ED questions Siddharth Pithani in Sushant Singh Rajput death case

বেল্টের ফাঁসে সুশান্তকে খুন করেছে বন্ধু সিদ্ধার্থ ???

বিনোদন

সুশান্তের বাবার আইনজীবী জানান, গলায় বেল্ট দিয়ে শ্বাসরোধ করে সুশান্তকে খুন করেছে বন্ধু সিদ্ধার্থ (Siddharth Pithani)। এই সিদ্ধার্থ খুবই ধূর্ত ও …

নিজস্ব সংবাদদাতা: সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু রহস্য অনেক গভীরে। ক্রমশ অবাক করা তথ্য সামনে আসছে। আত্মহত্যার তত্ব এবার হালকা হতে শুরু করেছে। বান্ধবী রিয়া ও তার ভাইয়ের পর সামনে এলো বন্ধু সিদ্ধার্থ। সুশান্তের বাবার আইনজীবী জানান, গলায় বেল্ট দিয়ে শ্বাসরোধ করে সুশান্তকে খুন করেছে বন্ধু সিদ্ধার্থ (Siddharth Pithani)। এই সিদ্ধার্থ খুবই ধূর্ত ও বুদ্ধিমান এক অপরাধী। আইনজীবী জানাচ্ছেন, সেই ঘটনার দিন সুশান্তের ঘর খোলার জন্য চাবিওয়ালা এসেছিলেন। তিনি লক খোলার পর ওই ব্যক্তিকে গেট পর্যন্ত ছেড়ে আসেন সিদ্ধার্থ।

ED questions Siddharth Pithani in Sushant Singh Rajput death case
ED questions Siddharth Pithani in Sushant Singh Rajput death case

তাহলে দেখা যাচ্ছে সিদ্ধার্থের দরজা খোলার তাড়া ছিল না। তবে কেন সুশান্তের বোনের জন্য অপেক্ষা করে দরজা খুললেন সিদ্ধার্থ? কেন দরজা খোলার পর ঝুলন্ত সুশান্তকে দেখে পুলিশ না ডেকে, সেই দেহ নিজেই নামালেন? সুশান্তের গলায় বেল্টের দাগ ছিল। কিন্তু দেখা গিয়েছে সুশান্তের গলায় একটি কাপড়ের ফাঁস ছিল। এই সমস্ত তথ্যের ভিত্তিতে, সুশান্ত হত্যার রহস্যভেদ হবে মনে করেন আইনজীবী। এরই মধ্যে শিবসেনা সাংসদ সঞ্জয় রাউত, সুশান্তের বাবার ‘দ্বিতীয় বিবাহ’ নিয়ে কুরুচিকর মন্তব্য করলেন।

[ আরো পড়ুন ] বলিউডে আর এক দুঃসংবাদ ! সঞ্জয় দত্তের স্টেজ-৩ ক্যানসার?

তিনদিন ধরে রিয়ার বক্তব্যে সন্তুষ্ট নয় ইডি। রিয়ার যুক্তিতে যথেষ্ট অসঙ্গতি ধরা পড়েছে। তিনি অনেক প্রশ্নের উত্তর এড়িয়ে গিয়েছেন। তবে রিয়া ও পরিবারের ফোন, ল্যাপটপ, আইপ্যাড সমস্ত গ্য়াজেটস বাজেয়াপ্ত করেছে ইডি। সুশান্তের গাড়ির চালক জানিয়েছে, সুশান্তের পা মোচরানো ছিল। গোটা দেহ হলুদ হয়ে গিয়েছিল। জানা যাচ্ছে, গত ২৮শে নভেম্বর, সুশান্তের সাড়ে ৪ কোটি টাকার ফিক্সড ডিপোজিট ভেঙে ফেলা হয়। এই বিষয়ে ইডি, জিজ্ঞাসাবাদ করে রিয়া চক্রবর্তী ও অভিনেতার প্রাক্তন ম্যানেজার শ্রুতি মোদীকে ।

[ আরো পড়ুন ] “সুশান্ত অ্যাম্বুল্যান্সে জীবিত ছিলেন – শরীরে আঘাতের চিহ্ন”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *