Cracks found in earths magnetic field causes tension across science fraternity

পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্রে দুটুকরো ফাটল – মস্ত বিপদের সম্ভাবনা

বিজ্ঞান

পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্রে (Earths magnetic field) ফাটল বড় হয়েছে। এর একটা ফাটল ভেঙে দু’টুকরো হয়েছে। ফলে, সেখানে ভয়ঙ্কর সৌরকণা, সৌর বিকিরণ ও …

নিজস্ব সংবাদদাতা: প্রায় গোটা পৃথিবী এইমুহূর্তে ভাইরাস ভাবনায় আবদ্ধ। কিন্তু এর বাইরেও অনেক কিছু ঘটে যাচ্ছে ও ঘটতে চলেছে। বেশ কিছু বিষয়, তৃতীয় গ্রহের অস্তিত্ব সংকটের কারন হয়ে দাঁড়াতে পারে। সেই সম্ভাবনা দেখতে পেয়েছে নাসা। পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্রে (Earths magnetic field) ফাটল বড় হয়েছে। এর একটা ফাটল ভেঙে দু’টুকরো হয়েছে। ফলে, সেখানে ভয়ঙ্কর সৌরকণা, সৌর বিকিরণ ও মহাজাগতিক রশ্মির চাপ এসে পৌঁছাবে। সম্প্রতি নাসা এক রিপোর্টে এই তথ্য জানিয়েছে। আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন, কৃত্রিম উপগ্রহগুলির যন্ত্রাংশের ধ্বংস হতে পারে। থামতে পারে সেই এলাকার টেলিযোগাযোগ, বিদ্যুৎ সংযোগ ও নেভিগেশন ব্যবস্থা।

Cracks found in earths magnetic field causes tension across science fraternity
Cracks found in earths magnetic field causes tension across science fraternity

এই পৃথিবী নিরাপদ ও বাসযোগ্য একটা জায়গা। এই গ্রহটিকে ঘিরে আছে চৌম্বক ক্ষেত্র। এটি আমাদেরকে কঠোর সৌরবায়ু এবং মহাজাগতিক বিকিরণ থেকে রক্ষা করে আসছে। এখন দেখা যাচ্ছে, এই ম্যাগনেটোস্ফিয়ারে ফাটল ধরেছে। গবেষকরা ২০১৫ সালের ২২শে জুন, ভারতের উটি-তে স্থাপিত গ্রেপস-৩ মিউয়ন টেলিস্কোপে, মহাজাগতিক রশ্মির একটি বৃহদায়তন বিস্ফোরণ, দেখতে পান। সেই সময়ে একটি গুরুতর ভূচৌম্বকীয় ঝড় আলোড়ন তৈরি করে। ফলে উত্তর ও দক্ষিণ আমেরিকার অনেক উচ্চ অক্ষাংশের দেশে রেডিও সংকেত ব্ল্যাকআউট হয়ে যায়।

[ আরও পড়ুন ] পৃথিবীকে ১০২৪ বার পাক – দুই নভশ্চর ঝাঁপ দিলেন সমুদ্রে

পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্রের একটা অংশ দুর্বল হয়ে যাচ্ছে। তবে বিশেষ করে দুর্বল হচ্ছে আফ্রিকা ও দক্ষিণ আমেরিকার মাঝামাঝি জায়গা। এর নাম সাউথ আটলান্টিক অ্যানোমালি। গত কয়েক বছরে এ আরও বেড়েছে। ইউরোপীয় মহাকাশ সংস্থা জানাচ্ছে, এই চৌম্বক ক্ষেত্রের শক্তি ২৪০০০ ন্যানোটেসলা থেকে কমে ২২০০০ ন্যানোটেসলা হয়। প্রতি বছর ২০ কিলোমিটার করে চৌম্বক ক্ষেত্রের এই দুর্বলতা বাড়িয়ে যাচ্ছে পশ্চিম দিকে।

[ আরও পড়ুন ] সাগরপৃষ্ঠের ৬০ ফুট নিচে গবেষণাকেন্দ্র – অজানা তথ্য

পৃথিবীর এই চৌম্বক ক্ষেত্রটি মহাকাশে কয়েক লক্ষ কিলোমিটার পর্যন্ত ছড়িয়ে আছে। এর অন্য নাম- ‘জিওম্যাগনেটিক ফিল্ড’। এই চৌম্বক ক্ষেত্রটি ভয়ঙ্কর সৌর বিকিরণ ও অত্যন্ত বিষাক্ত মহাজাগতিক রশ্মি থেকে পৃথিবীকে বাঁচায়। সৌর বিকিরণ ও মহাজাগতিক রশ্মি এসে পড়লে পৃথিবীর এই চৌম্বক ক্ষেত্র সরিয়ে দিতে পারে। ‘সম্প্রতি ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সি জানায়, পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্র গত ২০০ বছরে ৯ শতাংশ শক্তিহীন হয়ে পড়েছে। আর সেই চৌম্বক ক্ষেত্রের ফাটলটি ভেঙে দু’টুকরো হয়েছে। তাই চৌম্বক ক্ষেত্র গত ৫০ বছরে ৮ শতাংশ দুর্বল হয়েছে। পৃথিবীর ভাবনা বেড়েই যাচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *