Pt Ravi Shankar Biography in Bengali

Ravi Shankar: পন্ডিত রবিশংকরের প্রয়াণ দিবস

কলকাতা

ভারতীয় শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের মাইহার ঘরানার স্রষ্টা আচার্য আলাউদ্দীন খান সাহেবের শিষ্য রবি শঙ্কর (Ravi Shankar) ভারতীয় শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের …

পণ্ডিত রবিশঙ্কর একজন ভারতীয় বাঙালি সঙ্গীতজ্ঞ, যিনি সেতারবাদনে কিংবদন্তিতুল্য শ্রেষ্ঠত্বের জন্য বিশ্বব্যাপী সুপরিচিত। ভারতীয় শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের মাইহার ঘরানার স্রষ্টা আচার্য আলাউদ্দীন খান সাহেবের শিষ্য রবি শঙ্কর (Ravi Shankar) ভারতীয় শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের ঐতিহ্য এবং ভারতীয় সঙ্গীতকে ১৯৬০-এর দশকে পাশ্চাত্য বিশ্বের কাছে প্রথম তুলে ধরেন। আজ তাঁর প্রয়াণ দিবস। ২০১২ সালের ১১ই ডিসেম্বর ৯২ বছর বয়সে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যু হয় তার। জর্জ হ্যারিসন বলেছিলেন, ‘পন্ডিত রবিশংকর হলেন বিশ্ব সঙ্গীতের দেব-পিতা’। সেই বিশ্ব সঙ্গীতের সম্রাট রবি শংকরের ৬ষ্ঠ প্রয়াণ দিবস আজ মঙ্গলবার। ১৯২০ সালের ৭ই এপ্রিল ভারতের উত্তর প্রদেশের বেনারসে জন্মগ্রহণ করেন সেতারের এই জাদুকর শিল্পী। তার পূর্ণ নাম রবীন্দ্র শঙ্কর চৌধুরী আর ঘরোয়া নাম ‘রবু’।

পৈত্রিক বাড়ি বাংলাদেশের নড়াইল জেলার কালিয়া উপজেলায়। রবি শংকরের পুরো ছেলেবেলাই বাবার অবর্তমানে কেটেছে। একরকম দারিদ্রের মধ্যেই রবি শংকরের মা হেমাঙ্গিনী তাকে বড় করেন। বড় ভাই উদয় শংকর ছিলেন বিখ্যাত ভারতীয় শাস্ত্রীয় নৃত্যশিল্পী। রবি শংকর ১৯৩০-এ মায়ের সাথে প্যারিসে বড় ভাইয়ের কাছে যান এবং সেখানেই আট বছর স্কুলে শিক্ষা গ্রহণ করেন। বার বছর বয়স থেকেই রবি শংকর বড় ভাইয়ের নাচের দলের একক নৃত্যশিল্পী ও সেতার বাদক। সঙ্গীত জীবনের পরিব্যাপ্তি ছিল ছয় দশক জুড়ে। দীর্ঘ আন্তর্জাতিক সঙ্গীত জীবনের জন্য গিনেস রেকর্ডে নাম লিখিয়েছেন রবি শংকর। আচার্য আলাউদ্দীন খান সাহেবের মেয়ে অন্নপূর্ণা দেবীকে বিয়ে করেন।

পরবর্তীতে আমেরিকান কনসার্ট উদ্যোক্তা স্যু জোন্স এর সাথে সম্পৃক্ত হয়ে পড়েন। এই সম্পর্ক একটি কন্যা সন্তানের জন্ম দিয়েছে। নোরা জোন্স – রবি শঙ্করের এই মেয়ে একজন প্রথিতযশা জ্যাজ, পপ, আধ্যাত্মিক এবং পাশ্চাত্য লোক সঙ্গীতের শিল্পী ও সুরকার। পরবর্তীতে রবিশঙ্কর তার গুণগ্রাহী ও অনুরক্তা সুকন্যা কৈতানকে বিয়ে করেন। এই বিয়েতে তার দ্বিতীয় কন্যা অনুষ্কা শংকরের জন্ম হয়। ১৯৪৯ সালে রবিশঙ্কর দিল্লীতে অল ইন্ডিয়া রেডিওর সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে যোগ দেন। একই সময়ে তিনি প্রতিষ্ঠা করেন বৈদ্য বৃন্দ চেম্বার অর্কেষ্ট্রা । ১৯৫০ হতে ১৯৫৫ সাল পর্যন্ত রবিশঙ্কর অত্যন্ত নিবিড়ভাবে সঙ্গীত সৃষ্টিতে ব্যাপৃত ছিলেন। এ সময়ে তার উল্লেখযোগ্য সৃষ্টি হলো সত্যজিৎ রায়ের অপু ত্রয়ী (পথের পাঁচালী, অপরাজিত ও অপুর সংসার) চলচ্চিত্রের সঙ্গীত পরিচালনা।১৯৬২ সালে ভারতীয় শিল্পের সর্বোচ্চ সম্মাননা পদক ‘রাষ্ট্রপতি পদক’ থেকে শুরু করে ১৯৮১ সালে পদ্মভূষণসহ অনেক পদক পেয়েছেন সঙ্গীত কিংবদন্তী রবি শংকর। তাঁকে প্রণাম জানাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *