চলচ্চিত্র পরিচালক ঋতুপর্ণ ঘোষের জন্মদিন

ইতিহাস

আজ দেশের প্রখ্যাত চলচ্চিত্র পরিচালক ঋতুপর্ণ ঘোষের (Rituparno Ghosh) জন্মদিন। কোকড়ানো চুল. ঢিলে ঢালা টিশার্ট-জিন্স. চোখে বড় কাঁচের চশমা. চোখের …

নিজস্ব সংবাদদাতা: রায়, ঘটক, সেন কিংবা সিংহদের পরবর্তীতে একজন মানুষ বাংলা সিনেমাকে একধাক্কায় অনেকটাই আধুনিক করে তুলেছিলেন। নতুন ভাবনা নিয়ে বাংলা সিনেমাকে দেশে ও দেশের বাইরে ছড়িয়ে দিয়েছিলেন। তার হাত ধরেই বাংলা সিনেমায় শিল্পের সাথে বাণিজ্যের এক মেলবন্ধন তৈরী হয়। খুব অকালে সেই মানুষটি পাড়ি দেন, না ফেরার দেশে। আজ দেশের প্রখ্যাত চলচ্চিত্র পরিচালক ঋতুপর্ণ ঘোষের (Rituparno Ghosh) জন্মদিন। কোকড়ানো চুল. ঢিলে ঢালা টিশার্ট-জিন্স. চোখে বড় কাঁচের চশমা. চোখের ওপর-নিচে লাগলো মোটা কাজলের রেখা. লাইন করা পুরু দু’টো ঠোঁট মাখলো রং.আর শানিত সৃজনশীলতা নিয়েই ঋতুপর্ণ ঘোষ।

Rituparno Ghosh biography in bengali
Rituparno Ghosh biography in bengali

১৯৬৩ সালের ৩১শে অগস্ট কলকাতায় তাঁর জন্ম হয়। বাবা-মা দুজনেই চলচ্চিত্র জগতের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। বাবা সুনীল ঘোষ ছিলেন তথ্যচিত্র-নির্মাতা ও চিত্রকর। ঋতুপর্ণ ঘোষ প্রথমে সাউথ পয়েন্ট হাইস্কুলে পড়াশুনা করেন ও তারপর যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে ডিগ্রি অর্জন করেন। সিনেমাতে আসার আগে তিঁনি ছিলেন কলকাতার একজন “অ্যাডভারটাইসমেন্ট কপিরাইটার”। বাংলা বিজ্ঞাপনের দুনিয়ায় বেশ কিছু জনপ্রিয় এক লাইনের শ্লোগান লিখে নিজের জাত চিনিয়েছিলেন। সেই সময় তাঁর তৈরী বিজ্ঞাপনগুলির মধ্যে শারদ সম্মান ও বোরোলিনের বিজ্ঞাপন বিশেষ জনপ্রিয় ছিল। এরপরেই তিঁনি প্রবেশ করেন বাংলা সিনেমা তৈরির কাজে।

[ আরো পড়ুন ] অভিনেতা ভানু বন্দোপাধ্যায়, অভিনয় করেছেন ৩০০ ছবিতে

তার পরিচালনায় প্রথম ছবি হিরের আংটি ১৯৯২ সালে মুক্তি পায়। একেবারেই ছোটোদের ছবিটি তৈরি হয়েছিল শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়ের একটি উপন্যাস অবলম্বনে। একটি দিনের গুরুত্ব বাংলা চলচ্চিত্র জগতে কতখানি তা বুঝিয়ে দিয়েছিলেন এই মানুষ। তৈরি করেছিলেন একটি নতুন সিনেমার ব্যতিক্রমী ধারা। তাঁর সিনেমা অনেকটা পাহাড়ের রাস্তায় গাড়ি চালানোর মতো।

[ আরো পড়ুন ] দেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু ???

তাঁর দ্বিতীয় ছবি ছিল মাত্র একটি দিনকে কেন্দ্র করে- ‘উনিশে এপ্রিল’। এরপর চলতে থাকে ছক ভাঙার সিনেমা। দহন, বাড়িওয়ালি, অসুখ, উৎসব, খেলা, তিতলি, রেনকোট, শুভ মহরত, চোখের বালি, দোসর, সব চরিত্র কাল্পনিক, আবহমান, নৌকাডুবি প্রভতি সিনেমা মানুষকে নাড়িয়ে দেয়। ২০১৩ সালের ৩০শে মে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ঋতুপর্ণ ঘোষের মৃত্যু হয়। খুবই অসময়ে চলে গেলেন এই অন্যধারার এক গুণী সিনেমা পরিচালক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *