Supreme court of India gives relief to those firms that did not pay wages during lockdown

মাইনে না দেওয়ায় জুলাই পর্যন্ত শাস্তি নয়: সুপ্রিম কোর্ট

ভারতবর্ষ

কর্মহীনতার পারদ বেড়েছে। ২০ কোটিরও বেশি শ্রমিক দুই মাস ধরে কোন মাইনে (Wages during lockdown) পাননি। চরম অনিশ্চিয়তার মধ্যে এখনও দিন …

নিজস্ব প্রতিবেদন: দেশ জুড়ে আড়াই মাসের লকডাউন। শিল্প, কারখানা থেমে গেছে। কর্মহীনতার পারদ বেড়েছে। ২০ কোটিরও বেশি শ্রমিক দুই মাস ধরে কোন মাইনে (Wages during lockdown) পাননি। চরম অনিশ্চিয়তার মধ্যে এখনও দিন কাটছে। চতুর্থ পর্বের লকডাউন চলছে দেশে। অনেক বেসরকারি সংস্থা, তাদের কর্মীদের বেতন দিতে পারেনি। তাদের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া যাবে না।

২,০২৭ বার পাকসেনা – চীন ভারী অস্ত্র ও সেনা আনছে – আরও জানতে ক্লিক করুন …

একথা আজ জানিয়ে দিল দেশের সুপ্রিম কোর্ট। এ ব্যাপারে একটি মামলা আনা হয়। সেই রায়ে সর্বোচ্চ আদালত বলে, নিয়োগকর্তাদের বিরুদ্ধে এই কারণে জুলাই মাস পর্যন্ত কোনও ব্যবস্থা নেওয়া যাবে না। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বেসরকারি সংস্থাগুলির কাছে আবেদন জানান। মহামারীর এই সময় শ্রমিকদের টাকা না কাটার অনুরোধ করেন।

ভারতে Lone Wolf হামলার ছক আল কায়দার – আরও জানতে ক্লিক করুন …

গত ২৯শে মার্চ একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করেছিল কেন্দ্রীয় সরকার। আজ সুপ্রম কোর্ট এবিষয়ে নির্দেশিকা তুলে ধরে। দেশের প্রত্যেক রাজ্যগুলিকে বেতন ও ভাতা প্রদানের বিষয়ে সতর্কতা নিতে হবে। নিয়োগকারী ও কর্মচারীদের মধ্যে আলোচনার ব্যবস্থা করতে হবে। সংশ্লিষ্ট শ্রম কমিশনারদের কাছে প্রতিবেদন দাখিল করতে হবে।

বিজেপির ২১শের তোড়জোড় – অমিত শাহর ভার্চুয়াল জনসভা – আরও জানতে ক্লিক করুন …

কাজ করতে ইচ্ছুক ব্যক্তিদের সঙ্গে বেতন ও ভাতা সংক্রান্ত বিরোধ থাকতে পারে। কিন্তু কাজে যোগদানের অনুমতি দেওয়া উচিত। সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি অশোক ভূষণ, সঞ্জয় কিষাণ কল এবং এম আর শাহ-র বেঞ্চ এদিন মত জানান। সেখানে জানানো হয় “এ ব্যাপারে মতান্তর নেই যে শিল্পসংস্থা এবং শ্রমিকরা একে অপরের উপরের নির্ভরশীল। কর্মীদের পঞ্চাশ দিনের বেতন মেটানো নিয়ে জটিলতা তৈরি হয়েছে । আর তা সমাধানের জন্য উদ্যোগ নিতে হবে।”

আসলে কেন্দ্রের ২৯শে মার্চের নোটিসকে চ্যালেঞ্জ করে কিছু সংস্থা সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিল। এর পরবর্তী শুনানি হবে জুলাইয়ের শেষ সপ্তাহে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *