Sanitizing Your House This Diwali

Sanitizing Your House: আলোর উৎসবে আপনার ঘর

লাইফস্টাইল

দীপাবলিকে বরন করার পালা। চেষ্টা থাকে নিজের বাসভূমিকে পরিষ্কার করে রাখা। সকলের অন্দরমহল থাকুক জীবাণু মুক্ত (Sanitizing Your House)।

শরৎ বিদায়ের সাথে সাথে নেমেছে ঠান্ডার আমেজ। এবার আলোর উৎসব দীপাবলিকে বরন করার পালা। চেষ্টা থাকে নিজের বাসভূমিকে পরিষ্কার করে রাখা। সকলের অন্দরমহল থাকুক জীবাণু মুক্ত (Sanitizing Your House)। হাত, কাপড় ও ঘরের বিভিন্ন স্থান সঠিকভাবে ধুয়ে রাখার মাধ্যমে ক্ষতিকর জীবাণুর বিস্তার রোধ করা যায়। তবে বেশিরভাগই মানুষ বিষয়টা মাথায় রাখেন না। সঠিক সময়ে হাত, কাপড়, দেয়াল, মেঝে ইত্যাদি পরিষ্কার করা ঘরের পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা রক্ষার জন্য বিশেষ জরুরি। তবে প্রতি চারজনের মধ্যে একজন মানুষ এই বিষয়টিকে গুরুত্ব দেন না, যা যথেষ্ট দুশ্চিন্তার বিষয়।

ঘরের মেঝে এমন একটা জায়গা, যেখানে আপনি আপনার পোষ্যের সঙ্গে খেলায় মেতে ওঠেন। আপনার সেই সুখী গৃহকোনে সুখ ও নিরাপদ রাখতে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল ফ্লোর ক্লিনার। এই পুজোয় আপনার ঘরকে জীবানুমুক্ত করতে ব্যবহার করুন ফিনাইল।পরিষ্কার করা আর জীবাণু মুক্ত রাখার মধ্যকার পার্থক্যটা সাধারণ মানুষের বুঝতে হবে। ঘর পরিষ্কার করা মানে শুধু ধুলাবালি দূর করা। কিন্তু ঘর জীবাণু মুক্ত রাখতে হলে সঠিক সময়ে ঝুঁকিপূর্ণ স্থানগুলো কার্যকরভাবে পরিষ্কার করতে হবে। যাতে খাবার তৈরি, শৌচাগার ব্যবহার এবং পোষা প্রাণীর মাধ্যমে জীবাণু সংক্রমিত হতে না পারে। খাবার রান্নার পর রান্নাঘর পরিষ্কার করতে কাপড়ের পরিবর্তে কাগজের তোয়ালে ব্যবহার করা ভালো। এতে মোছার কাপড় জীবাণুতে সংক্রমিত হওয়া থেকে বাঁচবে।

দমবন্ধ করা পরিবেশ স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। তাই বাথরুমের দরজা, জানালা সবসময় বন্ধ করে রাখবেন না। মাঝে মাঝে খুলে রাখুন। তাহলে আলো বাতাস চলাচল করতে পারবে। যা আপনার ঘরের পরিবেশের ভারসাম্য বজায় রাখবে। এছাড়া সপ্তাহে অন্তত একদিন বাথরুম এর বালতি, মগ, ফ্লোর পরিষ্কার করুন।ফ্রিজকে সবসময় পরিষ্কার রাখুন। ফ্রিজের ট্রে, সাইডগুলো অপরিষ্কার থাকলে সেখানে ফ্যাঙ্গাস জন্ম নিতে পারে। তাই নিয়মিত ফ্রিজ পরিষ্কার রাখুন।একুরিয়ামের অস্বাস্থ্যকর পানি এবং মাছ আপনার ঘর এবং আপনার জন্য ক্ষতিকর। ঘরে একুরিয়াম থাকলে তা অন্তত মাসে একবার পরিষ্কার রাখুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *