Tour to Purulia

পাহাড়, লাল মাটি,সবুজ জঙ্গল আর ছৌ নাচ – পুরুলিয়া ভ্রমণ

ভ্রমণ

চারিদিকে লাল পলাশ ও লাল মাটির রাস্তার একটা সুন্দর গ্রাম্য পরিবেশ,যা শহুরে ভিড়ের থেকে অনেক ভালো লাগবে।

আপনি আসতে পারেন পশ্চিমবঙ্গের প্রান্তিক জেলা ডুংরি-ঝরনা পুরুলিয়ায়।যেখানে পাহাড়ের সাথে বাড়তি পাওনা ঝরনা। জঙ্গল আর পাহাড়ের একসাথে মজা নিতে পুরুলিয়া ভালো।নিরিবিলিতে মজা নিতে পারবেন। চারিদিকে লাল পলাশ ও লাল মাটির রাস্তার একটা সুন্দর গ্রাম্য পরিবেশ,যা শহুরে ভিড়ের থেকে অনেক ভালো লাগবে। শীতের সময়টাই সবচেয়ে ভালো. তবে ডিসেম্বরের ছুটি আর জানুয়ারী ছুটিতে না আসাই ভাল. এই সময় লোক সমাগম খুব বেশি হয়. হোটেল পাওয়া খুব দুষ্কর হয়. মোটামুটি জানুয়ারি 15 তারিখের পর প্রোগ্রাম করতে পারলে খুব ভালো হয়. কিংবা ডিসেম্বরের 20 তারিখের আগে যাওয়াই ভালো|

অযোধ্যা পাহাড় অন্যতম,যেখানে বয়ে গেছে সুবর্ণরেখা,কংসাবতী ও কুমারী তিনটি নদীর স্রোত।অযোধ্যা ছাড়াও দেখার সুযোগ মিলবে,সত্যজিৎ রায়ের বিখ্যাত সিনেমা হীরক রাজার দেশের শুটিং স্পট এই পুরুলিয়ায়| জয়চণ্ডী পাহাড় ও বাগমুণ্ডী পাহাড় এই জন্য প্রসিদ্ধ। জয়চণ্ডী পাহাড়ে আছে দেবী জয়চণ্ডীর মন্দির।একটা ম্যাপ মত রাখুন নিজের কাছে,তাহলে আরও বেশী সুবিধা। প্রথম দিন পায়ে হেঁটে ঘুরতে পারেন সাহেব বাঁধ,জেলাবিজ্ঞান কেন্দ্র।

অযোধ্যা পাহাড়ের ওখানেই পর পর পেয়ে যাবেন পাখি,পাহাড়,থুরগা ফলস,বামনী ফলস,আপার ড্যাম ও লোয়ার ড্যাম। এছাড়াও দেখতে পারেন পি.পি.এস.পি প্রোজেক্ট যেখানে পাবেন একটু বিজ্ঞানের ছোঁয়া। এছাড়াও অযোধ্যা পাহাড় থেকে বাগমুণ্ডী হয়ে চলে যেতে পারেন চোরিদা গ্রামে।সেখানে ছোঁয়া পাবেন অপূর্ব ছৌ নাচের।তারপর চোরিদা গ্রাম থেকে নেমে বুরদা মোড়। ওখান থেকে ডান দিকে গেলেই অপূর্ব খয়রাবেরা ড্যাম চোখে পড়বে।আর চোখে পড়বে পঞ্চকোট পাহাড়।গড় পঞ্চকোট রাজবাড়ির গা ছমছমে ইতিহাস ঘেরা অলিন্দ, অযোধ্যা পাহাড়ে জলপ্রপাত-জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র, বড়ন্তির সূর্যাস্ত, সঙ্গে ছৌ-নাচ|

সানরাইজ পয়েন্ট, যা বামনি ড্যাম এন্ড ভিউ পয়েন্ট নামে পরিচিত. এখান থেকে সূর্যদয় দেখতে খুব ভালো লাগে. লোহার ড্যামের পূর্ব দিকে পি পি এস পি সুইচ ইয়ার্ড. এখান থেকে জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রের বিভিন্ন প্রকল্পের কাজ দেখা যায়. লোয়ার ড্যাম ভিউ পয়েন্ট থেকে কিছুটা উপরে গেলে দেখতে পাওয়া যাবে| তারপানিআ লেকটি ছোট এবং পাহাড়ের একবারে মাথায় অবস্থিত. এখানে যাওয়া একটু কষ্টকর. তবে লেকটি চারিদিকে গাছপালা তেমন একটি নেই. মোটামুটি এটি একটি সুন্দর লেক.হাতে সময় থাকলে দেখতে যেতে পারেন|

যাবেন কিভাবে —–
হাওড়া বা সাঁতরাগাছি থেকে ট্রেন পাবেন পুরুলিয়ার।পুরুলিয়া নেমে ওখান থেকে সোজা গাড়ি ভাড়া করে চলে যেতে পারেন অযোধ্যা পাহাড়ের পথে। সাঁতরাগাছি থেকে সকাল ৯.১৫ তে পাবেন সামারসাত্তা এক্সপ্রেস।আর সকাল ৬.২৫ এ পাবেন রুপসিবাংলা এক্সপ্রেস।আর হাওড়া থেকে যেতে চাইলে,সকাল ৮.৩০ এ পাবেন লালমতি এক্সপ্রেস।এছাড়াও হাওড়া থেকে আরেকটি ট্রেন পাবেন যেটি ছাড়ে রাত ১১টায়।তারপর ফেরার জন্য,আদ্যা – হাওড়া ট্রেন পেয়ে যাবেন।

থাকবেন কোথায় —–
পুরুলিয়ায় পৌঁছে ওখানে পর পর হোটেল পেয়ে যাবেন।যেমন হোটেল আকাশ,পুষ্পক হোটেল,হোটেল জিনিয়াস,হোটেল হিল ভিউ পুরুলিয়া ইত্যাদি ও আরও অনেক আছে।এছাড়াও বাগমুণ্ডীতে পেয়ে যাবেন কিছু কোয়াটার। সরকারি গেস্ট হাউসে আছে খুব ভালো মানের|

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *