Economy and Employment First Priority for Modi Government

অর্থনীতি এবং কর্মসংস্থানের উপরেই নয়া পদক্ষেপ মোদি সরকারের ।

ভারতবর্ষ

Economy and Employment First Priority for Modi Government

চলতি অর্থবর্ষের জন্য ভারতের বৃদ্ধির হার সম্পর্কে পূর্বাভাস দিতে গিয়ে ওয়ার্ল্ড ব্যাংক মনে করছে তা ৭.৫ শতাংশই থাকবে।

প্রত্যাশা পূরণ করেছে দেশের আমজনতা।বিপুল ভোটে আবার তিনি ফিরে এসেছেন দেশের মসনদে।এবার দেশকে ভালো কিছু ফিরিয়ে দেওয়ার পালা।কয়েকদিন আগেই সরকার মেনে নিয়েছে দেশে বেকারত্বের হার ৪৫ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। প্রথম দফায় বছরে দু’কোটি কর্মসংস্থানের প্রতিশ্রুতি থাকলেও তা যে পূরণ করা সম্ভব হয়নি।দ্বিতীয় দফার শুরুতেই মোদির অগ্রাধিকারে বেকারত্ব।

২০১৮-১৯ অর্থবর্ষের শেষ ত্রৈমাসিকেও আর্থিক বৃদ্ধির হার কমেছে। আর্থিক বৃদ্ধির হার বাড়াতে না পারলে যে বেকারত্ব সামলানো যাবে না।আর তাই দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বুধবার গঠন করে দিয়েছেন দুটি উচ্চক্ষমতা সম্পন্ন মন্ত্রীদের কমিটি।

দুই কমিটির শীর্ষে মোদি নিজেই থাকছেন। দুই কমিটিতে রয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এবং অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন।চলতি অর্থবর্ষের জন্য ভারতের বৃদ্ধির হার সম্পর্কে পূর্বাভাস দিতে গিয়ে ওয়ার্ল্ড ব্যাংক মনে করছে তা ৭.৫ শতাংশই থাকবে। মন্ত্রিসভার একটি নজর রাখবে বিনিয়োগ এবং আর্থিক বৃদ্ধির উপর।সরকারের তরফে মেনে নেওয়া হয়, ৪৫ বছরের মধ্যে দেশের বেকারের সংখ্যাও এত নিচে আসেনি।

কর্মসংস্থান ও কর্মদক্ষতা সংক্রান্ত কমিটির সদস্য তালিকায় রয়েছেন অমিত শাহ ও নির্মলা সীতারমন ছাড়াও রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমর, রমেশ পোখরিয়াল, ধর্মেন্দ্র প্রধান, মহেন্দ্রনাথ পাণ্ডে, সন্তোষকুমার গাঙ্গোয়ার ও হরদীপ সিং পুরী।

আর্থিক উন্নয়ন সংক্রান্ত কমিটিতে রয়েছেন অমিত শাহ, নির্মলা সীতারমন, নীতিন গড়করি ও পীযূষ গোয়েল-সহ পাঁচ সদস্য।১৯৭২-১৯৭৩ সালের পর থেকে সারা দেশে কর্মহীনের সংখ্যা এত বেশি আর কখনও হয়নি। ফলে এই দুটি ক্ষেত্রে যে খামতি রয়ে গিয়েছে তা নিয়ে সন্দেহের জায়গা নেই। ফলে মাঠে নেমে প্রথম থেকেই সচেতন প্রধানমন্ত্রী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *