সময় চাই।’’ প্রধানমন্ত্রী জানান, “চিকিৎসক, স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত অসংখ্য ব্যক্তি, সাফাইকর্মী, সংবাদমাধ্যমের কর্মী—এইরকম জরুরি পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত বহু মানুষ ওই জনতা কার্ফুতে অংশ নিতে পারবেন না। তাঁদের ধন্যবাদ জানাতে বিকেল পাঁচটা থেকে পাঁচটা পাঁচ মিনিট পর্যন্ত বাড়ির বারান্দায় দাঁড়িয়ে ঘণ্টা বাজান, থালা বাজান, হাততালি দিন।”

নির্ভয়া কাণ্ডে ভোর রাতেই চারজনের ফাঁসি হলো – আরও জানতে ক্লিক করুন …

তিনি আরও জানান, ‘‘করোনার কোনও টিকা নেই। করোনাভাইরাসের কবল হওয়া দেশগুলিতে দেখা গিয়েছে, কিছু দিন পরে হঠাৎ করে ওই সংক্রমণের বিস্ফোরণ ঘটেছে। রোগীর সংখ্যা হঠাৎ এক ধাক্কায় বেড়ে গিয়েছে। গোটা মানবজাতিকে মহা সঙ্কটে ফেলে দিয়েছে নভেল করোনাভাইরাস। প্রথম বিশ্বযুদ্ধ, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধেও এত দেশ প্রভাবিত হয়নি যা করোনায় হয়েছে।’’ স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, ভারতে করোনা সংক্রমণ এখন তৃতীয় পর্যায়ে রয়েছে। অর্থমন্ত্রীর নেতৃত্বে কোভিড-১৯ ইকনমিক টাস্ক ফোর্স তৈরি হচ্ছে। তারা প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করবে। রুটিন চেকআপের জন্য হাসপাতালে যাওয়ার প্রয়োজন নেই। যে সমস্ত সার্জারি একান্ত জরুরি নয়, সেগুলির তারিখ পিছিয়ে দিন।

৬ মাসের রেশন মজুতের ঘোষণা কেন্দ্রের – আরও জানতে ক্লিক করুন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *