Bharati Ghosh BJP Candidate From Jangalmahal

আবার চেনা জঙ্গলমহলে বিজেপির ভারতী ঘোষ – Bharati Ghosh BJP Candidate From Jangalmahal

রাজ্যের খবর

দীর্ঘ এক বছরের বেশি সময় পর ফের সবুজ বাংলায় গেরুয়া পা রাখলেন ভারতী ঘোষ।

একাধিক রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক ঝড় বয়ে গিয়েছে তার উপর দিয়ে| পদোন্নতির জন্য একের পর এক ঘর বদলেছেন সাবলীল ভাবে| আলো-আঁধারির সব কক্ষপথেই তার অবাধ বিচরণ| রাজনীতির হিমঘর থেকে নাটকীয় ভাবে সরে এসে,সংশোধনাগারের বন্দি হওয়া থেকে বেঁচে,আবার প্রবেশ করেছেন অন্য রাজনীতির বৃত্তে| যিনি আর কেউ নন, ভারতী ঘোষ|দীর্ঘ এক বছরের বেশি সময় পর ফের সবুজ বাংলায় গেরুয়া পা রাখলেন ভারতী ঘোষ।

জটিল আবহাওয়ায় পশ্চিম মেদিনীপুরের পুলিস সুপারের পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার পর থেকেই বাংলার বাইরে ছিলেন তিনি। রং বদলের অনেক নাটকীয়তা শেষে, আজ বৃহস্পতিবার তিনি সোজা চলে আসেন তার চেনা জঙ্গলমহলে। কিছুদিন আগেই নয়াদিল্লিতে বিজেপির সদর দফতরে গিয়ে গেরুয়া শিবিরে নাম লিখিয়েছিলেন বিখ্যাত প্রাক্তন এই আইপিএস অফিসার। তাঁর বিরুদ্ধে প্রশাসনিক মহলেএকাধিক অভিযোগ রয়েছে। একাধিক বিষয়ে সিআইডি তদন্তও চলছে তার বিরুদ্ধে। কিন্তু তাঁর গ্রেফতারির উপর স্থগিতাদেশ দিয়েছে দেশের শীর্ষ আদালত সুপ্রিম কোর্ট। এবার ঝাড়গ্রামে উপস্থিত হলেন ভারতী ঘোষ।

বৃহস্পতিবার “মেরা বুথ সবসে মজবুত” নামে বিজেপির এক নতুন কর্মসূচিতে নয়াদিল্লি থেকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সরাসরি কথা বললেন দেশের প্রায় এক কোটি বিজেপি কর্মীর সঙ্গে। পশ্চিমবাংলায় তিনি কথা বলেন ঝাড়গ্রামের একাধিক কর্মীদের সঙ্গে। আর সেই গুরুত্বপূর্ণ কর্মসূচিতেই যোগ দিতে ভারতী ঘোষ ঝাড়গ্রামে আসেন। এই রাজ্যে দলের পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয় আছেন তার সাথে। কিন্তু এই ভারতী ঘোষ যখন পুলিস সুপার হিসেবে জঙ্গলমহলের গুরু-দায়িত্বে ছিলেন, তখন তাঁর বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলেছিলেনএই রাজ্য বিজেপির নেতারা। তাই এদিন দলের কর্মীদের সঙ্গে বিজেপি নেত্রী ভারতী ঘোষের প্রথম আলাপের দিকে তাকিয়ে আছে রাজনৈতিক মহল।

সেই জঙ্গলমহলের মা এখন তার কাছে অনেকটাই সৎমা| সব অতীত ভুলে, আইপিএস অফিসার তথা পশ্চিম মেদিনীপুরের প্রাক্তন পুলিশ সুপার ভারতী ঘোষ এখন বিজেপি-র ভরসার আধার| জানা যাচ্ছে, ভারতী ঘোষ জঙ্গল মহলের যে কোন একটি নামি আসন থেকে বিজেপির প্রার্থী হতে চলেছেন। সম্প্রতি গেরুয়া শিবিরে যোগদানের পর ভারতী নিজেই জানিয়েছেন তিনি বিজেপির সকল দায়িত্ব হাসিমুখে পালন করবেন। জঙ্গলমহল থেকে তৃণমূল তথা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অধ্যায়কে শেষ করতে চেষ্টা করছেন তিনি| এই জঙ্গল মহল তিনি হাতের তালুর মতই চেনেন বলেই, প্রার্থী হতে কোনো সমস্যা নেই|

তিনি জানিয়েছেন, তার লড়াই আসলে তৃণমূলের বিরুদ্ধে নয়, বরং মমতা বন্দোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে। নিজের জেতার ব্যাপারে নিজে নিশ্চিত। সকল জঙ্গলমহলের মানুষকে এখনও তিনি ভালোবাসেন। তাই তাদের পাশে থেকেই, তাদের জন্য ভারতী দেবী কাজ করতে চান । তাকে পুলিশ সুপারের পদ থেকে সরিয়ে দিলেও আগামীতে তিনি সাংসদ হিসাবে তাঁদের পাশে দাঁড়াতে চান| এখন আগামীর নির্বাচন বলবে,ভারতী ঘোষের ভবিষৎ কোন পথে যেতে চলেছে|

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *