Provident Fund Money Loss In Market

হাওয়া ১৪ লক্ষের পিএফ ও পেনশনের ২০ হাজার কোটি – Provident Fund Money Loss in Market

ভারতবর্ষ

আম জনতার প্রভিডেন্ট ফান্ড এবং পেনশনের টাকা নিয়ে জমেছে ঘোর অনিশ্চয়তার মেঘ।

এটা ঠিক রোজভ্যালি, সারদা নয়| বাজারি অর্থলগ্নির প্রতারণাও নয়| সরকারের ঘরের নিরাপদ সিন্ধুকে রাখা আপনার ভবিষ্যতের অবলম্বনটির খোঁজ মিলছে না| পড়াশুনা শেষ করে পরীক্ষা ও ইন্টারভিউ দিয়ে যে চাকরি পেলেন, সেই চাকরি থেকে বাঁচিয়ে রাখা টাকা জমা ছিল সরকারের হাতে| সেই সুরক্ষিত হাত থেকে নিঃশব্দে গলে যেতে বসেছে আমার আপনার জমানো টাকা|

অনুমানের বাইরে আম জনতার প্রভিডেন্ট ফান্ড এবং পেনশনের টাকা নিয়ে জমেছে ঘোর অনিশ্চয়তার মেঘ। জানা যাচ্ছে, মধ্যবিত্তের পেনশন ও প্রভিডেন্ট ফান্ডের টাকা এমন সংস্থায় খাটানো হয়েছে, যারা সম্পূর্ণ ভাবে ঋণে ডুবে রয়েছে। ফলে নিয়মের অবসরকালীন পাওনা টাকা থেকে বঞ্চিত হতে পারেন প্রায় ১৪ লক্ষ চাকুরিজীবী। তাঁদের জমানো পেনশন ও ভবিষ্যনিধি তহবিল থেকে হারিয়ে যেতে পারে ১৫ থেকে ২০ হাজার কোটি টাকা। এই আতঙ্কের আশঙ্কা থেকেই এ বার ন্যাশনাল কোম্পানি ল অ্যাপিলেট ট্রাইবুনালের হস্তক্ষেপের আর্জি জানিয়ে পিটিশন ফাইল করেছে একাধিক সংস্থা।

মধ্যবিত্ত চাকুরিজীবীর পেনশন ও প্রভিডেন্ট ফান্ডের টাকা ধার হিসেবে দেওয়া হয়েছে ইনফ্রাস্ট্রাকচার লিজিং অ্যান্ড ফাইনান্সিয়াল সার্ভিসেস (আইএলঅ্যান্ডএফএস)-কে। মুম্বইয়ের এই আর্থিক সংস্থার মূল এবং সহযোগী সংস্থাগুলি মিলিয়ে বর্তমানে বাজারে মোট দেনার পরিমাণ প্রায় ৯১ হাজার কোটি টাকা। আর এই সংস্থাতেই বেশ কিছু সরকারি ও বেসরকারি সংস্থার প্রভিডেন্ট ফান্ড-পেনশনের টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে ঋণ, বন্ড বা ডিবেঞ্চারের মাধ্যমে।

ilfs
IL&FS Building

বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, টাকার অঙ্ক ১৫ থেকে ২০ হাজার কোটি। ফলে ওই সব সংস্থার অবসরকালীন অর্থ মেটানো খুবই কঠিন। যেহেতু আইএলঅ্যান্ডএফএস-এর ৪০ শতাংশ বন্ডই পেনশন ও প্রভিডেন্ট ফান্ডের তাই শঙ্কার মেঘ আরও গাঢ় হয়েছে।

আশঙ্কা আর অনিশ্চয়তা ঘুরছিল একাধিক কর্পোরেট শিবিরেও। সব মিলিয়ে শেষ পর্যন্ত সরাসরি পিটিশন দাখিল করল সরকারি ও বেসরকারি মিলিয়ে অন্তত দশটি নামি সংস্থা।
তবে আশা করা যাচ্ছে এই সংখ্যাটা আরও বাড়তে পারে। কারণ আর্জি জানানোর শেষ সময়সীমা রয়েছে ১২ই মার্চ পর্যন্ত।

বিষয়টি নিয়ে মুখপাত্র শরদ গোয়েলের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ কোনও মন্তব্য করতে রাজি হননি। অথচ কিছু বিশেষজ্ঞরাএই আইএলঅ্যান্ডএফএস-কেই প্রভিডেন্ট ফান্ড এবং পেনশনের টাকা বিনিয়োগের সুরক্ষিত হিসেবে দেখতেন। তার কারণ এই সংস্থার অন্যতম পৃষ্ঠপোষক এসবিআই, এলআইসি-র মতো প্রতিষ্ঠান। ফলে সময় লাগবে, আসল সত্য উদ্ধারের| লোকসভা নির্বাচনের আগে, এটি হতে দেবেন না কেন্দ্রীয় সরকার| কয়েকটা রাফেল না কিনলেই পেনশনের টাকা আপনি পেয়েও যেতে পারেন|

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *