Supreme Court of India Refuses to take Jamia Case

Jamia Case: জামিয়া কাণ্ডের শুনানি সুপ্রিমকোর্টে নয়

কলকাতা

জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভরত ছাত্রদের উপর পুলিশি অভিযান (Jamia Case) এখন দেশের প্রধান আলোচনার বিষয়।

জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভরত ছাত্রদের উপর পুলিশি অভিযান (Jamia Case) এখন দেশের প্রধান আলোচনার বিষয়। তবে এই বিষয়ে বিচারবিভাগীয় তদন্তের আর্জি মানতে রাজি হল না সুপ্রিম কোর্ট। প্রধান বিচারপতি এস এ বোবদের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চে এ দিন এই মামলার শুনানি ছিল। বেঞ্চ তখন বলে, “ছাত্রদের উপর পুলিশি অভিযানের বিষয়টি সংশ্লিষ্ট হাইকোর্টে জানালেই ভাল হয়। নিশ্চিত যে, হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতিরা এর যথাযথ উত্তর দেবেন।” জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনা এখনও দেশজুড়ে চর্চা চলছে। তার মধ্যে মঙ্গলবার ১০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে দিল্লি পুলিশ। ছাত্রছাত্রী–পুলিশ সংঘর্ষে তারা যুক্ত ছিল বলে পুলিশের দাবি। কিন্তু এই ১০ জন ছাত্রছাত্রীও নয়, আবার তাদের কোনও অতীত অপরাধের রেকর্ডও নেই!‌

রাজনৈতিক টানাপোড়েন অব্যাহত। পড়ুয়াদের উপর পুলিশি অভিযান নিয়ে সোমবার শীর্ষ আদালতে আবেদন করেছিলেন আইনজীবী ইন্দিরা জয়সিং এবং কলিন গনসালভেস দেশের শীর্ষ আদালত জানিয়েছে, তারা এ ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করবে না। পিটিশনারদের আগে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হতে বলেছেন মহামান্য বিচারপতিরা। তাঁদের মতে, সত্য খুঁজে বের করতে কমিটি গঠন করতে পারে হাইকোর্ট। আজ মামলাটি উঠলে প্রধান বিচারপতি জানান, “এটা আইন-শৃঙ্খলার সমস্যা। বাসগুলোই বা কী ভাবে পুড়ল? আপনারা কেন হাইকোর্টে আবেদন জানাচ্ছেন না?”

দিল্লির দক্ষিণ পূর্বের পুলিশ কমিশনার চিন্ময় বিসওয়াল জানান, দু’‌হাজার মানুষের আন্দোলন রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় বাস জ্বালিয়ে দিয়ে। এমনকী পাথর ছোঁড়াও হয়েছে পুলিশকে লক্ষ্য করে। তাদের খুঁজে বের করা হয়েছে। কিন্তু এই কাণ্ডে ১৫ জনের নামে এফআইআর হয়েছিল। দেশের নানা প্রান্তের এই সব ঘটনা প্রসঙ্গে প্রধান বিচারপতি বলেন, “আলাদা আলাদা রাজ্যে এক একটি ঘটনা ঘটছে। বিভিন্ন প্রেক্ষিতে আলাদা আলাদা ঘটনা ঘটছে। কী ভাবে এগুলোকে এক সঙ্গে মেলানো সম্ভব, যেখানে ঘটনাগুলোই আলাদা?” তবে সবার আগে পরিস্থিতি শান্ত করার উপর জোর দিয়েছেন বিচারপতি বোবদে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *