Sir Don Bradman Birth Anniversary

Don Bradman: আজ স্যার ডন ব্যাডম্যানের জন্মদিন

খেলা

ক্রিকেটে অভিষেকের পর নিউ সাউথ ওয়েলসের হয়ে ব্যাট হাতে ম্যাচের পর ম্যাচ পারফর্ম করে যাচ্ছিলেন ‘বাউরালের বিস্ময়-বালক’ (Don Bradman)।

স্যার ডোনাল্ড জর্জ ব্র্যাডম্যান (Don Bradman), যিনি প্রায়শই দ্য ডন নামে অভিহিত, তিনি বিখ্যাত অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার ছিলেন। আজ তার শুভ জন্মদিন। ১৯০৮সালের ২৭শে আগস্ট, নিউ সাউথ ওয়েলসের বাউরালে তাঁর জন্ম। ২৩৪টি প্রথম-শ্রেণীর খেলায় ২৮০৬৭ রান এবং ৫২ টেস্ট ম্যাচের ক্যারিয়ারে ৬৯৯৬ রান। মাত্র ১৯ বছর বয়েসে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেকের পর নিউ সাউথ ওয়েলসের হয়ে ব্যাট হাতে ম্যাচের পর ম্যাচ পারফর্ম করে যাচ্ছিলেন ‘বাউরালের বিস্ময়-বালক’। পরে সুযোগ এলো জাতীয় দলের হয়ে মাঠে নামার। ডাক পেলেন ১৯২৮-২৯ মরশুমে সফরকারী ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রথম টেস্টের দলে।

ব্রিসবেনের ঐ টেস্টে অস্ট্রেলিয়া পরাজিত হলো ৬৭৫ রানের সুবিশাল ব্যবধানে। ডন করলেন দু ইনিংসে ১৮ এবং ১। বাদ পড়লেন দ্বিতীয় টেস্টের দল থেকে- সেই প্রথম এবং সেই শেষ। তৃতীয় টেস্টের দলে ডাক পেয়ে করলেন করেন ৭৯ এবং ১১২ রান। ডন ব্র্যাডম্যানকে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ ব্যাটসম্যান বলে অভিহিত করা হয়। টেস্ট ক্রিকেটে ব্র্যাডম্যানের ৯৯।৯৪ ব্যাটিং গড়কে বড় ধরনের যে-কোন খেলাধুলার সব থেকে বড় অর্জন বলে অভিহিত করা হয়। ৯২ বছর বয়সে ব্র্যাডম্যান মারা যান ২৫শে ফেব্রুয়ারি,২০০১।

তার আগে ১৯৪৯ সালে অর্জন করলেন সম্মানসুচক ‘নাইটহুড’। উইজডেন বিশ্বের

Sir Don Bradman Birth Anniversary
Sir Don Bradman Birth Anniversary

শীর্ষস্থানীয় ক্রিকেটারের পুরস্কারটি একাই দশবার এবং গ্যারি সোবার্স আটবার লাভ করেছিলেন। এছাড়া, অন্য কোন খেলোয়াড়ই তিনবারের বেশি লাভ করতে পারেননি। ২০০০ সালে শতাব্দীর সেরা অস্ট্রেলীয় ক্রিকেট বোর্ড দলে তাঁকে অধিনায়ক হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।সর্বকালের সেরা ব্যাটসম্যান কে? তিনি হলেন ‘স্যার ডোনাল্ড ব্র্যাডম্যান’। ব্র্যাডম্যানের ব্যাটিং গড় হচ্ছে ৯৯।৯৪! তার মানে হচ্ছে, ব্র্যাডম্যানের গড়ের সাথে গ্রেট ব্যাটসম্যানদের গড়ের পার্থক্যও যদি কোনো ব্যাটসম্যানের গড় হয়, তাহলেই তাকে গ্রেট বলে ফেলা যায়!

টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে এক সিরিজে ৮০০+ রান করার কীর্তি রয়েছে মাত্র ৯টি। একমাত্র ব্যাটসম্যান হিসেবে ব্র্যাডম্যান কাজটা করেছেন তিনবার। আর কোনো ব্যাটসম্যানের দু’বার এই কাজ করার রেকর্ড নেই। এর মাঝে সাউথ আফ্রিকার বিপক্ষে ১৯৩১/৩২ সালের সিরিজে ৫ ইনিংসে ৪টি সেঞ্চুরির সাহায্যে ২০১।৫০ গড়ে রান করেছিলেন ৮০৫। যা কিনা ৪ অথবা এর বেশি ম্যাচ খেলা সিরিজে সর্বোচ্চ গড়। ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন ১৯২৮ সালে, শেষ হয়েছে ১৯৪৮ সালে। সময়ের বিচারে প্রায় ২০ বছর। তবে এরপরেও টেস্ট সংখ্যা মাত্র ৫২টি হবার কারণ হচ্ছে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের (১৯৩৯-১৯৪৬) কারণে ক্যারিয়ার থেকে ৮টি বছর ঝরে যাওয়া। তিনি ক্রিকেটের মাঠে অমর হয়ে থাকবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *