TMC MP Satabdi Roy Returns Rupees 31 Lakh of Saradha to ED

Satabdi Roy to ED: ইডির কাছে সারদার টাকা ফেরত দিলেন

কলকাতা

এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের কাছে ৩০ লক্ষ ৬৪ হাজার সারদার টাকা ফেরত দিলেন বীরভূমের তৃণমূল সাংসদ (Satabdi Roy to ED) ৷

পথটি তৈরী করা ছিল। মিঠুন চক্রবর্তীর পর সারদা কাণ্ডে টাকা ফেরত দিলেন তৃণমূল সাংসদ শতাব্দী রায় (Satabdi Roy to ED)। ড্রাফটের মাধ্যমে ইডির কাছে টাকা ফেরত দিয়েছেন অভিনেত্রী সাংসদ। আজ শতাব্দী রায় বলেন, ‘‘বারবার ডেকে হেনস্থা করা হচ্ছিল, তাই শান্তির জন্য টাকা ফেরতের সিদ্ধান্ত নিলাম। পুরো টাকাটাই ফেরত দিলাম’’। ক’দিন আগেই সারদাকাণ্ডে শতাব্দীকে সিজিও দফতরে জিজ্ঞাসাবাদ করে ইডি।

এর আগে শতাব্দী টাকা ফেরতের সিদ্ধান্ত মনস্থির করেছিলেন।শতাব্দী রায় বলেন, ‘‘আজ টাকা ফেরত দিলাম ইডিকে। রোজ রোজ যেভাবে ডাকছে, এই হেনস্থার শিকার হতে ভাল লাগছে না। সম্মান নষ্ট হচ্ছে। আমরা শিল্পী মানুষ। রাজনীতির মানুষ হিসেবে তো কাজ করানো হয়নি আমাদের। শিল্পী হিসেবে কাজ করানো হয়েছে। শান্তি দরকার, তাই টাকা ফেরতের সিদ্ধান্ত নিলাম’’।

এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের কাছে ৩০ লক্ষ ৬৪ হাজার টাকা ফেরত দিলেন বীরভূমের তৃণমূল সাংসদ৷ টাকা ফেরত দেওয়ার পর শতাব্দী রায় অভিযোগ করেন, বারবার সময় নষ্ট হচ্ছিল৷ তাই জীবনে শান্তি আনতেই টাকা ফেরতের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।পুরো টাকা ইডির কাছে পৌঁছে দিয়েছেন৷ তিনি জানান, রাজনীতি জগতের মানুষ হিসেবে তিনি সারদা সংস্থার ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর হননি৷ তাঁর শিল্পীসত্ত্বার জন্যই এ কাজ করেছেন৷ শিল্প গুণে সারদা সংস্থার মুখ হয়েছেন তিনি৷ এর আগে গত ৮ই আগস্ট এনফোর্সমেন্ট ডিপার্টমেন্টের দপ্তরে হাজিরা দেন বীরভূমের তৃণমূল সাংসদ শতাব্দী রায়। তার আগেই অবশ্য এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটকে চিঠি দিয়ে টাকা ফেরতের কথা ইচ্ছাপ্রকাশ করেছিলেন। সেই বিষয়ে চূড়ান্ত কথা বলতেই ৮ই আগস্ট ইডির দপ্তরে যান ও আজ বুধবার টাকা ফেরত দিলেন তিনি৷

সারদার ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর হিসেবে ৪২ লক্ষ টাকা নেওয়ার কথা ছিল তাঁর। কিন্তু টিডিএস কেটে তিনি পেয়েছিলেন ২৯ লক্ষ টাকা। সেই ২৯ লক্ষ টাকাই ইডির হাতে শতাব্দী তুলে দিতে চান। ইডি দফতরে হাজিরা দিয়ে তৃণমূল সাংসদ জানিয়েছিলেন, “ওই টাকা ফেরত দেওয়া নিয়ে কোনও কথা হয়নি।” যদিও শেষমেশ আজ টাকা ফেরত দিলেন শতাব্দী। গত ১২ই জুলাই তাঁকে হাজিরা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হলেও, তা এড়িয়ে যান তিনি। কিন্তু এবার দলে এবং জনমানষে নিজের অবস্থানকে আরও স্বচ্ছ করতেই টাকা ফেরত দিলেন শতাব্দী রায়৷ এমনই মনে করছে রাজনৈতিক মহলের একাংশ। সামনের নির্বাচনের কথা মাথায় রেখে, দল প্রার্থীদের আর্থিক স্বচ্ছতার দিককে প্রধান করতে চাইছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *