SMH Mirza in Narada Sting Operation Case

SMH Mirza: মির্জাকে ১৫ই অক্টোবর পর্যন্ত জেল হেফাজত

কলকাতা

গতি হয়তো একটু কমতে পারে। ধৃত আইপিএস মির্জাকে (SMH Mirza) নিজেদের হেফাজতে না চেয়ে জেল হেফাজতে পাঠানোর পক্ষেই সওয়াল সিবিআইয়ের৷

নারদকাণ্ডে গতি হয়তো একটু কমতে পারে। ধৃত আইপিএস মির্জাকে (SMH Mirza) নিজেদের হেফাজতে না চেয়ে জেল হেফাজতে পাঠানোর পক্ষেই সওয়াল সিবিআইয়ের৷ ‘রাজনৈতিক প্রভাবশালী’ বলে উল্লেখ করে সিবিআইয়ের তরফে মির্জাকে জেল হেফাজত চাওয়া হলেও বিরোধিতা করেন অভুক্ত পক্ষের আইনজীবীরা৷ জামিনের আর্জিও জানানো হয় মির্জার আইনজীবীদের তরফে৷ উভয় পক্ষের সওয়াল-জবাব শোনার পর অবশেষে জেল হেফাজতে নারদকাণ্ডে ধৃত আইপিএস মির্জা৷ যদিও খারিজ হয়েছে জামিনের আবেদন। নারদকাণ্ডে ধৃত আইপিএস অফিসার সৈয়দ মহম্মদ হুসেন মির্জাকে ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দিল সিবিআই-এর বিশেষ আদালত। পরবর্তী শুনানি হবে ১৫ই অক্টোবর।

তার কাছ থেকে ইতিমধ্যেই গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গিয়েছে বলে জানিয়েছেন সিবিআই-এর এক আধিকারিক। তাঁকে হেফাজতে নিয়ে পরবর্তী জেরায় আরও ধোঁয়াশা স্পষ্ট হবে বলে ধারণা। গোয়েন্দা সংস্থার হাতে বৃহস্পতিবার গ্রেফতার হয়েছেন রাজ্যের পুলিশ কর্তা এসএমএইচ মির্জা। সে দিন বিকেলেই তাঁকে নগর দায়রা আদালতে হাজির করানো হয়। সিবিআইয়ের ওই বিশেষ আদালতে তদন্তকারী সংস্থা মির্জাকে পাঁচ দিন নিজেদের হেফাজতে রাখার আবেদন জানিয়েছে। সেই আবেদন মঞ্জুর করে বিচারক ওই পুলিশ কর্তাকে ৩০শে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সিবিআই হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছিলেন।

মির্জার জেল হেফাজতের নির্দেশ ঘিরে ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে রাজনৈতিক চর্চা৷ অনেকেই বলতে শুরু করেছেন, মির্জাকে জেল হেফাজত হওয়ায় আপাতত জেরা পর্বে কিছু হলেও ছেদ পড়তে পারে৷ সে ক্ষেত্রে নারদ তদন্তের গতি কিছুটা হলেও কমতে পারে বলেও আশঙ্কা কোনও কোনও মহলের৷ আইপিএস মির্জাকে জেরা করে নারদকাণ্ডে মুকুল রায়ের ভূমিকা নিয়ে শুরু হয়েছিল সিবিআই তৎপরতা৷ ১ কোটি ৬০ লক্ষ টাকার সন্ধানও শুরু করেছিল সিবিআই৷ কিন্তু, মির্জার জেল হেফাহজ হওয়ায় কিছুটা হলেও সেই তদন্তে ভাটা পড়তে পারে বলে মনে করছেন অনেকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *