Loose Sweets Also Orderd to Display Manufacturing Date

Loose Sweets: খোলা মিষ্টিতেও বাধ্যতামূলক উৎপাদনের তারিখ

ব্যবসা

সকল দোকানের খোলা মিষ্টিতেও (Loose Sweets) এবার থেকে থাকতে হবে উৎপাদনের তারিখ। এরসাথে ওই মিষ্টি কতদিন ঠিক থাকবে বা খাওয়া যাবে তাও উল্লেখ …

ছোট কিংবা বড়ো মিষ্টির দোকানে প্রতিদিন অনেক প্রকারের মিষ্টি তৈরী করা হয়। কিন্তু সেগুলি কতদিন অবিকৃত অবস্থায় থাকে, ক্রেতারা জানতেই পারে না। টাটকা জেনেই মিষ্টি মুখে হাতে ভোরে নেন মিষ্টি। কিন্তু এই গতানুগতিক ব্যবস্থা বদলাতে চলেছে। সকল দোকানের খোলা মিষ্টিতেও (Loose Sweets) এবার থেকে থাকতে হবে উৎপাদনের তারিখ। এরসাথে ওই মিষ্টি কতদিন ঠিক থাকবে বা খাওয়া যাবে তাও উল্লেখ রাখা বাধ্যতামূলক। আগামী জুন মাস থেকে এই নির্দেশ কার্যকর করার কথা জানিয়েছে ফুড সেফটি অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ডস অথরিটি অফ ইন্ডিয়া।

ওড়িশাকে সরিয়ে রসগোল্লা হলো বাংলার – আরও জানতে ক্লিক করুন ।

প্যাকেটজাত মিষ্টিতে যাবতীয় তথ্য দেওয়াই থাকে। যদিও এই নির্দেশিকায় সমস্যায় পড়বেন ছোট ও খুচরো মিষ্টি ব্যবসায়ীরা। দোকানের ট্রে–র গায়ে উৎপাদনের তারিখ বা মিষ্টির মেয়াদ লিখলে তা গ্রাহকদের চোখে পড়বে না। তাছাড়া ট্রে–র মধ্যে সাজিয়ে রাখা ছোট মিষ্টির গায়েও ট্যাগ লাগানো সম্ভব নয়। কিন্তু সারাদিন যে পরিমাণ মিষ্টি তৈরি হয়, তার সব বিক্রি না হলে, তা রসে ফেলেন না বলে কয়েকদিন টাটকা থাকে। তাই নির্দিষ্ট করে তারিখ উল্লেখ করা সম্ভব নয়। এখানে ক্রেতা ও বিক্রেতার মধ্যে থাকে বিশ্বাস।

খাবার নিয়ে ঘরের দরজায় আমাজন – আরও জানতে ক্লিক করুন ।

এদিকে কলকাতার স্ট্রিট ফুড নিয়ে সম্প্রতি এক সমীক্ষায় জানিয়েছে, দেশের অন্যান্য রাজ্যের স্ট্রিট ফুডের থেকে কলকাতার রাস্তার খাবার অনেক বেশি নিরাপদ। সমীক্ষা রিপোর্টই তাই বলছে। ১০০ শতাংশ নিরাপদ সেটা না হলেও। এখন রাস্তার খাবারের মানোন্নয়ন হয়েছে। এই অর্থনৈতিক অবস্থায় যতটা সচেতন থাকা সম্ভব, কলকাতার রাস্তার খাবার ততটাই সুরক্ষিত। এক্ষেত্রে দিন-ক্ষণ দেখানোর কোনো নির্দেশিকা নেই। কিন্তু মিষ্টির দোকানের লাড্ডু, শোনপাপড়ি, বরফি আর রসগোল্লা, সন্দেশকে এক গোত্রে রাখা বেশ কঠিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *