Raja Ram Mohan Roy Birth Anniversary

রাজা রামমোহনের শুভ জন্মদিন ।

ইতিহাস লাইফস্টাইল

Father of Indian Renaissance Raja Ram Mohan Roy Birth Anniversary

১৮১৪ সালে তিনি গড়ে তোলেন ‘আত্মীয়সভা’। ১৮২৮ সালে দ্বারকানাথ ঠাকুরের সঙ্গে ‘ব্রাহ্মসমাজ’ স্থাপন করেন রাম মোহন রায়।

একসময় সনাতনী ধর্মে স্বামীনিষ্ঠার প্রমাণ দিতে নারীদের চিতার আগুনে মরণঝাঁপ দিতে হত। সমাজের সেই ব্যাধিকে দূর করে আলোর পথ দেখিয়েছিলেন এক মহাপুরুষ।যাঁর দৃঢ়তা, জ্ঞানের আলোয় উদ্ভাসিত হয়ে সমাজের কোণে লুকিয়ে থাকা অন্ধকার দূর হয়েছিল, যাঁর হাত ধরে নবজাগরণের মুখ দেখেছিল এ সমাজ, সেই সমাজ সংস্কারক রাজা রামমোহন রায়ের ২৪৭ তম জন্মদিন আজ|

সেই ১৭৭২ সালের ২২শে মে হুগলি জেলার রাধানগরে জন্মেছিলেন রামমোহন রায়। হুগলি জেলার রাধানগরে জন্মেছিলেন রামমোহন রায়। সংস্কৃত ভাষার পাশাপাশি পার্সি, আরবিতেও শিক্ষালাভ করেছিলেন তিনি। বাবার মৃত্যুর পর ১৮০৩ সালে মুর্শিদাবাদে চলে আসেন রামমোহন রায়। সেসময়ই প্রকাশিত হয় তাঁর প্রথম বই ‘তুহফত-উল-মুহাহিদ্দিন’।

প্রাচীন বৈদিক সাহিত্যের চর্চার পাশাপাশি তন্ত্রধর্ম সম্পর্কেও বিপুল জ্ঞান অর্জন করেন। সারাজীবন অন্ধবিশ্বাস ও গোঁড়ামি থেকে সমাজকে মুক্ত করার লড়াই চালিয়ে গিয়েছেন তিনি। রাজা রামমোহন রায় বিশ্বাস করতেন যে, পাশ্চাত্য শিক্ষার দ্বারাই ভারতীয়দের উন্নতি সম্ভব হবে।

তাই যাতে ভারতে রসায়ন শাস্ত্র, শারীরবিদ্যা, চিকিৎসাশাস্ত্র প্রভৃতি শিক্ষার ব্যবস্থা করা হয় তার জন্য দূরদর্শী রাজা রামমোহন রায়, রাজা রাধাকান্ত দেব, ভূকৈলাসের জয়নারায়াণ ঘোষাল ও মহাপ্রাণ ডেভিড হেয়ারের সহযোগিতায় ১৮১৭ খ্রিস্টাব্দে ২০ জানুয়ারি ‘হিন্দু কলেজ’ (পরবর্তীকালে প্রেসিডেন্সি কলেজ ও বর্তমানে প্রেসিডেন্সি ইউনিভার্সিটি নামে পরিচিত) স্থাপন করেন।

রাম মোহন রায়ের আমলে বাংলা ডুবে গিয়েছিল কুসংস্কার, ধর্মান্ধতা এবং অশিক্ষার অন্ধকারে ৷ এই অন্ধকার দূর করতেই অগ্রণী ভূমিকা নিয়েছিলেন তিনি। তাই নিরন্তর লড়াইয়ের ফলে সতীদাহ প্রথার মতো ঘৃণ্য সামাজিক প্রথার অবসান হয়। তার জন্য অনেক অত্যাচার সহ্য করতে হয়েছিল তাঁকে। ১৮১৪ সালে তিনি গড়ে তোলেন ‘আত্মীয়সভা’। ১৮২৮ সালে দ্বারকানাথ ঠাকুরের সঙ্গে ‘ব্রাহ্মসমাজ’ স্থাপন করেন রাম মোহন রায়।

১৮৩০ খ্রিস্টাব্দে আলেকজান্ডার ডাফকে জেনারেল অ্যাসেম্বলি ইনস্টিটিউশন বা স্কটিশ চার্চ কলেজ প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে সাহায্য করেন।উপমহাদেশে জাতীয় চেতনার উন্মেষেও রামমোহন রায়ের প্রভূত অবদান ছিল। মুঘল সম্রাট দ্বিতীয় আকবর রামমোহন রায়কে ‘রাজা’ উপাধিতে ভূষিত করেন। ১৮৩১ সালে মুঘল সাম্রাজ্যের দূত হিসেবে যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স ভ্রমণ করেন তিনি। তাঁকে প্রণাম জানাই|

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *