বিপাকে পাকিস্তানের গায়ক বিদেশি মুদ্রা পাচারের অভিযোগে

বিপাকে পাকিস্তানের গায়ক বিদেশি মুদ্রা পাচারের অভিযোগে

আন্তর্জাতিক বিনোদন

বিখ্যাত সেই পাকিস্তানি গায়ক সুর চুরি করেন নি পাচার করেছেন বিদেশে মার্কিন ডলার।

মস্ত সমস্যায় পড়লেন নামি এক পাকিস্তানের গায়ক। সুরের মায়ায় তিনি মাতান সুরের কাঙাল অগণিত মানুষদের| বিখ্যাত সেই পাকিস্তানি গায়ক সুর চুরি করেন নি পাচার করেছেন বিদেশে মার্কিন ডলার। তিনি রাহাত ফতে আলী খান| তাঁর কাছে জবাব চাইছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট। তারা এ নিয়ে ওই পাক গায়ককে কারণ দেখানোর নোটিসও দিয়েছে| পাক-গায়ক রাহত ফতে আলি খান দীর্ঘদিন ধরেই ভারতে তুমুল জনপ্রিয়।

বছরের বিভিন্ন সময়ে ভারতের বিভিন্ন জায়গায় তিনি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। অভিযোগ, এই সমস্ত অনুষ্ঠান থেকে পাওয়া অর্থই তিনি বিদেশে পাচার করেছেন।ইডি সূত্রে খবর, যে ঘটনায় ওই পাক-গায়ককে কারণ দর্শানোর নোটিস দেওয়া হয়েছে, সেটি ২০১১ সালের। সেই সময় দিল্লি বিমানবন্দরে তাঁকে ও তাঁর ম্যানেজার মারুফ মারুফকে আটক করে ডিরেক্টর অফ রেভিনিউ ইন্টালিজেন্স।\

তাঁর কাছ থেকে প্রায় ১.২৪ লক্ষ ডলার মেলে, যার কোনও হিসেব ছিল না। তখনই তাঁকে এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হয়। কোথা থেকে এল, তা জানতে চাওয়া হয়। ইডি সূত্রে খবর, এর কোনও সদুত্তর তিনি দিতে পারেননি। তবে তাঁর কোনও দোষ নেই বলেই তিনি দাবি করেছিলেন। তবে জরিমানা দিয়ে সেই সময় তিনি ছাড়া পান।এরপর ২০১৪ সালে ফেমা আইনে ওই পাক-গায়কের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করে ইডি।

তদন্তে ইডি জানতে পারে, অবৈধ ভাবে ২.৪২ কোটি টাকা জোগাড় করেছে। এর অর্থ তিনি প্রায় ২ লক্ষ ২৫ হাজার মার্কিন ডলার বিদেশে পাচার করেছিলেন।এ নিয়ে ওই পাক গায়কের জবাব চেয়েছে ইডি। তাঁকে ৪৫ দিনের মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়েছে। ইডি সূত্রে খবর, সঠিক সময় জবাব না এলে কিংবা সন্তোষজনক জবাব দিতে না পারলে ওই পাক গায়কের বিরুদ্ধে আইনত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।ইডি সূত্রে খবর, দোষী প্রমাণিত হলে তাঁকে ৩০০ শতাংশ জরিমানা হতে পারে।

জরিমানা না দিলে তাঁর বিরুদ্ধে লুক আউট নোটিস জারি করা হবে। ফলে সুরের সাধককে ভারতে আর কোনও অনুষ্ঠান করা যাবে না। প্রশ্ন জাগছে, গায়ক পাঠিয়ে কি পাকিস্তান আড়ালে অন্য কোনো চক্রান্ত করতে চলেছে? গান দিয়ে কি গোপনে গান-বন্দুকের গুটি সাজাচ্ছেন রাহাত ফতে আলী খান?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *