IAF AN-32 Aircraft Carrying 13 Passenger Missing

মাঝ আকাশে নিখোঁজ বায়ুসেনার বিমান এএন-৩২।

ভারতবর্ষ

IAF AN-32 Aircraft Carrying 13 Passenger Missing

অসমের জোড়হাট থেকে অরুণাচলের মেচুকা অ্যাডভান্স ল্যান্ডিং গ্রাউন্ডের উদ্দেশে রওনা হয়েছিল বায়ুসেনার এই বিমান।

সোমবার দুপুর ১২টা বেজে ২৫ মিনিটে অসমের জোড়হাট বায়ুসেনা ঘাঁটি থেকে অরুণাচলের মেচুকার অ্যাডভান্স ল্যান্ডিং গ্রাউন্ডের উদ্দেশে রওনা দিয়েছিল আন্তোনভ এএন-৩২ বিমানটি। তার কিছু ক্ষণ পর, দুপুর ১টা নাগাদ বিমানটি নিখোঁজ হয়ে যায়।১৩ জন যাত্রী সমেত মাঝ আকাশে নিখোঁজ ভারতীয় বায়ুসেনার পণ্যবাহী বিমান।বিমানটির খোঁজে তল্লাশি অভিযান শুরু হয়েছে।

৫ জন যাত্রী এবং ৮ জন ক্রু মেম্বার। অসমের জোড়হাট থেকে অরুণাচলের মেচুকা অ্যাডভান্স ল্যান্ডিং গ্রাউন্ডের উদ্দেশে রওনা হয়েছিল বায়ুসেনার এই বিমান। নিখোঁজ বিমান উদ্ধারের জন্য সার্চ অপারেশনে সুখোই-৩০ জেট এবং সি-১৩০ বিমান নামিয়েছে বায়ুসেনা।

প্রায় চার দশক ধরে এই ধরণের বিমান ব্যবহার করছে ভারতীয় বায়ুসেনা।২০১৬ সালে একটি এএন-৩২ বিমান চেন্নাই থেকে পোর্ট ব্লেয়ারের পথে রওনা হয়েছিল। কিন্তু তা মাঝপথেই নিখোঁজ হয়ে যায়। সেই বিমানটিকে আর পাওয়া যায়নি।

অরুণাচলপ্রদেশের পশ্চিম সিয়াং জেলায় মেচুকা উপত্যকা। সেখানেই রয়েছে দ্য মেচুকা অ্যাডভান্স ল্যান্ডিং গ্রাউন্ড। ভারত-চিন সীমান্তে ম্যাকমোহন লাইনের কাছেই এই ল্যান্ডিং গ্রাউন্ড রয়েছে। ১৯৮৪ সাল থেকে এএন ৩২ বিমান ব্যবহার করে আসছে ভারতীয় বায়ুসেনা।

ইউক্রেনের তৈরি এএন-৩২ বিমান ভারতীয় বিমান বাহিনীতে যোগ দিয়েছিল ১৯৮৪ সালে। এই মুহূর্তে বিমান বাহিনীর হাতে রয়েছে ১০০ টি এএন-৩২ বিমান। যার বেশিরভাগই ব্যবহার করা হয় জওয়ান দুর্গম এলাকায় পৌঁছে দেওয়ার জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *