BCCI ethics officer to examine conflict of interest complaint against India captain Virat Kohli

বিরাট শাস্তি পেতে পারেন কোহলি – একাধিক সংস্থার সঙ্গে যুক্ত

খেলা

এবার খেলার বাইরে অন্য এক খেলা শুরু হলো। আর সেই খেলার সাথে আছে ভারতীয় ক্রিকেটের অধিনায়ক বিরাট কোহলি (Virat Kohli)। ভারতের সুপ্রিম …

নিজস্ব সংবাদদাতা: করোনার দাপটে বিশ্বের অধিকাংশ খেলা থেমে গেছে। কিছু খেলা হলেও দর্শক থাকছেন না মাঠে। কিন্তু এবার খেলার বাইরে অন্য এক খেলা শুরু হলো। আর সেই খেলার সাথে আছে ভারতীয় ক্রিকেটের অধিনায়ক বিরাট কোহলি (Virat Kohli)। ভারতের সুপ্রিম কোর্ট কর্তৃক নিয়োগকৃত লোধা কমিশনের সুপারিশ অনুসারে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সাথে চুক্তিভুক্ত কেউ অন্য কোনো লাভজনক সংস্থাতে থাকতে পারবেন না।

[ আরও পড়ুন ] কোচ দ্বন্দে বার্সেলোনা ছাড়তে চলেছেন মেসি!

এই স্বার্থের সংঘাতের মত এক অভিযোগ আনা হয়েছে কোহলির বিরুদ্ধে। আর এই অভিযোগ প্রমাণিত হলে, তাকে বিরাট শাস্তির মুখে পড়তে হবে। এই অভিযোগ এনেছেন মধ্যপ্রদেশ ক্রিকেট সংস্থার আজীবন সদস্য সঞ্জীব গুপ্তা। বিসিসিআইয়ের এথিকস অফিসার ও অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি ডি কে জৈনের কাছে তিনি একটি চিঠি পাঠিয়েছেন। এর আগে শচীন, সৌরভ, লক্ষণদের মতো তারকাদের বিরুদ্ধে এই ধরনের অভিযোগ এনেছিলেন সঞ্জীব।

BCCI ethics officer to examine conflict of interest complaint against India captain Virat Kohli
BCCI ethics officer to examine conflict of interest complaint against India captain Virat Kohli

ফলে শচীন, সৌরভদের বিসিসিআইয়ের ক্রিকেট উপদেষ্টামণ্ডলীর পদ ছাড়তে হয়। পরে অবশ্য প্রত্যেকে নির্দোষ প্রমাণিত হন। এবার সঞ্জীব গুপ্তা, অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে নিয়ে নেমেছেন। সঞ্জীব গুপ্ত জানিয়েছেন, বিসিসিআইয়ের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হওয়া সত্ত্বেও বিরাট ক্রীড়া সম্পর্কিত একাধিক সংস্থার সঙ্গে যুক্ত আছেন। সঞ্জীব গুপ্তা স্পষ্ট করে দিয়েছেন, তিনি কারও প্রতি ব্যক্তিগত বিরোধিতা থেকে এভাবে একের পর এক অভিযোগ আনেন নি।

[ আরও পড়ুন ] ব্যাডমিন্টনের কিংবদন্তি লিন ডান অবসর নিলেন

তার উদ্দেশ্য, বিসিসিআইয়ের কাজকর্মের স্বচ্ছতা বজায় থাকুক। এর সাথে লোধা কমিশন তথা, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ যথার্থ ভাবে পালন করা হোক। তিনি লিখেছেন, ‘অধিনায়ক কোহলি একই সাথে দুটি পোস্ট ধরে রেখেছেন। আর এটি বিসিসআইয়ের রুল ৩৮ (৪) এর সম্পূর্ণ বিপরীত। কিন্তু এই রুলটি অনুমোদন দিয়েছেন ভারতের মহামান্য সুপ্রিম কোর্ট।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *