Indian Army Banned Whatsapp

হোয়াটসঅ্যাপ-এ নিষেধাজ্ঞা সেনাকর্মীদের।

ভারতবর্ষ

পাকিস্তানের গুপ্তচর ভারতের সেনাকর্মীদের কয়েকটি হোয়াটসঅ্যাপ-এ ঢুকেছে। সেনা অফিসারদের কথা তারা জানতে পারছে।

পাকিস্তান নিয়ন্ত্রণরেখা লঙ্ঘন করে গোলাগুলি চালানো থামায় নি। কুখ্যাত জঙ্গি সংগঠনগুলির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয় নি। হাফিজ সইদ, মাসুদ আজাহারের বিরুদ্ধে বিরুদ্ধেও অবাক করা নিরাবতা পাকিস্তানের।

আন্তর্জাতিক চাপে এখন‌ ভারতীয় সেনা ও তাঁদের পরিবারের লোকজন হোয়াটসঅ্যাপে বার্তার দিকে নজর রাখছে পাকিস্তানি গুপ্তচর সংস্থা। বন্ধুর ছদ্মবেশে এবার সেনার অফিসার, তাঁদের নিকট আত্মীয় ও পরিবারের সদস্যদের কাছে পৌঁছানোর চেষ্টা করছে আইএসআই৷

তারা হাতিয়ার হিসাবে ব্যবহার করছে ভার্চুয়াল ওয়ার্ল্ড বা সোশ্যাল মিডিয়াকে৷ পাকিস্তানের গুপ্তচর ভারতের সেনাকর্মীদের কয়েকটি হোয়াটসঅ্যাপ-এ ঢুকেছে। সেনা অফিসারদের কথা তারা জানতে পারছে।

তারা সুকৌশলে ভারতীয় সেনাকর্মীদের জন্য সোশ্যাল সাইটে ফাঁদ পাতছে। অনেক সময় সুন্দরী কোনও মহিলার নাম ও ছবি দিয়ে ভুয়ো প্রোফাইল খুলে সেনা অফিসারের ঘনিষ্ঠ হতে চাইছে। কয়েকটি ক্ষেত্রে তারা সফলও হয়েছে।

ভারতীয় সেনাবাহিনী অফিসারদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, যে হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে সদস্য না হতে। অনেকের ভিড়ে লুকিয়ে থাকে পাকিস্তানের গুপ্তচরেরা। সেনা অফিসাররা কেবল ঘনিষ্ঠ ব্যক্তিদের সঙ্গে গ্রুপ বানান।

হোয়াটস অ্যাপে কয়েকজন সেনা অফিসারকে হুমকি মেল পাঠানো হয়েছে । তাই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, সেনাকর্মীদের আত্মীয়স্বজন যেন এই সোশ্যাল মিডিয়ায় এড়িয়ে চলেন। হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে কোনও অজ্ঞাত ব্যক্তির সঙ্গে যেন কথাবার্তা না বলেন সেনা আধিকারিকরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *