Bengali Writer Narayan Gangopadhyay

Narayan Gangopadhyay: “টেনিদা” স্রষ্টার প্রয়াণ দিবস

ইতিহাস

তিঁনি প্রখ্যাত বাঙালি প্রাবন্ধিক ও সাহিত্যিক। প্রকৃত নাম তারকনাথ গঙ্গোপাধ্যায় (Narayan Gangopadhyay), ‘নারায়ণ’ তাঁর সাহিত্যিক ছদ্মনাম।

তিঁনি প্রখ্যাত বাঙালি প্রাবন্ধিক ও সাহিত্যিক। প্রকৃত নাম তারকনাথ গঙ্গোপাধ্যায় (Narayan Gangopadhyay), ‘নারায়ণ’ তাঁর সাহিত্যিক ছদ্মনাম। আজ সেই আমাদের সকলের কাছের মানুষ, নারায়ণ গঙ্গোপাধ্যায়ের প্রয়াণ দিবস। ১৯৭০ সালের আজকের এই দিনে ৬ই নভেম্বর, সেরিব্রাল স্টোকে পি।জি হাসপাতালে সবাই ছেড়ে চলে যান তিনি। ১৯৩৩ সালে দিনাজপুর জেলা স্কুল থেকে ৮৪ শতাংশ নম্বরসহ প্রবেশিকার পরীক্ষায় প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হন তিনি। ১৯৩৬ সালে বরিশাল ব্রজমোহন কলেজ থেকে আই.এ পাশ করেন তিনি। ১৯৩৮ সালে ওই কলেজ থেকেই বি.এ। পাশ করেন। পরে ১৯৪০ সালে কলকাতা থেকে এম.এ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। তাঁর জন্ম ১৯১৮ সালের ৪ঠা ফেব্রুয়ারি দিনাজপুরের বালিয়াডাঙ্গিতে।

এমএ পরীক্ষায় অসাধারণ ফলাফল অর্জন করায় তিনি ‘ব্রহ্মময়ী স্বর্ণপদক’ লাভ করেন। ওই বিশ্ববিদ্যালয় থেকেই ১৯৬০ সালে তিনি ডিফিল ডিগ্রি অর্জন করেন। নারায়ণ গঙ্গোপাধ্যায় আনন্দচন্দ্র কলেজে অধ্যাপনার মাধ্যমে কর্মজীবন শুরু করেন। তারপর জলপাইগুড়ি (১৯৪২-৪৫) ও সিটি কলেজে (১৯৪৫-১৯৫৫) অধ্যাপনা করার পর ১৯৫৬ সাল থেকে তিনি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা করেন। নারায়ণ গঙ্গোপাধ্যায় শনিবারের চিঠির নিয়মিত লেখক ছিলেন। জীবনের শেষ সময়ে তিনি সাপ্তাহিক দেশ পত্রিকায় ‘সুনন্দ’ ছদ্মনামে লিখতেন। ইতিহাসবোধ ও স্বাদেশিকতা তাঁর রচনার উপজীব্য। বাংলার নিসর্গ ও নদনদীর তরঙ্গমালা, বাঙালির আদিম ও আরণ্যক জীবন তাঁর উপন্যাসে রোম্যান্টিকতার নিরিখে মনোজ্ঞভাবে চিত্রিত হয়েছে।

‘কপালকুণ্ডলা’, ‘ইন্দিরা’, ‘দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন’, ‘সাহারা’ প্রভৃতি অজস্র সিনেমায় নারায়ণবাবু চিত্রনাট্যকারের দায়িত্ব সামলেছেন। শুধু চিত্রনাট্যই নয়, ‘চারমূর্তি’, ‘নন্দিতা’, ‘সঞ্চারিণী’ থেকে শুরু করে সাম্প্রতিক সময়ে বুদ্ধদেব দাশগুপ্তের পরিচালনায় ‘টোপ’— বহু বার নারায়ণবাবুর লেখা ফিরে এসেছে সিনেমার পর্দায়। অসাধারণ গান লিখেছেন ‘ঢুলি’ ছবিতে। ছোট ছোট মুক্তোর মতো অক্ষরে লম্বা ফুলস্ক্যাপ সাইজের কাগজের এক পিঠে লিখতে লিখতেই সৃষ্টি ‘উপনিবেশ’, ‘শিলালিপি’, ‘মহানন্দা’র মতো উপন্যাস। ‘হাড়’, ‘টোপ’, ‘ডিনার’-এর মতো অবিস্মরণীয় ছোটগল্প। এছাড়া কিশোর উপন্যাস ও ছোট গল্পও লিখেছেন তিনি। টেনিদা ও সিন্ধুঘোটক, চারমূর্তি, চারমূর্তির অভিযান, ঝাউবাংলোর রহস্য, অন্ধকারের আগন্তুক, পঞ্চাননের হাতি উল্লেখযোগ্য। সাপ্তাহিক দেশ পত্রিকায় লেখা সুনন্দর জার্নাল, যার পরতে পরতে ছিল বাঙালির জীবনযাত্রা, সংস্কৃতি, রোজকার সমস্যা ও রাজনীতি নিয়ে তাঁর গভীর পর্যবেক্ষণ এবং শাণিত শ্লেষ, যা অত্যন্ত জনপ্রিয় ছিল বাঙালি পাঠকের কাছে। তাঁকে প্রণাম জানাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *