Biography Jatra Icon Bhairab Gangopadhyay

বাংলার যাত্রার কিংবদন্তি ভৈরব গঙ্গোপাধ্যায়ের জন্মদিন

ইতিহাস

বাংলার এই যাত্রাজগতের অন্যতম কিংবদন্তির নাম ভৈরব গঙ্গোপাধ্যায় (Bhairab Gangopadhyay)। বাংলায় অগণিত যাত্রাদল দীর্ঘদিন ধরেই …

নিজস্ব সংবাদদাতা: যাত্রা, বাংলা সংস্কৃতির এক বহু প্রাচীন মজবুত বিনোদনের পরম্পরা। এই যাত্রা পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় লোকনাট্য ধারা। কয়েক শত বছর ধরে এই বিনোদনের মাধ্যম গোটা রাজ্যে চালু আছে। তবে সময়ের বিবর্তনে এই যাত্রার রূপের পরিবর্তন হয়েছে। বাংলায় অগণিত যাত্রাদল দীর্ঘদিন ধরেই নানা মানের যাত্রা পরিবেশন করছে। পালাকার, পরিচালক, অভিনেতা, অভিনেত্রী, বাজনদার নিয়ে সমৃদ্ধ প্রত্যেক যাত্রাদল। বাংলার এই যাত্রাজগতের অন্যতম কিংবদন্তির নাম ভৈরব গঙ্গোপাধ্যায় (Bhairab Gangopadhyay)।

তিনি একজন জনপ্রিয় যাত্রা পালাকার, প্রযোজক, নির্দেশক, গীতিকার ও সুরকার ছিলেন। আজ তাঁর জন্মদিন। ১৯৩৪ সালের ২৫শে নভেম্বর, পশ্চিমবঙ্গের পূর্ব বর্ধমান জেলার মন্তেশ্বর থানার ‘মূল‘ গ্রামে তিনি জন্মগ্রহণ করেন।

Biography Jatra Icon Bhairab Gangopadhyay
Biography Jatra Icon Bhairab Gangopadhyay

তিনি মূলগ্রামে, অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেন। কিন্তু কিশোর বয়স থেকে বাংলার যাত্রার প্রতি ভালোবাসা তৈরী হয়। অল্প বয়সেই তাঁকে যাত্রাশিল্পের প্রতি আকৃষ্ট করে তোলে। ১৯৬০ সালে, কলকাতার চিৎপুরের যাত্রাপালা জগতে প্রবেশ করেন। সেই সময় প্রখ্যাত ‘সত্যম্বর অপেরা’ তাঁর রচিত প্রথম যাত্রাপালা “নাচমহল” মঞ্চস্থ করে। আর সেই প্রথম লেখা যাত্রাপালাতেই তিঁনি দর্শকদের কাছে খুব সমাদর পান। দ্রুত প্রবেশ করেন বাংলা যাত্রার অলিন্দে। ১৯৮৯ খ্রিস্টাব্দে তিঁনি নিজের নামে দল “ভৈরব অপেরা” গঠন করেন। একই সাথে যাত্রার প্রযোজনা করেছেন।

[ আরও পড়ুন ] সুপারস্টার ‘আন্ডারটেকার’ WWE-কে বিদায় জানালেন

ভৈরববাবু একজন অত্যন্ত দরদী মনের মানুষ ছিলেন। গ্রাম বাংলার অগণিত গরীব সাধারণ মানুষের কথা, অন্যায় অবিচার অত্যাচারের কাহিনী, তাঁর অগণিত মঞ্চসফল পালায় ফুটে উঠেছে। এরপর তিঁনি পাকাপাকি ভাবে কলকাতার বাসিন্দা হয়ে যান। তাঁর লেখা যাত্রাপালার সংখ্যা প্রায় আড়াই শত। তাঁর ‘মা মাটি মানুষ’, ‘গান্ধারী জননী’, ‘সাত টাকার সন্তান’, ‘ভিখারি ঈশ্বর’, ‘অচল পয়সা’, ‘ঠিকানা পশ্চিমবঙ্গ’,’দু টুকরো মা’, ‘স্বর্গের পরের স্টেশন’,‘দেবী সুলতানা’-সহ বহু যাত্রা কোনোদিন পুরানো হবে না। সারা জীবন নিজেকে যাত্রাশিল্পের সাথে ঘনিষ্ঠ ভাবে যুক্ত ছিলেন।

যাত্রা শিল্পের উন্নতির জন্য নানা কাজ করে গেছেন। গ্রাম বাংলার থেকে তিঁনি অনেক পুরস্কার পেয়েছেন। সম্প্রতি ভৈরব গঙ্গোপাধ্যায়ের আবক্ষ মূর্তি তৈরি হয়েছে, তাঁর গ্রাম মন্তেশ্বরের ভাগরা-মূলগ্রামে। জনপ্রিয় যাত্রাপালাকার ভৈরব গঙ্গোপাধ্যায় ১৯৯৮ সালের ২৮শে ডিসেম্বর পরলোক গমন করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *