জন লেনন ও আমজাদ আলী খান -এর জন্মদিন

জন লেনন ও আমজাদ আলী খান -এর জন্মদিন

লাইফস্টাইল

জন লেনন ও আমজাদ আলী খান -এর নাম সংগীতের দুনিয়ায় একটা গোটা যুগ। পপ গানের এক কিংবদন্তি জন লেনন। তার পুরো নাম জন উইন্সটন লেনন।

জন লেনন ও আমজাদ আলী খান -এর নাম সংগীতের দুনিয়ায় একটা গোটা যুগ। পপ গানের এক কিংবদন্তি জন লেনন (John Lennon)। তার পুরো নাম জন উইন্সটন লেনন। জুলিয়া লেনন ও আলফ্রেড ফ্রেডি লেননের ঘরে জন উইন্সটন লেলন জন্মেছিলেন ১৯৪০ সালের ৯ই অক্টোবর।তিনি ছিলেন রক ও পপ গায়ক। এছাড়া তিনি ছিলেন গীতিকার, সঙ্গীতজ্ঞ, কবি, শিল্পী ও শান্তিকর্মী। লেনন জনপ্রিয় ব্যান্ড দ্য বিটলসের প্রতিষ্ঠাতা। লেনন ও পল ম্যাককার্টনি যৌথভাবে বিটলস ও অন্যদের জন্য গান লিখতেন যা বাণিজ্যিকভাবেও সফল ছিল। লেনন ও ম্যাককার্টনি ছিলেন একে অপরের পরিপূরক। তার নিজস্ব ক্যারিয়ারে লেনন ইমাজিন ও গিভ পিস এ চান্সের মতো অসংখ্য গানের জন্ম দিয়েছেন। লেনন ছিলেন বিপ্লবী প্রকৃতির। ১৯৮০ সালের ৮ই ডিসেম্বর রেকর্ডিং থেকে ফেরার সময় আততায়ী মার্ক ডেভিড চ্যাপম্যানের হাতে লেনন মারা যান।

John Lennon
John Lennon

১৯৫৭ সালের মার্চ মাসে লেনন দ্য কোয়ারিমেন নামে একটি ব্যান্ড দল গঠন করেন। এসময় তিনি কোয়ারি ব্যাংক গ্রামার স্কুলে পড়তেন। তাদের প্রথম অনুষ্ঠান ছিল ১৯৫৭ সালের ৯ জুন মিস্টার মেকার নামে ক্যারোল লিউইসের একটি অডিশনে।১৯৫৮ সালের মাঝামাঝি দ্য কোয়ারিমেন তাদের প্রথম রেকর্ডিং সম্পন্ন করে। এতে ছিল বাডি হলির গান দ্যাট’ল বি দ্য ডে এবং ম্যাককার্টনি ও হ্যারিসনের গাওয়া মৌলিক গান ইন স্পাইট অব অল দ্য ডেঞ্জার।২০০২ সালে বিবিসির জরিপে ১০০ শ্রেষ্ঠ ব্রিটনসের তালিকায় তিনি অষ্টম অবস্থান লাভ করেছেন। ২০০৪ সালে রোলিং স্টোন সর্বকালের শ্রেষ্ঠ পঞ্চাশজন শিল্পীর তালিকায় লেননকে ৩৮তম অবস্থানে স্থান দিয়েছে এবং দ্য বিটলসকে ১ নম্বর অবস্থানে রেখেছে।

আমজাদ আলি খান জন্ম একজন স্বনামধন্য ভারতীয় সরোদবাদক তথা শাস্ত্রীয় সঙ্গীতজ্ঞ। ১৯৪৫ সালের ৯ই অক্টোবর গোয়ালিয়রে আমজাদ আলি খানের (Amjad Ali Khan) জন্ম হয়।

Amjad Ali Khan
Amjad Ali Khan

১৯৬০-এর দশক থেকে তিনি আন্তর্জাতিক স্তরে সঙ্গীতানুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করছেন। ২০০১ সালে তাকে ভারতের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ অসামরিক সম্মাননা পদ্মবিভূষণে ভূষিত করা হয়। পিতার নিকট আমজাদ সঙ্গীতে তালিম নেন।তিনি অত্যন্ত অল্পবয়স থেকেই নানা স্থানে অনুষ্ঠানে অংশ নিতে শুরু করেন।১৯৬৩ সালে আমজাদ আলি খান প্রথম মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সরোদ বাজান। ২০০০-এর দশক পর্যন্ত এদেশে একাধিক অনুষ্ঠানে তাকে সপুত্র সরোদ বাজাতে দেখা গেছে।সারা জীবন ধরে তিনি তার বাদ্যযন্ত্রের উন্নতিতে নানা পরীক্ষানিরীক্ষা চালিয়েছেন।

১৯৮৯ সালে আমজাদ আলি খান সঙ্গীত নাটক অকাদেমি পুরস্কার লাভ করেন। ভারত সরকার তাকে ১৯৭৫ সালে পদ্মশ্রী, ১৯৯১ সালে পদ্মভূষণ ও ২০০১ সালে পদ্মবিভূষণ সম্মানে ভূষিত করে।২০০৪ সালে তিনি লাভ করেন ফুকুওকা এশীয় সংস্কৃতি পুরস্কার।১৯৮৪ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অঙ্গরাজ্য ম্যাসাচুসেট্‌স ২০ এপ্রিল তারিখটিকে আমজাদ আলি খান দিবস ঘোষণা করেছিল। ১৯৯৭ সালে যুক্তরাষ্ট্রের হস্টন, টেক্সাস, ন্যাশভিলে, টেনেসি তাকে সাম্মানিক নাগরিকত্ব প্রদান করে। গোয়ালিয়ারে তার পৈতৃক ভবনটি এখন একটিসঙ্গীত চর্চা কেন্দ্র। বর্তমানে তিনি সপরিবারে নতুন দিল্লিতে বাস করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *