১৫ জন জীবন্ত দগ্ধ দিল্লির জ্বলন্ত হোটেলে

১৫ জন জীবন্ত দগ্ধ দিল্লির জ্বলন্ত হোটেলে

ভারতবর্ষ রাজ্যের খবর

আদুরে উপভোগ্য শীতের ভোর বেলাকে অচেনা করে তুললো একটা আগুনের বিভিষিকা|

পড়ন্ত শীতের শেষ রাত| স্বাভাবিক নিয়মে রাজধানী ঘুমিয়ে যাচ্ছে গরমের ঘেরাটোপে| আদুরে উপভোগ্য শীতের ভোর বেলাকে অচেনা করে তুললো একটা আগুনের বিভিষিকা| নিরাপত্তার বাতাবরণকে একঝটকায় পুড়িয়ে দিয়ে রাজধানীর এক অভিজাত হোটেলে প্রমান হারালেন ১৫ জন মানুষ| রাত কেটে তখন ভোর হয় নি – ভোর তখন ৪টে। দিল্লির আরপিট প্যালেসের অতিথিরা সকলেই ঘুমের দেশে। নীরবে আগুন যে তাঁদের খুব কাছে চলে এসেছে, সেটা যখন বুঝতে পারলেন, ততক্ষণে চারদিক দিয়ে ঘিরে ফেলেছে আগুনের লেলিহান শিখা। মুহূর্তের মধ্যে আগুনে ঝলসে মৃত্যু হয়েছে অন্তত ১৫ জনের, তাঁদের মধ্যে এক শিশুও আছে।

আজ, মঙ্গলবার ভোরে দিল্লির অভিজাত এলাকা করোল বাগে ঘটে এই দূঘটনা| রাজধানীর দমকলের কমবেশি ২০টি ইঞ্জিন উদ্ধারকার্য চালাচ্ছে। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। গুরুতর জখম অন্তত ১২ জন। দিল্লির ওই পাঁচতলা অভিজাত হোটেলে ৪০টি ঘর রয়েছে বলে জানা গিয়েছে। দুর্ঘটনার সময় ৬০ জন আবাসিক ছিলেন। পাঁচতলাতে আগুনটা প্রথমে লাগে। অনিয়মের প্রচুর দাহ্য পদার্থ হোটেলে মজুত থাকায় এবং হোটেলের করিডর, ঘরের মধ্যে কাঠের প্যানেল লাগানো থাকায় পাঁচতলা থেকে খুব দ্রুত আগুন সর্বত্র ছড়িয়ে যায়।

জানা গেছে, হোটেলের করিডরে আগুন ছড়িয়ে পড়ায় হোটেলের মানুষজন কেউই ঘর থেকে করিডরে বের হতে পারেননি। ভয়ে প্রাণ বাঁচতে দু’জন জানলার কাচ ভেঙে দিয়ে নিচে লাফ দিয়েছেন। প্রাণে বাঁচলেও হাসপাতালে তাঁদের অবস্থা আশঙ্কাজনক। আগুন লাগার পর সব দমকল পৌঁছনোর আগে অনেকটাই ছড়িয়ে পড়ে আগুন। পাঁচতলা থেকে আগুন ক্রমশ দোতলায় চলে আসে। ফলে আগুনের ভিতরে ঢুকে উদ্ধার করতে খুব সমস্যায় পড়তে হয় দমকলকর্মীদের।

দমকলের ২০টি ইঞ্জিন প্রায় তিন ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। আশা করা যাচ্ছে ,পাঁচতলায় শর্ট সার্কিট থেকে আগুন লেগেছিল।
এখন আগুন নিয়ন্ত্রণে| নিহত পরিবারের দিকে এগিয়ে এসেছে সরকারি মহল| হাসপাতালে ভর্তি আহতদের জরুরি ভিত্তিতে চিকিৎসার পরিষেবা চলছে| আশা করবো, মৃতের সংখ্যা আর যেন বা বাড়ে| আরো একটু বেশি সতর্ক ও সচেতন হোক হোটেলের কর্তৃপক্ষ, যাতে অর্থ দিয়ে, কাউকে জীবন্ত দগ্ধ না হতে হয়| মৃতদের আত্মার শান্তি কামনা করি|

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *