Empty MLA fund in West Bengal from April month

রাজ্যে এপ্রিল থেকে বিধায়ক তহবিলের টাকা নেই

পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের খবর

চলতি আর্থিক বছরে এখনও পর্যন্ত দেওয়া হয়নি বিধায়ক তহবিলের (MLA fund) অর্থ। যদিও এই অর্থ জোগান বন্ধের ব্যাপারে স্পষ্ট লিখিত নির্দেশিকা জারি করা …

নিজস্ব সংবাদদাতা: এই মুহূর্তে দেশের অর্থিনীতি একটা হলেও বেসামাল। শিল্প ও পর্যটনের ক্ষেত্রগুলি সেভাবে চালু হতে পারে নি। একই ভাবে তার রেশ এসে পড়েছে রাজ্যে। ভাইরাসের সাথে লড়ছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। আর এই পরিস্থিতিতে এলাকা উন্নয়ন তহবিলের টাকা পাচ্ছেন না রাজ্যের বিধায়করা। জানা যাচ্ছে, চলতি আর্থিক বছরে এখনও পর্যন্ত দেওয়া হয়নি বিধায়ক তহবিলের (MLA fund) অর্থ। যদিও এই অর্থ জোগান বন্ধের ব্যাপারে স্পষ্ট লিখিত নির্দেশিকা জারি করা হয় নি। কিন্তু মৌখিকভাবে সকল বিধায়কদের অর্থ খরচ না করতে বলা হয়েছে।

Empty MLA fund in West Bengal from April month
Empty MLA fund in West Bengal from April month

বর্তমান পরিস্থিতিতে খরচের ব্যাপারে একটু সচেতন থাকতেই হবে। চিকিৎসা পরিষেবার পাল্লা দিয়ে খরচ বাড়ছে। রাজ‌্য প্রশাসন সূত্রে জানা যাচ্ছে, চলতি বছরে বিধায়ক তহবিলে পুরো টাকা বরাদ্দ করা হবে না। সাংসদ তহবিলের টাকা খরচের ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী, দু’বছর স্থগিত রাখার কথা জানিয়ে দিয়েছিলেন। যদিও এই কথা এখনও স্পষ্ট ভাবে জানায়নি নবান্ন। আসলে দেখা যাচ্ছে, ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই এখন প্রধান বিষয়।

[ আরো পড়ুন ]  কলকাতায় ছয় লেনের উড়ালপুল – বাইপাসে !

করোনা মোকাবিলায় ব্যাপক খরচ। সেই কারণেই রাজ্যের সাধারণ উন্নয়নমূলক কাজ করা সম্ভব নয়। তবে আগামীতে সার্বিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক অবস্থা ফিরলে, বিধায়ক তহবিলের টাকায় উন্নয়নমূলক কাজ শুরু করা যেতে পারে। প্রত্যেক অর্থবর্ষে এপ্রিল থেকে মার্চ পর্যন্ত রাজ্যের বিধায়কদের বিধানসভা এলাকার উন্নয়ন তহবিলে ৬০ লক্ষ টাকা করে দেওয়া হয়। মূলত গ্রামের বিধায়কদের এই টাকা খুব প্রয়োজনে লাগে। বহু সদস্য বিধানসভায় প্রতি অধিবেশনে তহবিলের পরিমাণ বাড়ানোর দাবি জানান। আশা করা যায়, সাময়িক সমস্যা কেটে যাবে। বিধায়করা আবার রাজ্যের উন্নয়নের কাজ করতে পারবেন।

[ আরো পড়ুন ]  কালীপুজোয় চালু দক্ষিণেশ্বরে মেট্রো – জুড়ছে দুই তীর্থক্ষেত্র

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *