Indian farmers blocked railway lines and roads to protest agricultural reforms

দেশজুড়ে রেল অবরোধ – কৃষক বিক্ষোভে সামনে অনড় কেন্দ্র

ভারতবর্ষ

কৃষক নেতা বুটা সিং বলেন, আমাদের দাবি আদায় না হলে, এবার রেল লাইনে অবরোধ (Indian farmers blocked railway) করা হবে। শীঘ্রই এই ….

নিজস্ব সংবাদদাতা: দেখতে দেখতে সপ্তাহ অতিক্রম করে গেছে। একাধিক বৈঠকে কোনো সমাধানের সূত্র বার হয় নি। কৃষক বিক্ষোভের জন্য নিদারুন সমস্যায় পড়েছে দিল্লি। রাজধানী দিল্লির প্রায় সব রাস্তা অবরুদ্ধ করে অচল করে দেওয়ার লক্ষ্য নিয়েছে কৃষকরা। ঠান্ডাকে পাত্তা দিচ্ছে না তারা। বিক্ষোভের সুর ক্রমশ বাড়ছে দিল্লি জুড়ে। এবার দেশ জুড়ে রেল পরিষেবা অচল করে দেওয়ার পরিকল্পনা নিচ্ছেন কৃষকরা। কৃষক নেতা বুটা সিং বলেন, আমাদের দাবি আদায় না হলে, এবার রেল লাইনে অবরোধ (Indian farmers blocked railway) করা হবে। শীঘ্রই এই রেল রোকোর দিন ঘোষণা করা হবে। ফলে সমস্যা আগামীতে আরও জটিল হয়ে উঠবে।

Indian farmers blocked railway lines and roads to protest agricultural reforms
Indian farmers blocked railway lines and roads to protest agricultural reforms

কিছুদিন আগেই জানানো হয়, প্রধানমন্ত্রী ১০ই ডিসেম্বরের মধ্যে দাবি না মানলে রেল অবরোধ শুরু হবে। কৃষকের বৈঠকে ঠিক হয়েছে, দেশে কৃষি আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভকারী কৃষকরা সমবেত ভাবে এবার রেল লাইনে এসে জড়ো হবেন। তবে দ্রুত এর দিনক্ষণ ঘোষণা করবে সংযুক্ত কিষান মোর্চা।

[ আরও পড়ুন ] ‘নয়েজ অফ সাইলেন্স’ NRC – বিপন্ন নাগরিকত্ব এবার পর্দায়

আগামীকাল ১২ই ডিসেম্বর থেকে দিল্লি-জয়পুর ও দিল্লি-আগ্রা জাতীয় সড়ক অবরোধ করার কথা জানিয়েছে কৃষকরা। কিছু সিংঘু সীমান্ত বিক্ষোভকারীরা মনে করেন তাদের পেছনে এনআরআই-রা আছেন। তবে এই আন্দোলন অনেকদিন ধরে গোটা দেশ জুড়ে চলবে। যদিও সমস্যা সমাধানে কৃষকদের আবার আলোচনায় বসার আহ্বান জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় কৃষি মন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমর।

[ আরও পড়ুন ] প্রধানমন্ত্রী নতুন সংসদ ভবনের শিলান্যাস ও ভূমিপূজা করলেন

তবে কৃষকরা এই প্রস্তাবে সাড়া দেবেন কি না, তা নিয়ে সন্দেহ থেকেই যাচ্ছে। কৃষিমন্ত্রীর জানান, দেশের নতুন কৃষি আইন নিয়ে কৃষক নেতাদের সঙ্গে খোলা মনে আলোচনায় কেন্দ্র রাজি সবসময় রাজি। কৃষি আইন নিয়ে কৃষক নেতাদের মনের ধন্দ পরিষ্কার করা হবে। নতুন এই কৃষি আইন নিয়ে কৃষকদের অবস্থান অনেকদিন ধরেই স্পষ্ট। রাস্তায় মেনে, কষ্ট স্বীকার করে তারা জানান, আইন বাতিল ছাড়া এখন আর তারা কিছু ভাবছে না। সরকার যে সংশোধনী প্রস্তাব দিয়েছে, তার মধ্যেও নতুন কিছু নেই বলে তারা মনে করছেন। ফলে আগামীতে দেশ অচল হওয়ার সম্ভাবনা প্রকট হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *