West Bengal Govt Sets up New Quarantine in Barasat to Tackle Coronavirus

Quarantine in Barasat: কোয়ারেন্টাইন চালু বারাসতে

কলকাতা

সচেতনতায় এগিয়ে এসেছে দেশ ও রাজ্য। বারাসত হাসপাতালে এর জন্য বিশেষ পরিকাঠামো (Quarantine in Barasat) তৈরি করা হয়েছে। এখানে যুদ্ধকালীন …

গোটা বিশ্ব করোনাতে বিধ্বস্ত। মৃতের সংখ্যা পাল্লা দিয়ে বাড়ছে। একের পর এক দেশে সংক্রামণের বিভীষিকায় তীব্র হচ্ছে। সচেতনতায় এগিয়ে এসেছে দেশ ও রাজ্য। বারাসত হাসপাতালে এর জন্য বিশেষ পরিকাঠামো (Quarantine in Barasat) তৈরি করা হয়েছে। এখানে যুদ্ধকালীন তৎপরতায় ৭০ জনের থাকার ব্যবস্থা হয়েছে বারাসত জেলা হাসপাতালে। নিউ টাউন-রাজারহাটের মতো কলকাতার লাগোয়া এলাকায় আরও জায়গা খোঁজা হচ্ছে। স্বাস্থ্য অধিকর্তা অজয় চক্রবর্তী জানান, অন্তত দু’হাজার জনকে কোয়ারেন্টাইনে রাখার মতো পরিকাঠামো গড়ে তোলা হচ্ছে।

West Bengal Govt Sets up New Quarantine in Barasat to Tackle Coronavirus
West Bengal Govt Sets up New Quarantine in Barasat to Tackle Coronavirus

জানা যাচ্ছে বায়ুবাহিত রোগের মোকাবিলায় টুরিস্ট ভিসা বাতিলের পরেও বিদেশ থেকে যাঁরা আসছেন, ভারতীয় হলেও বাধ্যতামূলক ভাবে তাঁদের ১৪ দিন রাজ্যের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। আসলে এই বিপদের করোনার লক্ষণ না-থাকলেও চীন, কোরিয়া, ফ্রান্স, জার্মানি, স্পেন, ইটালি ও ইরান থেকে আসা ষাটোর্ধ্ব এবং উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবিটিক, হাঁপানিতে আক্রান্তদের দু’সপ্তাহ কোয়ারেন্টাইনে রাখতে হবে। বিহার, ঝাড়খণ্ড-সহ বিভিন্ন রাজ্যের সঙ্গে বাংলার ৭৮টি সীমানা-বিন্দুতে জ্বর নিয়ে কেউ এলে তাঁকে পর্যবেক্ষণে রাখা হবে বলে জানান স্বাস্থ্য অধিকর্তা।

ঘোজাডাঙা স্থলবন্দরের দায়িত্ব নিজেদের হাতে নিল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক – আরও জানতে ক্লিক করুন …

এদিকে তিন জন উগসর্গ নিয়ে এ দিন ভর্তি হন আইডি-তে। এর মধ্যে একজন বিদেশিও আছেন। এ দিকে, পড়শি রাজ্যগুলিতে স্কুল বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত সংশ্লিষ্ট সরকার নিলেও এ রাজ্যে এখনই অনুরূপ সিদ্ধান্ত নেয়নি স্বাস্থ্যভবন। বিদেশে সফর করে দেশে ফিরেছেন অন্ধ্র প্রদেশের ৬৬৬জন। তাঁরা সকলেই করোনা আক্রান্ত দেশ থেকে ফিরেছেন বলে জানা গিয়েছে। সরকারি স্বাস্থ্য মন্ত্রক থেকে জানানো হয়েছে, তাঁদের মধ্যে ১০২ জন এখনও নিখোঁজ। পশ্চিমবঙ্গ এই বিপদে যাতে না পরে সেদিকে সঠিক নজর দেওয়া হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *