PM Modi National Address on Article 370 and 35A

PM Modi National Address – আজ রাত ৮-টায় সরাসরি

কলকাতা

সংবাদ সংস্থা এএনআই জানায়, রাত ৮টা তেই জাতির উদ্দেশে ভাষণ (PM Modi National Address) দেবেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রাক্তন বিদেশ মন্ত্রী সুষমা স্বরাজের মর্ত্তুর পর থেকেই পাল্টে গিয়েছে অনেক কিছুই। কাল পার্লামেন্টের অধিবেশনের শেষ দিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ভাষণ (PM Modi National Address) দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রীর মৃত্যুতে অধিবেশনের কাজকর্ম স্তব্ধ হয়ে যাই। তাই আজ জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমত্রী মোদী। আজ বৃহস্পতিবার রাত ৮টায় তাকে দেখা যাবে ভাষণ দিতে। যদিও ভাষণের সময় নিয়ে কিছুটা বিভ্রান্তি ছড়ায় অল ইন্ডিয়া রেডিয়োর ঘোষণায়, কিন্তু পরে তা নিশ্চিত হয়ে যায়।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের অনুমান, ৩৭০ ধারা রদ নিয়েই সরকারি সিদ্ধান্তের ব্যাখ্যা দিতে পারেন প্রধানমন্ত্রী স্বয়ং। এ ছাড়াও বিশেষ মর্যাদা তুলে নেওয়ায় কাশ্মীরিদের কি কি সুবিধা ও অসুবিধা, জম্মু-কাশ্মীর এবং লাদাখকে আলাদা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল তৈরি-সহ সব বিষয় নিয়েই সরকারের অবস্থান কি তা জানাতে পারেন প্রধানমন্ত্রী। ৩৭০ অনুচ্ছেদ রদের পর দেশের বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি, কাশ্মীরের সাম্প্রতিক আইন শৃঙ্খলা, পাকিস্তানের কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করা এবং তার প্রেক্ষিতে ভারতের পদক্ষেপ – সব বিষয়ই উঠে আসতে পারে মোদির ভাষণে।

গতকাল সন্ধ্যায় সুষমা সুয়ারেজের অন্তেষ্টিক্রিয়া মিটে যাওয়ার পর থেকেই জল্পনা ছড়ায় মোদীর ভাষণ নিয়ে। আজ সকাল থেকেই সেই জল্পনা চরমে ওঠে। বৃহস্পতিবার জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন বলে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে বলা হলেও নির্দিষ্ট সময় এবং কোন মাধ্যমে ভাষণ দেবেন তা নিশ্চিত করা যাচ্ছিল না। অবশেষে অল ইন্ডিয়া রেডিয়োর টুইটারে ঘোষণা, বিকেল ৪টেয় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কিন্তু অস্বাভাবিক ভাবে কিছুক্ষণ পরেই সেই টুইট আবার ডিলিটও করে দেওয়া হয়। ফলে বিভ্রান্তি ছড়ায় সাংবাদিক মহলে।

এরপর সংবাদ সংস্থা এএনআই জানায়, রাত ৮টা তেই জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী। টিভিতে সরাসরি সম্প্রচার করা হবে সেই ভাষণ। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ-সহ বিজেপি নেতারাও রাত আটটায় মোদীর ভাষণের কথা জানিয়ে টুইট করেন। ২০১৬ সালের ৮ নভেম্বর যে ভাষণে নোট বাতিলের ঘোষণা করেছিলেন নরেন্দ্র মোদী, সেটাও রাত আটটাতেই হয়েছিল। এবারেও কি অন্য কোনো চমক অপেক্ষা করছে ? সময়ই উত্তর দেবে |

জানা যায়, এই মাসের ৫ তারিখে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে ক্যাবিনেট বৈঠক হয়, সেখানেই ৩৭০ ধারা রদ নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তারপর ওই দিনই রাষ্ট্রপতির সই গ্রহণ করা হয়, রাজ্যসভায় পাশ হয় এই সংক্রান্ত দুটি বিলই। তার পরের দিন লোকসভাতে অনেক বিতর্কের পর পাশ হয় এই বিতর্কিত বিল। এর সঙ্গে সঙ্গেই জম্মু-কাশ্মীর পুনর্গঠন বিলও পাশ করিয়েছে মোদী সরকার। কিন্তু গোটা এই ঘটনায় প্রধানমন্ত্রীর কোনও বক্তব্য পাওয়া যায়নি। আমরা যা দেখেছি বা শুনেছি সবই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের মুখ থেকে | বাদল অধিবেশনের শেষ দিনে সংসদে তাঁর ভাষণের সম্ভাবনা তৈরি হলেও সুষমা স্বরাজের অকাল প্রয়াণে তা সম্ভব হয়ে ওঠে নি।

১৫ই অগাস্ট, স্বাধীনতা দিবসের মহার্ঘ অনুষ্ঠানে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তার সপ্তাহখানেক আগে আলাদা করে প্রধানমন্ত্রীর এই ভাষণের নির্ঘণ্টে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের অধিকাংশেরই মত, ৩৭০ অনুচ্ছেদ প্রত্যাহারই হতে চলেছে আজকের ভাষণের মূল বিষয়বস্তু। আর এর সঙ্গে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে তিনি কোনো গুরুত্বপূর্ণ বার্তাও পেশ করতে পারেন বলে খবর |

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *